শিরোনাম
◈ ভারতকে ৩-১ গোলে হারিয়ে সাফ ফুটবলের ফাইনালে বাংলাদেশ নারী দল ◈ রেস্টুরেন্ট বন্ধ করে সটকে পড়লেন কাচ্চি ভাইয়ের লোকজন, বেইলি রোডের নবাবী ভোজ সিলগালা ◈ জলবায়ু ও অবকাঠামোগত খাতে অর্থায়নে আগ্রহী এআইআইবি: অর্থমন্ত্রী  ◈ অনিবন্ধিত অনলাইন পোর্টালগুলো স্ট্রিমলাইন করাচ্ছি: তথ্য প্রতিমন্ত্রী ◈ বাল্যবিয়ে কন্যা শিশুর স্বপ্নগুলো ভেঙে দেয়: মানবাধিকার কমিশন  ◈ মোহাম্মদপুরে পুলিশের অভিযানে রেস্টুরেন্টের মালিক ও ম্যানেজারসহ ৩৫ জন আটক ◈ ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে মামলায় শ্রম আইনের অপপ্রয়োগের আশংকা রয়েছে: মার্কিন রাষ্ট্রদূত  ◈ ২৪ শতাংশ বাসেরই ফিটনেস নেই: টিআইবি ◈ সুলতানস ডাইন রেস্টুরেন্ট সিলগালা করলো রাজউক ◈ ব্রহ্মপুত্রের বালুতে হাজার হাজার কোটি টাকার খনিজ সম্পদের সন্ধান

প্রকাশিত : ২৭ জানুয়ারী, ২০২৩, ০৪:২৮ দুপুর
আপডেট : ২৭ জানুয়ারী, ২০২৩, ০৪:২৮ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

এক ভরি সোনা-এফজেড মোটরসাইকেল ফ্রি, তবু বিক্রি হয়নি কোটি টাকার খাট

কোটি টাকার খাট

সঞ্চয় বিশ্বাস: এবারের বাণিজ্যমেলায় দর্শনার্থীদের নজর কেরে ছিলো কোটি টাকা দামের একটি খাট। শুরু থেকেই খাটটি দর্শনার্থীদের নজর কাড়লেও মেলা প্রায় শেষ পর্যায় এসেও বিক্রি হয়নি এই ‘পরী পালং খাট’। বিক্রেতা কোটি টাকা দাম হাঁকলেও ক্রেতাদের দিক থেকে সর্বোচ্চ দাম উঠেছে সাড়ে ৫১ লাখ টাকা । ঢাকাপোস্ট

আজ (শুক্রবার) রাজধানীর অদূরে পূর্বাচলে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী এক্সিবিশন সেন্টারে (বিবিসিএফইসি) বাণিজ্য মেলায় খাটটির মালিক এসব তথ্য জানান।

খাটটির ডিজাইনার ও মালিক মো. নুরুন্নবী বলেন, রাজকীয় কারুকাজ ও পরীর ডিজাইনে খাটটি তৈরি করা হয়েছে। কোনোরকম মেশিনের ব্যবহার ছাড়াই সর্বোচ্চ নৈপুণ্য ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করা হয়েছে। খাটটির দাম এক কোটি টাকা চাইছি। যিনি খাটটি কিনবেন তাকে উপহার হিসেবে একটি ইয়ামাহার এফজেড মডেলের মোটরসাইকেল ও এক ভরি সোনার গহনা উপহার হিসেবে দেওয়া হবে। তবে এখন পর্যন্ত আশানুরূপ দাম পাইনি। সর্বোচ্চ দাম উঠেছে ৫১ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

মেলায় স্টলটির সামনে দাঁড়িয়ে দেখা যায়, স্টলের সামনে একটি ব্যারিকেড দেওয়া আছে। ব্যারিকেডের কাছাকাছি থেকে খাটটি দেখছেন দর্শনার্থীরা। খাটের চার কোণে দাঁড়িয়ে আছে পরীর আদলে চারটি মূর্তি। বিভিন্ন অংশে আরও ১২টি পরী রয়েছে। 

খাটটি সম্পর্কে নুরুন্নবী বলেন, ‘পরীর ডিজাইনে তৈরি করায় নাম দেওয়া হয়েছে পরী পালং খাট। এটি চট্টগ্রামের খাগড়াছড়ির গুইমারা উপজেলায় তৈরি। এতে মেশিনের ব্যবহার হয়নি, সম্পূর্ণ হাতে তৈরি করা হয়েছে। এর ডিজাইন কিংবা ক্যাটালগ বিশ্বের কোথাও নেই। সৃষ্টিশীল চিন্তাভাবনা থেকে শখের বশে খাটের ডিজাইন করেছেন আমার ভাই। তৈরি করেছেন স্থানীয় কারিগর আবু বক্কর সিদ্দিক। ২০১৭ সালে তিনি ও তার এক সহকারী মিলে কাজ শুরু করেন। তিন বছর দুই মাসে কাজ সম্পন্ন করেছেন তারা। কারিগরের মজুরিসহ প্রায় ৪০ লাখ টাকা খরচ হয়েছে। পাশাপাশি বাণিজ্য মেলায় স্টল নেওয়াসহ নানা খরচ মিলিয়ে ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ৫০ লাখ টাকা।

তিনি বলেন, খাটের চার কোণে বড় চারটি পরীর হাতে চারটি প্রজাপতি রয়েছে। এর পাশে চারটি চাঁদ ও ছয়টি সূর্যের নকশা আছে। বিভিন্ন অংশে রাজকীয় কারুকাজ রয়েছে। পাটাতনগুলো ভাঁজ করে তুলে রাখার ব্যবস্থা আছে। চট্টগ্রামের সেগুন কাঠের ফাইবার দিয়ে এটি তৈরি। প্রায় ২০০ ঘনফুট কাঠ থেকে ৮৫ ঘনফুট কাঠের ফাইবার বের করে খাটটি তৈরি করা হয়েছে।

এসবি২/এএ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়