প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাংলাদেশ সরকারের বিরুদ্ধে কানাডার এথনিক মিডিয়াকে সোচ্চার হওয়ার আহবান বিচারপতি সিনহার!

মোহাম্মদ আলী বোখারী, টরন্টো থেকে, বাংলাদেশের সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা সরকারের চলমান নিষ্পেষণের বিরুদ্ধে কানাডার বহুজাতিক মিডিয়ার প্রতি আহবান জানিয়েছেন। গত ১২ আগস্ট বিকেলে টরন্টো সিটি হলে অনুষ্ঠিত কানাডার ন্যাশনাল এথনিক প্রেস অ্যান্ড মিডিয়া কাউন্সিলের মাসিক সভায় তিনি আহবান জানান। সংগঠনের সভাপতি থমাস সারাসের সভাপতিত্বে ওই সভাটি পরিচালনা করেন ড. মোহাম্মদ তাজদোলাতি।

এতে বিচারপতি সিনহা ওই নিষ্পেষণের প্রকৃতি ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বলেন, ‘আমাকে চিকিৎসার নামে উৎখাত করা হয়েছে; অথচ আমি অসুস্থ ছিলাম না। পরদিন সরকার আমার বিরুদ্ধে নানা ধরণের দুর্নীতির অভিযোগ প্রকাশ করে। কেন তারা দেশে থাকতে আমার বিচার করিনি? কেন এখন আমাকে কানাডায় আশ্রয় প্রার্থনা করতে হচ্ছে?’ ‘আপনারা উপলব্ধি করুন, একজন প্রধান বিচারপতি যদি ন্যায়বিচার না পায়, তবে সাধারণ জনগণ কিভাবে পাবে?’

তিনি আরো বলেন, ‘১৯৭১ সালে আমরা ভারতের সহযোগিতায় পাকিস্তান থেকে স্বাধীনতা অর্জন করেছি; এরপর থেকে ভারতের সঙ্গে আমাদের শান্তি চুক্তি রয়েছে। অথচ ১৯৬৫ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের পর যে সকল সংখ্যালঘু হিন্দু ভারতে চলে যায় তাদের সম্পত্তির উপর শত্রু সম্পত্তি আইনের আরোপ ঘটে, যা এখনও প্রচলিত রয়েছে। কেন?’ ‘পার্বত্য অঞ্চলে উপজাতিদের সঙ্গে সরকারের শান্তি চুক্তি হয়; যার পরিপূরণ আজো হয়নি। নিরাপত্তা বাহিনী কর্তৃক উপজাতি নারীরা অত্যাচারিত ও অপহৃত হচ্ছে।’ ‘সামাজিক মাধ্যমের ব্লগার ও নাগরিক অধিকার কর্মীরা, বিশেষত লেখনীর কারণে ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম ও দৈনিক মানবজমিন সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী সরকার প্রবর্তিত ‘জিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট’-এর অধীনে পঞ্চাশের অধিক মানহানির মুখোমুখি রয়েছেন।’ এছাড়া তিনি ওই সভায় উপস্থিত বহুজাতিক মিডিয়া সদস্যদের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, ‘অনুগ্রহপূর্বক আপনারা এ সকল নিষ্পেষনের বিরুদ্ধে লিখুন, যাতে কানাডার মতো উন্নত জাতি সোচ্চার হয়।’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত