প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বৃক্ষরোপণ একটি কল্যাণকর কাজ

মানুষ এবং পৃথিবীর জন্য কল্যাণকর কাজ গুলোর মধ্যে একটি হল বৃক্ষরোপণ। ইসলামে গাছ লাগানো খুব ভালো একটা কাজ। এব্যাপারে অনেকগুলো হাদিস আছে। আনাস বিন মালেক (রা) কর্তৃক বর্ণিত, নবী কারীম (সা) বলেছেন, ‘কিয়ামাত কায়েম হয়ে গেলেও তোমাদের কারো হাতে যদি কোন গাছের চারা থাকে এবং সে তা এর আগেই রোপন করতে সক্ষম হয়, তবে যেন তা রোপন করে ফেলে’। (আহমাদ/১২৯৮১, বুখারীর আদাব/৪৭৯, সহীহুল জামে’/১৪২৪)। জাবের বিন আব্দুল্লাহ (রা) কর্তৃক বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা) বলেছেন, ‘যে কোন মুসলিম যখন কোন গাছ লাগায় অতঃপর তা হতে যা (পাখী, মানুষ অথবা পশু দ্বারা তার ফল ইত্যাদি) খাওয়া হয়, তা তার জন্য সদকাহ স্বরুপ হয়।

যা চুরি যায়, তাও তার জন্য সদকাহ স্বরুপ হয় এবং যে কেউ তা (ব্যবহার) দ্বারা উপকৃত হয়, তাও তার জন্য কিয়ামাত অবধি সদকাহ স্বরুপ হয়’। (মুসলিম/৪০৫০; গায়াতুল মারাম/১৫৮)। আব্দুল্লাহ বিন হুবশী (রা) কর্তৃক বর্ণিত, রাসুল (সা) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি (খামোখা) কোন কুল গাছ কেটে ফেলবে (যে গাছের নিচে মুসাফির বা পশু-পক্ষী ছায়া গ্রহণ করত), সে ব্যক্তির মাথাকে আল্লাহ সোজা জাহান্নামে নিক্ষেপ করবেন’। (আবু দাউদ/৫২৪১)। উপরের হাদিস তিনটিতে একটু খেয়াল করুন।

প্রথম হাদিসে বলা হচ্ছে কিয়ামাতের সময়েও যদি কারো কাছে চারা গাছ থাকে সম্ভব হলে সে যেন তা রোপণ করে। আমরা সকলেই কম বেশি জানি কিয়ামাত কত ভয়ংকর সময়। কিন্তু গাছ লাগানোটা এত জরুরি যে সেই ভয়ংকর সময়তেও গাছ লাগাতে বলা হয়েছে। চোখ বন্ধ করে একটু ভাবলেই বুঝতে পারবেন গাছ লাগানোর মহাত্ম্য। দ্বিতীয় হাদিসে গাছ লাগানোর উপকারিতা বলা হয়েছে। কেউ একটা গাছ লাগালো, সেই গাছ যত মানুষ, পশু পাখী যে কোন ভাবে উপকৃত হল তার নেকি গাছ রোপণকারী ব্যক্তি পাবে। এমনকি মৃত্যুর পরেও সেই গাছ সে নেকি পেতে থাকবে। তৃতীয় হাদিসে, কুল গাছের মতো সাধারণ গাছ অকারণে কাটার শাস্তি হিসেবে জাহান্নামের কথা বলা হয়েছে। গতকাল সিংড়া বাজার কেন্দ্রীয় মসজিদ প্রাঙ্গণে গাছের চারা রোপন।

পরিচিতি: তথ্য যোগাযোগ ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী/সম্পাদনা : মোহাম্মদ আবদুল অদুদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত