প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

ফেসবুকে দীর্ঘ পোস্টের মাধ্যমে উলফার কড়া সমালোচনা জুবিন গর্গের

নুর নাহার : গৌয়াহাটি সেন্ট্রালের আর জি বড়ুয়া রোডের একটি শপিং মলের সামনে গ্রেনেড বিস্ফোরণের দায় স্বীকার করেছিলেন উলফার-(স্বাধীন) কমান্ডার ইন চিফ পরেশ বড়ুয়া। গায়ক জুবিন গার্গ এক ফেসবুকের দীর্ঘ পোস্টের মাধ্যমে জঙ্গি সংগঠনকে কড়া সমালোচনা করলেন। যুগশঙ্খ

তিনি বলেছেন, উলফা পরিবর্তনের জন্য বিপ্লব প্রয়োজন। নিরীহ মানুষ হত্যার মধ্যে ভালো কিছু হতে পারে না। সন্ত্রাসের মাধ্যমে একটি জাতি গড়ে তুলতে পারে না। শ্রমের মাধ্যমে যা হতে পারে। আমাদের বাচ্চাদের শেখাও কীভাবে চাষ করতে হয়। প্রতিকূল অবস্থায় কীভাবে বীজ বপন করা হয় তাদের শেখান। তাদের শেখান কীভাবে স্বপ্নকে আকার দিতে হয়। যদি আপনি কিছু নির্মাণ করতে চান, তাহলে মাজুলি গড়ে তুলুন! যদি আপনি কিছু ধ্বংস করতে চান, তাহলে কজিরাঙ্গার আসে পাশে ঘুরতে থাকা হুমকিকে ধ্বংস করুন।

আমার বন্যার বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য বিপ্লবের দরকার। আমার এমন একটি বিপ্লব দরকার যা আমাদের মূলধারার অংশে পরিণত করবে। স্বাধীনতা আপনার নিজের উপর নির্ভর করছে। বিশৃঙ্খলা কোন পরিবর্তন আনতে পারেন। যদি কেউ জীবিত না থাকে, আমরা কোথায় দাঁড়াবো?

আমি সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করেছি। সন্ত্রাসবাদ আপনার অধিকারের মর্যাদা দিতে পারে না। প্রতিটি মানুষ শিল্পী, এবং প্রত্যেক শিল্পী শান্তির পক্ষে দাঁড়িয়ে আছে। আমি শান্তি ও শ্রমের একটি দূত। আসুন, কাজ করি, স্বপ্ন দেখি, আসুন বিশাল আকাশ স্পর্শ করা যাক যা স্পষ্ট এবং পরিষ্কার! আমাদের বাচ্চারা শান্তিতে বেড়ে উঠুক, আসুন ভালোভাবে বাঁচি। মৃত্যুর পরে কোনও জীবন নেই।
ফেসবুকে তাঁর পোস্টের মাধ্যমে গায়ক খোলাখুলি উলফার নিন্দা করেছেন। জঙ্গি সংগঠনকে সন্ত্রাসবাদের সমন্ত কার্যক্রম বন্ধ করতে বলেন তিনি। জুবিন তাদেরকে শিক্ষা ও উন্নয়নের মাধ্যমে রাষ্ট্রের ভবিষ্যত গড়ার কথা বলেন। একইসঙ্গে জনগণের স্বপ্ন দেখতে আকৃষ্ট করার পরামর্শ দেন।

তিনি উলফাকে রাষ্ট্রের নিরীহ মানুষ হত্যা ও রক্তপাত বন্ধের পরামর্শ দিয়েছিলেন এবং প্রস্তাব দিয়েছিলেন যে তারা কাজিরাঙ্গার আসেপাশে হুমকি ধ্বংস করতে লড়াই করে। শান্তির বার্তাবহ হিসাবে তিনি উলফাকেও এমন জাতির কল্পনা করতে বলেছিলেন, যা মানুষের বসবাসযোগ্য।

উলফাকেও তিনি বলেন, প্রত্যেকেই শান্তি চায় এবং তারা কেবলমাত্র শিক্ষার মাধ্যমে পরিবর্তন আনতে পারে, তাদের সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের মাধ্যমে জনগণের মধ্যে ভয় সৃষ্টি করে পরিবর্তন আসতে পারে না।
উল্লেখ্য, গৌয়াহাটিতে গ্রেনেড বিস্ফোরণের ঘটনায় নগরীর পাঞ্জাবারী এলাকার একটি ভাড়াবাড়ি থেকে উলফার নেতা প্রাণময় রাজগুরু ও তার সহকর্মী, টিভির অভিনেতা জাহ্নবী সাইকিয়াকে ইতিমধ্যেই গ্রেফতার করেছে।

পুলিশ জানিয়ছে, বোমা বিশেষজ্ঞ প্রাক্তন উলফা বিদ্রোহী অমিতকে গোলাঘাট থেকে গ্রেফতার করা হয়। চিন্ময় ও ইন্দ্রকে যথাক্রমে গুয়াহাটি ও নওগাঁ থেকে আটক করা হয়। শহরের খ্রিস্টানবস্তি এলাকার বাসিন্দা চিন্ময় কয়েক মাস আগে উলফা (স্বাধীন) যোগদান করেন এবং ইন্দ্র দলটির লিঙ্কম্যান হিসাবে কাজ করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত