প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

  শেরপুরে উপজেলা নির্বাচনে তৃণমূলের  ভোটে  নকলায় জিন্নাহ ও নালীতাবাড়ীতে মোশারফ

শেরপুর প্রতিনিধি: আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আ’লীগের একক প্রার্থী বাছাইয়ে তৃণমূলের ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে শেরপুরের নকলা ও নালিতাবাড়ীতে। এতে চেয়ারম্যান পদে নকলায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম জিন্নাহ এবং নালিতবাড়ীতে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মোশারফ হোসেন একক প্রার্থী হিসেবে জয়ী হয়েছেন।
এদিকে দলীয় প্রার্থী নির্বাচনে নালিতাবাড়ী উপজেলায় তৃণমূলের এ ভোটকে কেন্দ্র করে প্রতিদ্বন্দ্বী দুই পক্ষের অর্তকিত হামলায় অন্তত তিন জন আহত হওয়ার সংবাদ জানা গেছে। আহতদের মধ্যে হাজী মোশারফের ভাতিজা রামচন্দ্রকুড়া-মন্ডালিয়াপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম খোকার ছেলে ইউসুফ আলী ও যোগানিয়া ইউনিয়নের গেরামারা গ্রামের ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য জিয়াউল হোসেনকে ময়ননসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
রূপনারায়ণকুড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান নালিতাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিয়েছেন।
দলীয় সূত্রে জানা যায়, সকাল ১০টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত নকলা ও নালিতাবাড়ী উপজেলা আ’লীগের প্রার্থী বাছাইয়ে তৃণমূলের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। বিকেল চারটার দিকে ফলাফল ঘোষণা করা হয়। ঘোষিত ফলাফলে নকলা উপজেলায় উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম জিন্নাহ চেয়ারম্যান পদে ৮৫ ভোট পেয়ে একক প্রার্থী ঘোষিত হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নকলা উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান শাহ মোহাম্মদ বোরহান উদ্দিন পেয়েছেন ৮০ ভোট।
এ ছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১২৫ ভোট পেয়ে মনোনয়নের জন্য নির্বাচিত হয়েছেন যুবলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম সোহেল। তার প্রতিদ্বন্দ্বী রশিদ সরকার পেয়েছেন ১০৫ ভোট। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ফরিদা ইয়াসমিন ১৭২ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান উম্মে কুলসুম রেনু পেয়েছেন ৪৪ ভোট। নকলায় স্থানীয় কল্পনা সিনেমা হলে এ ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।
এদিকে নালিতাবাড়ীতে চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী হিসেবে উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাজী মোশারফ হোসেন ১৫১ ভোট পেয়ে জয়ী হন। প্রতিদ্বন্দ্বী সাবেক উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মোকছেদুর রহমান লেবু ১২০ ভোট, সাবেক পৌর মেয়র ও উপজেলা আ’লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল হালিম উকিল ৭ ভোট এবং সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান ১ ভোট পান। ভাইস চেয়ারম্যান পদে শেখ ফরিদ ৯৭ ভোট এবং সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আশুরা বেগম ২১৪ ভোট পেয়ে নির্বাচনে একক প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য নির্বাচিত হন। উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৮ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারমান পদে ৩ জন প্রার্থী ছিলেন। নালিরতাবাড়ী কাচারীপাড়া রোডের দলীয় কার্যালয়ে এ ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয় এবং ২৮২ জন ভোটারের মধ্যে ২৮০ জন ভোট দেন।
নালিতাবাড়ীতে সকাল থেকেই বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে দলীয় ভোটাররা তাদের কর্মী সমর্থকদের নিয়ে দলীয় কার্যালয়ের ভোট কেন্দ্রে আসতে থাকে। এ সময় শহরের উত্তর বাজার এলাকায় চেয়ারম্যান মনোনয়ন প্রত্যাশী মোকসেদুর রহমান লেবু ও হাজী মোশারফ গ্রুপের সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। এতে ক্ষুরের আঘাতে জিয়াউল হোসেন আহত হন।
অপরদিকে প্রতিপক্ষ গ্রুপের হামলায় আহত হন রূপনারায়ণকুড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান এবং রামচন্দ্রকুড়া মন্ডলিয়া পাড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম খোকার ছেলে ইউসুফ আলী।
এ ব্যাপারে নির্বাচন কমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল বলেন, ভেতরে শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণ হয়েছে। বাইরে রাস্তায় কোনো ঘটনা ঘটেছে কিনা, সে সকল বিষয়ে কেউ আমাদেরকে জানায়নি।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত