প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] খাজা নাজিমুদ্দীন, ইস্কান্দার মির্জা ও আইয়ুব খানের ডক্টর অব লজ ডিগ্রি বাতিলের দাবিতে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মানববন্ধন

ওবায়দুর রহমান সোহান, ঢাবি প্রতিনিধি : [২] শতবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে কলঙ্কমুক্ত করার লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুকে ডক্টর অব লজ ডিগ্রি প্রদানের আগেই বাংলা ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ এবং বঙ্গবন্ধু বিরোধী খাজা নাজিমুদ্দিন, ইস্কান্দার মির্জা ও আইয়ুব খানকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রদানকৃত ডক্টর অব লজ ডিগ্রি বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ এবং ঢাবি উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

[৩] ২০ জুলাই সোমবার ঢাবির টিএসসি সংলগ্ন রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে দুপুরে এই মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন শেষে মিছিল সহযোগে উপাচার্যের কার্য্যালয়ে গিয়ে ঢাবি উপাচার্য অধ্যাপক ড.মো. আখতারুজ্জামান -এর নিকট স্মারকলিপি প্রদান করে সংগঠনটির নেতাকর্মীরা।

[৪] মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. আল মামুনের সঞ্চালনায় উক্ত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনেট মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক ইয়াসির আরাফাত তূর্যসহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

[৫] মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু কে ঢাবির সম্মানসূচক ডক্টর অব লজ ডিগ্রি প্রদানের আগে পাকিস্তানি দোসর কুখ্যাত খাজা নাজিমুদ্দিন, ইস্কান্দার মির্জা ও আইয়ুব খানকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক দেয়া ডক্টর অব লজ ডিগ্রি বাতিল করতে হবে।

[৬] তিনি আরও বলেন, শতবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কে আমরা কলঙ্কমুক্ত দেখতে চাই। মহান মুক্তিযুদ্ধের সূতিকাগার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কখনোই বাঙালি জাতীয়তাবাদ বিরোধী পাকিস্তানী জান্তাদের কলঙ্কের বোঝা বইতে পারে না। অবিলম্বে এই তিনজনের ডক্টর অব লজ ডিগ্রি বাতিল করতে হবে।

[৭] মানববন্ধনে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. আল মামুন বক্তব্যে বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় তার শতবর্ষ পর্যন্ত ৫২টি সমাবর্তনের মাধ্যমে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি দিয়েছে মোট ৫২ জনকে। এদের মধ্যে কুখ্যাত খাজা নাজিমুদ্দিন কে ১৯৪২ সালে, ইস্কান্দার মির্জা কে ১৯৫৬ সালে এবং মোহাম্মদ আইয়ুব খান কে ১৯৬০ সালে ডক্টর অব লজ ডিগ্রি দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। এই তিনজনকে ডিগ্রি প্রদান করা হয়েছিল তাদের অনুকূল সময় ও পরিস্থিতিতে। কিন্তু এ পর্যায়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে সিদ্ধান্ত নিতে হবে- কুখ্যাত খাজা নাজিমুদ্দিন, ইস্কান্দার মির্জা ও আইয়ুব খানকে ডিগ্রি প্রদান কতটুকু যুক্তিসঙ্গত হয়েছে। সিদ্ধান্ত নিতে হবে, বঙ্গবন্ধুকে ডিগ্রি দিয়ে তাঁর নাম তিন কুখ্যাতের সঙ্গে একই তালিকায় রাখা কতটুকু শোভনীয়?

[৮] তিনি আরও বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বঙ্গবন্ধুর বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহার করে তাঁর ছাত্রত্ব ফিরিয়ে দিতে পারলে এই তিনজন কুখ্যাত ব্যক্তির ডিগ্রি কেন প্রত্যাহার করা হবে না? বঙ্গবন্ধুকে ডিগ্রি দেয়ার আগে এই তালিকা থেকে জঞ্জাল ও আগাছা পরিষ্কার করতে হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত