শিরোনাম
◈ বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য ভিসা বন্ধ করল আরব আমিরাত ◈ বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সাথে সেনাবাহিনী প্রধানের সাক্ষাৎ ◈ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে নরওয়ের রাষ্ট্রদূতের বিদায়ী সাক্ষাত ◈ এ সংঘর্ষ কোনভাবেই কাম্য নয়, দোষীদের বিচারের দাবি করছি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী ◈ খেটে খাওয়া মানুষের পাশে দাঁড়াতে দলীয় নেতা-কর্মী ও বিত্তবানদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান ◈ ৬ দিন বন্ধের পর ফের চালু ইন্টারনেট ◈ বিএনপির অসংখ্য নেতাকর্মীর নাশকতার ঘটনায় সংশ্লিষ্টতার তথ্য মিলেছে: ডিবির হারুন ◈ চট্টগ্রাম এবং বরিশালে স্বল্প পরিসরে যাত্রীবাহী বাস চলাচল শুরু ◈ বুধবার থেকে খোলা থাকবে অফিস আদালত: জনপ্রশাসনমন্ত্রী  ◈ নরসিংদীতে জেল পালানো কয়েদি আত্মসমর্পণের জন্য জড়ো হয়েছেন প্রায় একশোর মত

প্রকাশিত : ১০ জুলাই, ২০২৪, ১২:৪৯ রাত
আপডেট : ১০ জুলাই, ২০২৪, ১২:৪৯ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ভারতীয় উপমহাদেশে হিন্দু-মুসলিম রাজনীতির অবসান হোক

তসলিমা নাসরিন

তসলিমা নাসরিন: কলকাতা পৌরসভার মেয়র ফিরহাদ হাকিমের একখানা ভাষণ দেখলাম ফেসবুকের ভিডিওতে। টুপি পরা মুসলিমদের একটি সভায়  তিনি বলছেন, যারা ইসলাম নিয়ে জন্মায়নি, তারা দুর্ভাগ্য নিয়ে জন্মেছে, যারা মুসলিম তারা জান্নাতে যাবে, কিন্তু যারা মুসলিম নয়, তাদের দুর্ভাগ্য তারা মুসলিম নয়, তাদের ইসলামের দাওয়াত দিতে হবে, তাদের ভেতর ঈমাণ আনাতে পারলে আল্লাহ খুশি হবেন, অর্থাৎ অমুসলিমদের ইসলামের দাওয়াত দিয়ে মুসলিম বানাতে হবে, মুসলিম হলেই তারা জান্নাতে যেতে পারবে, নচেৎ নয়। তাঁর ভাষণ শুনে মুসলিমরা বেজায় খুশি, আল্লাহু আকবর বলে চিৎকার করেছে। আল্লাহু আকবর বলে ফিরহাদ হাকিমও চেঁচিয়েছেন। জাকির নায়েকও তো এমন কথাই বলতেন। অমুসলিমদের তিনি ইসলামে কনভার্ট করার সব রকম উদ্যোগ নিতেন। 

ফিরহাদ হাকিম জোর গলায় বলেন তিনি সাম্প্রদায়িক নন, কারণ তিনি দুর্গা পূজা করেন, কালী পূজা করেন। তিনি ধুতি পরেন। তাহলে ধুতি পরে, টুপিটা না পরে তিনি কেন মুসলিমদের সভায় যান না, সেখানে গিয়ে কেন বলেন না তিনি দুর্গা পূজা করেন, কালী পূজা করেন? তা বললে তিনি মুসলিমদের হাততালি পাবেন না, সে কারণেই বলেন না? আর কী বললে হিন্দুদের হাততালি পাবেন, সেটাও ভাল জানেন। বোকা বানাচ্ছেন দুই সম্প্রদায়কে, নাকি দুই সম্প্রদায়কে  নাচাচ্ছেন। আমি কলকাতায় বাস করি না, কলকাতার খবর খুব একটা রাখা হয় না। ফিরহাদ হাকিম আসলে কেমন মানুষ তা আমি, সত্যি বলতে কী, জানি না।  তাঁকে দেখলে তো অসাম্প্রদায়িকই মনে হয়, কিন্তু মুসলিমদের সামনে তিনি যা বললেন তা তো কোনও ভাবেই অসাম্প্রদায়িক কারও ভাষণ হতে পারে না, যা বলেছেন  তা একমাত্র কট্টর সাম্প্রদায়িকরাই  বিশ্বাস করে এবং বলে। কট্টর সাম্প্রদায়িকরাই কিন্তু একসময় জিহাদিতে রূপান্তরিত হয়। 

পশ্চিমবঙ্গের মুসলিমদের মধ্যে যে সেক্যুলার মুসলিম নেই, তা নয়। আমি নিজেই পশ্চিমবঙ্গের মুসলিম পরিবারে জন্ম নেওয়া অনেক অসাম্প্রদায়িক, ধর্মনিরপেক্ষ,  প্রগতিশীল, আধুনিক মনস্ক, বিজ্ঞানমনস্ক, ধর্মমুক্ত, মুক্তচিন্তক, এমনকি নাস্তিকও দেখেছি। রাজনৈতিক দলগুলো চাইলে কি সেইসব সভ্য শিক্ষিত অসাম্প্রদায়িক মানুষকে দলে আমন্ত্রণ জানাতে পারে না? নিশ্চয়ই পারে। ভারতীয় উপমহাদেশে হিন্দু-মুসলিম রাজনীতির অবসান হোক। যার যা ধর্ম বিশ্বাস থাকুক, যার যা জেন্ডার থাকুক, কাস্ট থাকুক, যার যা বিত্ত থাকুক,  শ্রেণি থাকুক, সকলকে মানুষ হিসেবে ট্রিট করা হোক। 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়