শিরোনাম
◈ শেষ বলের রোমাঞ্চে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের কাছে খুলনার হার ◈ ভারতে একদিনে ৩ যুদ্ধবিমান বিধ্বস্ত, পাইলট নিহত ◈ ৮৫ বছর পর বন্ধ হচ্ছে বিবিসি আরবি রেডিও সম্প্রচার ◈ ভারত গরু না দিলেই বরং আমরা কৃতজ্ঞ থাকব: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ বাংলাদেশকে নিয়ে প্রথম লক্ষ্য সেট করেছেন শেখ হাসিনা: আইনমন্ত্রী  ◈ বাংলাদেশিকে মারধর, কুয়েত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা গ্রেপ্তার ◈ অবিলম্বে পদত্যাগ করুন, পালাবার পথ পাবেন না: মির্জা ফখরুল ◈ শান্তিরক্ষা মিশনে যাচ্ছেন ৪৬০ পুলিশ কর্মকর্তা ◈ নিউ ইয়র্কে ২৮ মিনিট ধরে কৃষ্ণাঙ্গকে পিটিয়ে হত্যা, ভিডিও ভাইরাল ◈ বিএনপির সঙ্গে আমরা খেলে জিততে চাই: তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত : ২৫ জানুয়ারী, ২০২৩, ০৫:২২ বিকাল
আপডেট : ২৫ জানুয়ারী, ২০২৩, ০৫:৪১ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ভালই চলছে রাজধানীতে ৫০টির অধিক গণশৌচাগার 

গণশৌচাগার 

শাহীন খন্দকার: রাজধানীতে ওয়াটার এইড এবং ভুমিজ এর তত্বাবধানে রাজধানীতে ৫০টির অধিক পরিচ্ছন্ন গণশৌচাগার পরিচালিত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানের মার্কেটিং কর্মকর্তা মুন্না হক। তিনি বলেন, এসব শৌচাগারে টাকার বিনিময়ে সেবা দেওয়া হচ্ছে। সরেজমিনে ঢাকার গণশৌচাগারগুলোয় দেখা যায়, সেখানে নেই কোনও হ্যান্ডওয়াশ, সাবান বা টিস্যুর ব্যবস্থা। তবে স্যানিটাইজেশনের শৌচাগারগুলো বেশ পরিস্কার পরিচ্ছন্ন।

ঢাকার গুলিস্থান পোস্ট আফিস এলাকা, শাহবাগ, রমনাএলাসহ তেজগাঁও ভূমি জরিপ এলাকায় রয়েছে গণশৌচাগার। এসব গণশৌচাগারে গোসলের জন্য ১০ টাকা বাথরোমের জন্য ৫ টাকা আর একগ্লাস পানির জন্য ১ টাকা করে  নিলেও কোনও ধরনের হ্যান্ডওয়াশ বা সাবান, টিস্যু দেওয়া হচ্ছে না। এতে হাত পরিষ্কার করতে পারছে না ব্যবহারকারীরা। ফলে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছেন তারা। 

এ নিয়ে ক্ষোভ ও অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন এসব টয়লেট ব্যবহার করতে আসা নগরবাসী। তেজগাওঁ ও গুলিস্থান ও শাহবাগে গণশৌচাগারে গিয়ে দেখা যায়, সেখানে নেই কোনও সাবান বা টিস্যুর ব্যবস্থা। তবে টাইলসকরা টয়লেটগুলো পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন।  সেখানকার দায়িত্ব¡রত কর্মচারী সেলিনা বেগম ও ইকবাল বলেন, টয়লেটের ভেতর বা বাইরে টিস্যু ঝুলিয়ে রাখলে অনেকে এটা নিয়ে চলে যায়। আবার অনেকে অযথা টিস্যু অপচয় করে। এ জন্য টিস্যু আমাদের কাছে রেখেছি। যার লাগে, সে আমাদের কাছ থেকে চেয়ে নিয়ে টয়লেট ব্যবহার করেন। আমরা পরিমাণমতো টিস্যু দিয়ে  থাকি।

এসব গণশৌচাগারে পৃথক পৃথক রয়েছে নারী ও পুরুষের জন্য গোসলের স্থানসহ বাথরোমের ব্যবস্থা। তবে হাইকমোড রয়েছে একটি করে , যা সবার জন্য উন্মুক্ত নয়। অনেক সময় গাড়ী থামিয়ে যে সব সাহেব বা বেগম সাহেবা আসেন তাদের খুলে দেওয়া হয়। কারণ এখানে কিছু মহিলা আসে, তারা হাইকমোড নোংরা করে রেখে যায়। এ জন্য ওই টয়লেট বন্ধ করে রেখেছি।

পথচারি  রহিমা নামের একজন বলেন, মহিলাদের জন্য পাবলিক টয়লেটগুলোতে ন্যাপকিনের ব্যবস্থা রাখা উচিত। হঠাৎ অনেকেই অসুস্থ হয়ে নিকটস্থ পাবলিক টয়লেটে যাওয়া লাগে। তখন যদি টয়লেটগুলোয় মহিলাদের জন্য কোনও স্পেশাল সুযোগ-সুবিধা থাকে, তাহলে ভালো হয়। 

ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউট ও সোহরাওয়ার্দীর সামনে শৌচাগারের তত্বাবধায়ক রহমান বলেন, পরিষ্কার করি নিয়মিত,তবুও ময়লা হয়ে যায়। গণশৌচাগারে  গোসল করতে আসা রিকশা চালক কাদের মোল্লা বলেন, এই পাবলিক টয়লেটের অবস্থা ভালো বলেই নিয়মিত এখানে আমার মতো পথশিশু ও মহিলারা গোসলসহ প্রকৃতির কাজ সম্পন্ন করে। মহিলাদের টয়লেটও পরিষ্কার ঝকঝকে। 

এই গণশৌচাগারে দায়িত্বরত রহমান বলেন, এখানে সব সময় মানুষ থাকে। ভেতরে আজ বুধবার টয়লেট টিস্যু শেষ হয়ে গেছে। তা ছাড়া যাদের দরকার, তারা আমাদের কাছ থেকে চেয়ে নেন।  

এক প্রশ্নের জবাবে ওয়াটার এইড এবং ভুমিজ এর মার্কেটিং কর্মকর্তা মুন্না হক বলেন, প্রতিদিন এসব গণশৌচাগার থেকে প্রতিষ্ঠানের আয় হচ্ছে একহাজার থেকে ১৫শত টাকা। প্রতিটি শৌচাগারে সুইপার দুজন, কর্মচারী রয়েছে একজন। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দুই সিটি কর্পোরেশনে সর্বমোট ৫০টির অধিক শৌচাগার নির্মাণ কাজ ওয়াটার এইড এবং ভুমিজ ও সিটি কর্পোরেশনের সার্বিক সহযোগিতায় পরিচালিত হচ্ছে। সম্পাদনা: খালিদ আহমেদ

এসকেএইচ/ এসএ 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়