প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কুলাউড়ার বাটেরা স্টেশনে উপবন এক্সপ্রেস লাইনচ্যুত, নিহত ৭, আহত ২৫০

সাদিকুর রহমান সামু ও সোহেল রানা, মৌলভীবাজার: সিলেট থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী আন্তঃনগর উপবন এক্সপ্রেস ট্রেনের ৩টি বগি লাইনচুত্য হয়ে ভয়াবহ দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে। রোববার রাত পৌনে ১২টার দিকে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার বরমচাল স্টেশন থেকে ২০০ মিটার দূরে কালা মিয়া বাজার সংলগ্ন একটি ব্রিজে এ দুর্ঘটনায় ট্রেনটির ৩টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে দুটি খালে এবং অপর পাঁচটি বগি উল্টে জমিতে পড়ে যায়।

এতে ঘটনাস্থলে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন অন্তত ২৫০ যাত্রী। এদের মধ্যে অনেকের অবস্থা গুরুতর। ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিসের ১৩টি ইউনিটের পাশাপাশি পুলিশ ও স্থানীয় বাসিন্দারা উদ্ধার কার্যক্রমে অংশ নিয়েছেন। নিহতদের মধ্যে একজনের পরিচয় মিলেছে। তার নাম মনোয়ারা পারভীন। তিনি কুলাউড়ার বাসিন্দা।

কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. নুরুল হক জানান, এ পর্যন্ত ৬০ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। বেশিরভাগ সিলেটে স্থানান্তর করা হয়েছে। ৬ জনের লাশ কুলাউড়া হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।

কুলাউড়া রেলওয়ে স্টেশনের লোকো ইনচার্জ দুলাল চন্দ্র দাস বলেন, ঘটনাটি জানতে পেরেই জিআরপি পুলিশ, দমকল বাহিনী ছাড়াও কুলাউড়ার বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে বেশ কয়েকটি অ্যাম্বুলেন্স ঘটনাস্থলে রয়েছে। এছাড়া ট্রেনটি উদ্ধারে তাদের স্টাফরাও ঘটনাস্থলে রয়েছেন।

ট্রেনের যাত্রী জৈন্তাপুর ইমরান আহমদ ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শাহেদ আহমদ জানান, কুলাউড়ার বরমচাল স্টেশন সংলগ্ন একটি ব্রিজে হঠাৎ ট্রেনের ২টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে খালে পড়ে যায় এবং একটি বগি উল্টে যায়। এতে ঘটনাস্থলে বেস কয়েক জনের মৃত্যু ও লাইনচ্যুত বগির যাত্রী ছাড়াও মারাত্মক ঝাঁকুনিতে অন্তত ২৫০ যাত্রী আহত হয়েছেন বলে জানান তিনি।

এই ট্রেনের যাত্রী আরটিভির স্টাফ রিপোর্টার আশিক মাহমুদ বলেন, ট্রেন দুর্ঘটনায় ট্রেনটির যাত্রীরা চরম দুর্ভোগে পড়েছেন।

ওই ট্রেনে থাকা আরেক যাত্রী সাইদুর রহমান রাব্বী বলেন, আমরা ছয় বন্ধু সিলেট বেড়াতে গিয়েছিলাম। রাতেই সিলেট থেকে ঢাকায় ফিরছি। বরমচাল নামক একটি জায়গায় আসার পর আমাদের পেছনের তিনটি বগি ছিটকে যাওয়ার কথা শুনেছি। আল্লাহর অশেষ রহমতে অন্য বগিতে থাকা যাত্রীরা বেঁচে গেছেন। আমরাও বেঁচে যাওয়াদের মধ্যে রয়েছি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সরাইলের শাহবাজপুরে বেইলি ব্রিজ স্থাপনের কাজ চলায় ঢাকা-সিলেট বাস চলাচল কার্যত বন্ধ রয়েছে। ফলে ট্রেনের উপর চাপ এখন বেশি। অতিরিক্ত যাত্রীর কারণেই ট্রেনটির বগিগুলো লাইনচ্যুত হয় বলে ওই ট্রেনের যাত্রীদের ধারণা। মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের স্টেশন মাস্টার জাহাঙ্গীর আলম এবং শমসের নগরের স্টেশন মাস্টার কবির হোসেন বলেন, বরমচাল এলাকায় উপবন এক্সপ্রেস দুর্ঘটনায় পড়ার কারণে সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত