প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের তাৎপর্য বাড়িয়েছে মুজিববর্ষ

শরীফ শাওন : [২] ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান শুভেচ্ছা বাণীতে এ কথা বলেন। আজ ১ জুলাই বিশ্ববিদ্যায়টির ৯৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী।

[৩] উপাচার্য তার বানিতে বলেন, ২০২০-এ নিরানব্বই বছর শেষ করে শতবর্ষে পা দিল আমাদের এই চিরতরুণ প্রতিষ্ঠান। প্রকৃতপক্ষে, বঙ্গবন্ধু এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ নামক আমাদের প্রাণপ্রিয় মাতৃভূমির দুই অন্তহীন প্রেরণা-উৎস। প্রতিষ্ঠার শতবর্ষ উদযাপনের বিরল সৌভাগ্য-প্রাপ্তির পূর্বক্ষণে মুজিববর্ষ এই বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য চিরঅম্লান আশীর্বাদ হয়ে এসেছে

[৪] অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, শিক্ষা ও গবেষণার বিস্তার, মুক্তচিন্তার উন্মেষ ও বিকাশ এবং সৃজনশীল কর্মকান্ডের মাধ্যমে নতুন ও মৌলিক জ্ঞান সৃষ্টির লক্ষ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়। ৩টি অনুষদ, ১২টি বিভাগ, ৬০ জন শিক্ষক, ৮৪৭ জন শিক্ষার্থী এবং ৩টি আবাসিক হল নিয়ে ১৯২১ সালের পহেলা জুলাই এই বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু হয়েছিল।

[৫] তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস প্রকৃতপক্ষে গণমানুষের প্রতি, প্রাণের চেয়েও প্রিয় মাতৃভূমির প্রতি আমাদের কৃতজ্ঞতা প্রকাশের দিন। আমাদের চিরকৃতজ্ঞ চিত্তই এগিয়ে চলার পাথেয়। প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর শুভ, পবিত্র এই দিনে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করি আমাদের পূর্বসূরীদের অমর স্মৃতির প্রতি, যাদের দৃঢ় প্রয়াসে ও অর্থায়নে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে প্রিয় খ্যাতিমান এ বিশ্ববিদ্যালয়টি। অকৃত্রিম শ্রদ্ধা জানাই তাদের প্রতি যাদের অনবদ্য অবদানে বিশ্ববিদ্যালয়টি চলতে চলতে আজ মহীরুহে। শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সকলের প্রতি ¬- শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী, প্রাক্তন শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শুভানুধ্যায়ীদের।

[৬] তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের বিস্ময়কর অভিযাত্রার নিরবচ্ছিন্ন সঙ্গী হয়ে এই জ্ঞানপীঠ যেন আরও বেশি করে পৃথিবীর সাম্প্রতিকতম জ্ঞানকে আয়ত্ত করার সাধনায় নিয়োজিত থাকতে পারে আর মৌলিক গবেষণার সম্প্রসারণ এবং শিক্ষার গুণগত মান ও পরিবেশ উন্নয়নের শতবর্ষ উদ্যাপনের যে প্রত্যয় তার বাস্তবায়ন ঘটুক। আসুন সেই প্রত্যাশায় আমরা ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় দিবস ২০২০-কে সফল করে তুলি।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত