প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মুসলিম বিশ্বের পরিবর্তনকে বিবেচনায় এনে জামায়াতের নতুন প্রজন্মের নতুন চিন্তা করা উচিত, বললেন ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক

মারুফুল আলম : পৃথিবী পরিবর্তন হয়েছে। মুসলিম বিশ্বেও পরিবর্তন হচ্ছে। সেই পরিবর্তনকে বিবেচনায় এনে জামায়াতের নতুন প্রজন্মের নতুন চিন্তা করা উচিত বলে মনে করেন ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক। শনিবার বিবিসি বাংলাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, নতুন প্রজন্ম আলোকিত, তারা শিক্ষিত, তারা ওয়াকেবহাল। যথেষ্ট ফরওয়ার্ড লুকিং মানুষ জামায়াতে রয়েছে। আমি বিশ্বাস করি, জামায়াতের নতুন লোকজন যদি লিডারশিপে আসে, তাহলে পরিবর্তন সম্ভব।।

ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ৭১ সালের ভূমিকার জন্য ক্ষমা চাওয়া উচিত বিষয়টি নিয়ে দ্বিধা-দ্বন্দ্ব জামায়াতের মধ্যে ছিলো। কিছু লোক ক্ষমা চাওয়ার পক্ষে ছিলেন। আর কিছু ছিলেন না। কামরুজ্জামান সাহেবসহ অনেকেই ছিলেন পক্ষে। আমাদের আসলে ক্ষমা চাওয়ার সংস্কৃতিটা কম। তাছাড়া গণতান্ত্রিক দল হিসেবে শেষ পর্যন্ত সেখানে অধিকাংশের মতামতই প্রাধান্য পেয়েছে।

জামায়াতে ইসলামিকে বিলুপ্ত করে দেয়ার কথা বলেছেন কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রায় নয় বছর হয়ে গেলো, জামায়াত প্রকাশ্যে কোনো কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারে না, মিছিল মিটিং করতে পারে না, প্রেস কনফারেন্স করতে পারে না। সুতরাং জামায়াত এখন প্রায় মৃত। জামায়াতকে নিয়ে এই অবস্থায় অগ্রসর হওয়া সম্ভব নয়। এজন্যই আমি জামায়াতকে বিলুপ্ত করে দিতে বলেছি।

আমি ভেবেছিলাম যে, জামায়াতে ইসলামকে আমি কনভিন্স করতে পারবো। বোঝাতে পারবো যে, ৭১-এ জামায়াতের ভূমিকার জন্য তাদের ক্ষমা চাওয়া উচিত এবং দলে অভ্যন্তরীণ সংস্কার করা উচিত। আমি বিশ্বাস করি, এ দুটো জিনিস যদি আমি অ্যাচিভ করতে পারতাম, সেটি একটি ঐতিহাসিক অর্জন হতো জামায়াতের জন্য এবং সম্ভবত বাংলাদেশের জন্য। কারণ, স্বাধীনতার বিরোধিতা করে পৃথিবীর কোনো দল সে দেশের নেতৃত্ব দিতে পারেনি। আমি আমার প্রচেষ্টা চালিয়ে গেছি, কিন্তু ফাইনালি দেখতে পেলাম, ওই বিষয়ে কোন অগ্রগতি হবে না, তখনই আমি পদত্যাগ করলাম। আসলে জামায়াতকে রিফর্ম করার একটা চেষ্টা পূর্ব থেকেই আমার ছিলো। আমি সেক্ষেত্রে ব্যর্থ হয়েছি।

রাজনীতির বাইরে আপনি কী করবেন জানতে চাইলে ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমি দেশের নাগরিক, আমি দেশের জন্য কাজ করে যাবো। রাজনীতির বাইরেও দেশকে সমৃদ্ধ করার জন্য কাজ করা যায়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত