প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

যশোরে ‘বন্দুকযুদ্ধ’ ৪ জন নিহত

যশোর প্রতিনিধি: যশোর সদর উপজেলার নোঙরপুর ও ঝিকরগাছার চাপাতলায় শনিবার পৃথক ‘বন্দুকযুদ্ধে’ চার জন নিহত হয়েছেন। তবে নিহতদের নাম পরিচয় জানা যায়নি।

যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) একেএম আজমল হুদা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

শনিবার যশোরের পুলিশ সুপার মো. আনিসুর রহমান বলেন, চার লাশের নাম-পরিচয় জানা যায়নি। লাশগুলো যশোর জেনারেল হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।

এর আগে ২০১৭ সালে যশোরের কেশবপুর উপজেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক ডাকাত নিহতের দাবি করেছিল পুলিশ। উপজেলার চাররাস্তার মোড়ে এ ঘটনা ঘটেছিল।

নিহত ব্যক্তির নাম ইউনুস হোসেন (৪০)। তাঁর বাড়ি সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলার মনিপুর গ্রামে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে অস্ত্র উদ্ধারের কথা জানিয়েছিল পুলিশ।

অপরদিকে,২০১৫ সালেও যশোরের মনিরামপুর উপজেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুইজন নিহত হয়েছিলেন।

আবু সাঈদ ও বজলুর রহমান নামে এ দুজনের বাড়ি মনিরামপুর উপজেলার জয়পুর গ্রামে।

মনিরামপুর থানার ওসি মোল্লা খবির উদ্দিন জানিয়েছিল, মামলার ভিত্তিতে জামায়াত কর্মী সাঈদ ও বজলুকে আটক করা হয়। তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী অস্ত্র উদ্ধারে রাত তিনটায় মনিরামপুর উপজেলার বেগারিতলায় গেলে তাদেরকে ছাড়িয়ে নিতে কয়েকজন দুর্বৃত্ত পুলিশের প্রতি গুলি ছোড়ে।

এ সময় পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। প্রায় এক ঘণ্টা ধরে এই যুদ্ধ চলে। ওই সময় তারা দুইজন গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয়। পরে তাদেরকে মনিরামপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাদেরকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় মনিরামপুর থানার এসআই তাসমিনসহ চারজন পুলিশ আহত হয়। তাদেরকে মনিরামপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ১২ টি পেট্রলবোমা, নয়টি হাতবোমা, একটি পিস্তল ও তার দুই রাউন্ড গুলি, একটি ওয়ানশুটার গান ও তার দুই রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেছিল।

এ দিকে জামায়াতের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল বন্দুকযুদ্ধে নিহতরা জামায়াতের সাথে জড়িত নয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত