প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দুধ নিয়ে গবেষণা, ঢাবি শিক্ষকের পাশে ডাকসু ও কোটা সংস্কারের নেতাগণ

মুহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন : দুধে ক্ষতিকর এন্টিবায়োটিকের উপস্থিতির গবেষণা ফলাফল প্রকাশের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) শিক্ষক আ ব ম ফারুককে অবমাননার প্রতিবাদ জানিয়েছে ডাকসু ও কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্লাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণের নেতাগণ। এর আগে বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) আ ব ম ফারুক ও অন্যান্য শিক্ষকদের অবমাননার প্রতিবাদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে মানববন্ধন করেছিল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের(ডাকসু’র) সহ-সভাপতি (ভিপি) এবং সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুর বলেন, ফারুক স্যারের পাশে আছি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের অধ্যাপক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিকেল রিসার্স সেন্টারের পরিচালক আ ব ম ফারুক আহমেদ স্যার পাস্তুরিত দুধ নিয়ে গবেষণায় নেতৃত্ব দিয়েছেন৷ বাজার থেকে নামিদামি ব্রান্ডের মিল্কভিটা, আড়ং, ফার্ম ফ্রেশ, প্রাণ, ইগলু, ইগলু চকোলেট এবং ইগলু ম্যাংগোর পাস্তুরিত দুধ পরীক্ষা করেছেন যার ৭ টি নমুনার সবগুলোতেই মানব চিকিৎসায় ব্যবহৃত অ্যান্টিবায়োটিক লেভোফ্লক্সসিন, অ্যান্টিবায়োটিক সিপ্রোফ্লক্সাসিন এবং অ্যান্টিবায়োটিক এজিথ্রোমাইসিনের উপস্থিতি পেয়েছেন। যা মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর । সংবাদ সম্মেলনে তিনি তাঁর গবেষণায় প্রাপ্ত ফলাফল তুলে ধরেছেন।

এতে তার উপর চটেছেন অসাধু ব্যবসায়ী ও সিন্ডিকেট। শুধু তাই নয়; জার্নালে প্রকাশ হওয়ার আগেই সংবাদমাধ্যমে গবেষণার ফলাফল প্রকাশ, তার গবেষণার স্যাম্পল ঠিক ছিল না, গবেষণায় ভুল ছিলো ইত্যাদি অভিযোগে মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব কাজী ওয়াসি উদ্দিন তো তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার এক প্রকারের হুমকিই দিয়ছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের চেয়ারম্যান আরও একটু এগিয়ে একেবারে গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানিয়েছেন, ওই গবেষণার দায় ফার্মেসি বিভাগের নয়৷

নুরুল হক নুর বলেন, বুঝতে পারছেন অসাধু, দুর্নীতিবাজদের সিন্ডিকেট কত বড়! অসাধু, দুর্নীতিবাজরা যতই প্রভাবশালী, শক্তিশালী হোক সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে লড়তে আমরা ‘ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ’ ফারুক স্যারের পাশে আছি। খাদ্যে ভেজাল, দুর্নীতি, অন্যায়-অনিয়ম রুখতে ফারুক স্যারদের পাশে থাকতে হবে। অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করুন, সৎ-সাহসীদের পক্ষে থাকুন।

এই বিষয়ে কথা বললে ডাকসুর সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক আসিফ তালুকদার বলেন, আমি পত্র-পত্রিকার মাধ্যমে যতটুকু জেনেছি তিনি তার রিপোর্টা সম্পর্কে শতভাগ আস্থাশীল। প্রয়োজনে তিনি আন্তজার্তিক মানদণ্ডে বিষয়টি যাচাই করে দেখতে বলেছেন। তারপরও আমি জানি না কোন মানদণ্ডে আমাদের খাদ্য বিভাগ বিষয়টিকে বিবেচনা করেছেন।

ডাকসুর কমনরুম ও ক্যাফেটেরিয়া বিষয়ক সম্পাদক বিএম লিপি বলেন, যেহেতু এটি খাদ্যজনিত বিষয়। আমরা চাই ভেজালমুক্ত খাবার খেতে। যদি স্যারের প্রতিবেদন পুরোপুরি সঠিক হয় এবং তারপরেও যদি তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয় তবে কেউ আর গবেষণা করতে সাহস করবে না। যা কারও কাম্য নয়।

ডাকসু সদস্য চিবল সাংমা এবং তানভীর হাসান সৈকত বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো শিক্ষককে হয়রানি করলে এর শক্ত জবাব দেওয়া হবে।

ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক মুহাম্মদ রাশেদ খাঁন বলেন, দুধ নিয়ে গবেষণার রিপোর্ট প্রকাশের পর থেকেই আ ব ম ফারুক স্যারকে হয়রানি করা হচ্ছে। নামীদামি কোম্পানির অর্থায়নে বিভিন্ন সভা সেমিনারের আয়োজন করে স্যারের বিরুদ্ধে বাজে মন্তব্য করা হচ্ছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থী হিসেবে বলছি, স্যার একজন ভালো মানুষ। তার নীতি নৈতিকতা সম্পর্কে শিক্ষার্থীরা জানে। তাই স্যারকে নিয়ে কোনো ষড়যন্ত্র মেনে নেওয়া হবে না। আশা করি দেশের ১৬ কোটি মানুষ স্যারের পাশে থাকবে।’

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন ও ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুরের বক্তব্যে একমত পোষণ করেছেন।

প্রসঙ্গত গত ২৫ জুন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিক্যাল রিসার্স সেন্টারের পরিচালক আ ব ম ফারুকসহ ফার্মেসি অনুষদের কয়েকজন শিক্ষক এই গবেষণার ফল সংবাদ সম্মেলন করে প্রকাশ করেন। এই প্রতিবেদন প্রকাশের পর গত ৯ জুলাই (মঙ্গলবার) প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের ‘নিরাপদ তরল দুধ উৎপাদন’ শীর্ষক এক আলোচনা অনুষ্ঠানে মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব কাজী ওয়াসি উদ্দিন বলেছিলেন,‘পিআর রিভিউস জার্নালে প্রকাশ হওয়ার আগেই ওই গবেষক তার তথ্য সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। কিন্তু তার গবেষণার স্যাম্পল সঠিক ছিল না। গবেষণাতেও ত্রুটি ছিল। তাকে সাতদিনের সময় দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে সন্তোষজনক কোনো জবাব না পেলে তার বিরুদ্ধে আইননানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’ এরপর থেকেই বিভিন্ন মহল মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ বিভাগের এই বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে আসছেন। আর এই প্রতিবাদে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন ডাকসু ও কোটা সংস্কারের নেতারা।

সম্পাদনা : মিঠুন রাকসাম

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত