প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নারায়ণগঞ্জে জনগণ ফুটপাত দিয়েই হাঁটবে : আইভী

হ্যাপী আক্তার : নারায়ণগঞ্জের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, আমার জনগণ ফুটপাত দিয়ে হাঁটবে। আমাদের সকলের নাগরিক অধিকার আছে। আমি যখন ট্যাক্স নেই, সকলের কাছ থেকে নেওয়া হয়। সিটি নির্ধারক হিসেবে আমি সকলের মেয়র। আওয়ামী লীগের কর্মী হিসেবে শেখ হাসিনার একজন ক্ষুদ্র কর্মী, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের কর্মী তার সাথে আলী আহম্মদ চুনকার মেয়ে, এটিই আমার পরিচয়।

মঙ্গলবার সকালে মেয়র আইভী ঢাকার ল্যাব এইড হাসপাতাল ছেড়ে যাওয়ার সময় কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, নারায়ণগঞ্জের সকল কিছু জনগণের। এই জনগণের জন্যই আজকে আমি বেঁচে আছি এবং আপনাদের সামনে দাঁড়িয়ে কথা বলতে পারছি। তারাই আমাকে বাঁচিয়ে রাখবে।

তিনি আরও বলেন, ‘আমার সঙ্গে কারও কোনও বিরোধ নেই। দেশসেবা করতে আমি নিউজিল্যান্ড থেকে চলে আসি। ২০০১ সালে আওয়ামী লীগের ভরাডুবির পর ২০০৩ সালে ক্যান্ডিডেট হয়ে আমি পাস করেছিলাম। আমি শেখ হাসিনার পরীক্ষিত সৈনিক। আমাকে বারবার পরীক্ষা দিতে হবে না। আমি আওয়ামী লীগের একজন নিবেদিত কর্মী। একজন মেয়র হিসেবে আমি নারায়ণগঞ্জের সকলের লিডার। আমি আমার শহরের লিডার। আই অ্যাম অ্যা ফাইটার, আই অ্যাম অ্যা লিডার। আমার ফুটপাত দিয়ে আওয়ামী লীগ হাঁটবে, বিএনপি হাঁটবে এবং আমার ফুটপাত দিয়ে জনগণ হাঁটবে। এটা সকলের অধিকার। আমি যখন ট্যাক্স নেই তখন সবার কাছ থেকে নেই। সিটি লিডার হিসেবে আমি সবার মেয়র।’

গত ১৬ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী এবং সাংসদ শামীম ওসমানের সমর্কদের মধ্যে ফুটপাতে হকারদের বসা নিয়ে সংঘর্ষ ঘটে। সংঘর্ষে ১৫ জন সাংবাদিকসহ শতাধিক আহত হন৷ মেয়র আইভীও আহত হয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা নেন৷ এরপর  তার অবস্থার অবনতি হলে ল্যাবএইডে তাকে ভর্ করা হয়।

এর আগে নারায়ণগঞ্জে সংবাদ সম্মেলনে আইভী বলেন, হকারদের ইস্যু করে আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যেই হামলা করা হয়েছে৷ আমার নিকট আত্মীয়, ভাই, ভাগ্নে ও ভগ্নিপতিসহ কাছের নেতাকর্মীদের মুখ দেখে দেখে হামলা করা হয়েছে৷ ইটবৃষ্টি ঝরানো হয়েছে৷ আমি এই ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেবো। মঙ্গলবার সকালে আইভিকে হত্যা চেষ্টায় এক মামলা দায়ের করেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের আইন অফিসার জিএমএ  সাত্তার।

একই দিন বিকেলে নারায়ণগঞ্জে আরেক সংবাদ সম্মেলনে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান দাবি করেন,শামীম ওসমান বনাম আইভী নয়, সংঘর্ষ হয়েছে আইভী ও হকারদের মধ্যে৷ আমাকে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ফোন করে সেখানে যেতে বলেছেন৷ আমি না গেলে সেখানে অনেকের অস্তিত্ব থাকত না৷ আমি যাওয়ার পর সেখানে কোনো ঘটনা ঘটেনি৷ একটা ইটও পড়েনি।

তিনি বলেন,প্রধানমন্ত্রী নিজে হকারদের আগে পুর্নবাসন করতে বলেছেন৷ তারপর উচ্ছেদ করতে বলেছেন৷ তাঁদের পুর্নবাসন না করে কেন উচ্ছেদ করা হচ্ছে।

তিনি আরো দাবি করেন,আইভীর ওপর কোনো হামলা হয়নি৷ আইভী বিএনপি’র লোকজনকে সঙ্গে নিয়ে হকারদের ওপর হামলা করে৷ শামীম ওসমান বলেন, আমি এখন গরীব মানুষের জন্য রাজনীতি করি৷ এবং মৃত্যুর আগ পর্যন্ত আমি তাঁদের জন্য রাজনীতি করে যাব।

অস্ত্রধারী সম্পর্কে তিনি বলেন, নিয়াজুল আমাদের লোক, সে যুবলীগের কর্মী৷ তার ওপর হামলা হওয়ার পরই সে পিস্তল বের করেছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত