প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

তানিয়া কামরুন নাহার: রেহানা মরিয়ম নূর ও আমাদের বন্দিত্বের অনুভ‚তি

তানিয়া কামরুন নাহার
সিনেমা বা নাটকে ইসলামিক বেশভুষার চরিত্রগুলো সাধারণত খুব নেতিবাচক হিসেবে দেখানো হয়। হলিউডের সিনেমা তো বটেই বাংলাদেশের সিনেমাগুলোতেও এরকম চরিত্রগুলো শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত খল রয়ে যায়। ব্যতিক্রম হিসেবে হুমায়ূন আহমেদের কথা বলা যেতে পারে। তাঁর নাটক বা সিনেমার চরিত্রগুলোতে সব সময়ই একটা ভারসাম্য থাকে। ফলে সাধারণ একটি চরিত্র নামাজ পড়ছে, আমাদের প্রতিদিনের বাস্তব একটি চিত্র খুব সাধারণভাবেই তাঁর নাটক সিনেমায় উঠে আসে। এর বাইরে অন্য সিনেমা বা নাটকে কোনো চরিত্রের নামাজ পড়া বা কোরআন তেলাওয়াত করা দেখাই যায় না বলতে গেলে। যেন আমাদের জীবনের বাইরে গিয়ে অন্য কোনো জীবন চিত্রায়িত হচ্ছে। রেহানা মরিয়ম নূর’র সার্থকতা এই যে, আমাদের জীবনের খুব সাধারণ যাপন, যার মধ্যে নামাজ পড়াও একটি অংশ, সেটিও বেশ উঠে এসেছে। তাই সাধারণ দর্শক রেহানাকে তাদের চেনা চরিত্র হিসেবে সহজে গ্রহণ করতে পারে। কিন্তু এই রেহানাই যদি আর দশটা গতানুগতিক সিনেমার প্রতিবাদী চরিত্র হিসেবে খুব আধুনিক পোশাকের কেউ হতো, দর্শকের মনে অত বেশি নাড়া দিতে পারতো না। এ রকমটা তো সব সময় হয়েই থাকে। পরিচালক সাদ ঠিক এ জায়গাটিতেই একটা নীরব বিপ্লব ঘটিয়ে দিয়েছেন, খুব আলতোভাবে, কেউ কিছু টের পাওয়ার আগেই।

সিনেমার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত বন্দিত্বের একটি অনুভ‚তি ঘুরেফিরে আসছে। সিনেমার শুরুতেই রেহানার রুম কীভাবে যেন লক হয়ে যায়। সিনেমা যতো এগোতে থাকে, রেহানার সঙ্গে সঙ্গে দর্শকরাও বন্দী হয়ে যেতে থাকেন একটা প্রচÐ ব্যস্ত জীবনের চাপে, সাংসারিক দায়িত্বের মাঝে, নিজের একাকীত্বের সঙ্গে। সেই সঙ্গে নিজের বিবেক আর ন্যায়নীতিবোধ বন্দী হয়ে যাচ্ছে রক্ষণশীল সমাজ ব্যবস্থা, প্রশাসনিক জটিলতা, আন্দোলনের নামে নৈরাজ্য সৃষ্টির সংস্কৃতিতে। রেহানা নিজেই যেখানে বন্দী, সেখান থেকে নিজের সন্তানকে কীভাবে সে মুক্তি দেবে? তাই নিজের বন্দিত্বটুকুও একসময় সন্তানের ওপর চাপিয়ে দেয় সে। পরিচালক এভাবে দর্শকের হৃদয় ও মস্তিষ্কে একের পর এক আঘাত করতে থাকেন। সিনেমায় আরেকটি লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে চরিত্রের পোশাক। রেহানার সাধারণ পোশাক, হিজাব বোরকা এগুলোকে সাধারণত প্রগতিশীলতার বাইরে ধরা হয়। কিন্তু পোশাক দিয়ে প্রগতিশীলতা মাপা সম্ভব নয়। যৌন নিগ্রহের শিকার মেয়েটিকে দেখতে শুনতে, পোশাকে, চুলের কাটে যথেষ্ট আধুনিকা ও প্রগতিশীল মনে হলেও আদৌ কি সে তা ছিলো? ভেতরে ভেতরে পুরোনো রক্ষণশীলতার সেই সিন্দাবাদের ভ‚ত পুরোদমে সেই তার ঘাড়ে করে বহন করে চলেছে। পরীক্ষার হলে তাকে বাইরে থেকে দেখে অন্যায়ের প্রতিবাদকারী ও সাহসী মনে হলেও সত্যিই যখন চরম একটি অন্যায় তার সঙ্গে ঘটে গেলো, সে একেবারে নিষ্ক্রিয় হয়ে রইলো। এমনকি সে এতোটাই ভীতু যে একটি অন্যায় সিদ্ধান্তের পক্ষেও জেনেশুনে সে মত দিলো। অন্যদিকে রেহানা ওড়না মাথায় দিয়েও প্রথম থেকেই ওই অন্যায়ের প্রতিবাদ করার সাহসিকতা দেখিয়েছে। যদিও তার প্রতিবাদের ধরনে বুদ্ধিমত্তার অভাব ছিলো, কখনো কৌশলগত দুর্বলতাও ছিলো। তাই নষ্ট সিস্টেমের বেড়াজালে সে আটকে পড়লো একেবারে ভারতীয় সিরিয়ালের ন্যাকাবোকা নায়িকা চরিত্রের মতো। একটি অন্যায়ের প্রতিবাদ বা বিচার চাওয়ার সময়েও কখনো কখনো কৌশলের আশ্রয় নিতে হয়। কোনো রকম প্রমাণ ছাড়াই শুধু মাথা গরম করে একটা কাজে নেমে পড়লেই হয় না আসলে, বিশেষ করে যখন ভিকটিম নিজেই বেঁকে বসে। অতিরিক্ত রাগে ফোঁস ফোঁস করার কারণেই হয়তো রেহানার অনেক সময় মাথায় বুদ্ধি ঠিকমতো খেলেনি। তাই এমন বিশ্রীভাবে ফেঁসে গেলো। সিনেমাতে পরিচালক রেহানাকে দিয়ে অ্যানি চরিত্রটিকে চপেটাঘাত করেননি, করেছেন আসলে দর্শকদের। ছাত্রদের সব আন্দোলনই যে সব সময় নৈতিক কারণে হয় না, এটিই দেখাতে চেয়েছেন। বিশেষ করে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে পড়ার মান কেমন তা নিয়ে কথা না বলাই ভালো। স্রেফ সার্টিফিকেট কেনাবেচার চক্করে পড়ে নীতিবান শিক্ষকরা সেখানে এক প্রকার অসহায়। শিক্ষকদের সেই অসহায়ত্বটাও কিছুটা ধরা পড়লো এ সিনেমায়।
রেহানা মরিময় নূর সিনেমার বিরক্তিকর দিক হচ্ছে নীল স্ক্রিন। দিন বা রাত কিছুই বোঝা যায় না। এছাড়াও রেহানার অতিরিক্ত রাগ, ফোঁস ফোঁস আওয়াজ, পানির অপচয়, যখন তখন ফোনের রিং বেজে ওঠা বিরক্তির কারণ ঘটায়। অবশ্য বাস্তব জীবনেরই অংশ এসব। রেহানার প্যারেন্টিং নিয়ে একটু সমালোচনার সুযোগ রয়েছে। অবশ্য প্যারেন্টিং খুব কঠিন কাজ তার ওপর সিঙ্গেল প্যারেন্ট হিসেবে কাজটা আরও কঠিন হয়ে পড়ে। যেখানে তিনি শুধু প্যারেন্টিংই করছেন না, চাকরি করছেন, সংসার সামলাচ্ছেন, আর্থিক দিকগুলোও তারই দায়িত্বে রয়েছে, নিজের আনন্দ বা দুঃখ কিছুই অন্যের সঙ্গে শেয়ার করতে পারছেন না।

এতো মানসিক টানাপোড়েনের মাঝে সিঙ্গেল প্যারেন্টদের জীবন আসলেই অনেক বেশি স্ট্রাগলের। এতো স্ট্রাগল, এতো চাপের মধ্যে সন্তানের সব কথা হয়তো খেয়াল করে শোনাও হয় না। তাই রেহানাও খেয়াল করেনি, তার সন্তান স্কুলে বুলিয়িংয়ের শিকার হচ্ছে। স্কুলের প্যারেন্ট মিটিংগুলোতেও নিয়মিত উপস্থিত থাকতে পারেনি। তবুও বুলিয়িংয়ের শিকার সন্তানকে সে জড়িয়ে মানসিক সমর্থন দেয়, যা সিনেমার একটি আবেগময় মুহূর্ত। ওই সময়ে অভিনেত্রী আজমেরী হক বাঁধনের এক ঝলক চাহনি সত্যি অসাধারণ ছিলো। তবে পরিচালক এখানে একটি ভুল বার্তা দিয়ে ফেলছেন। বুলিয়িংয়ের প্রতিবাদে আরেকটি বুলিয়িং সমর্থন করেছেন। সিনেমায় রেহানার সন্তানটি যদি মেয়ে না হয়ে ছেলে হতো, তাহলে এরকম বুলিয়িং দর্শকরা কীভাবে নিতেন? অনেকেই হয়তো জানেন না, বুলিয়িংয়ের শিকার শিশুরা পরবর্তী সময়ে প্রতিশোধপরায়ণ ও আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠে এবং আমরা দেখেছি ইমু চরিত্রটি তার মায়ের হাত কামড়ে দিয়েছে, মুখে আঁচড় কাটছে। অথচ রেহানা এই জায়গাটিতে অতটা নির্দয় না হয়ে সন্তানকে সহজভাবে বুঝিয়ে বলতেও পারতেন, বুলিয়িংয়ের জবাবে বুলিয়িং না করে কীভাবে স্কুলের বন্ধুদের সঙ্গে মিলেমিশে থাকা যায়, বন্ধুত্ব করা যায় এই ব্যাপারটি। এটি নিয়ে স্কুলের শিক্ষকদের সহযোগিতাও চাইতে পারতেন। কিন্তু সেটা রেহানা কখনোই করেনি। উল্টো প্রশ্ন তুলেছে, স্কুলের শিক্ষককে জানালেই বা কী করতেন? অথচ রেহানা নিজেও শিক্ষক। একটি চরিত্রের মধ্যে এতো স্বয়ংসম্পূর্ণতা আশা করাও ঠিক নয়, যেখানে আমরা নিজেরাও ত্রæটিযুক্ত। সিনেমার শেষ দৃশ্য দর্শককে একদমই স্বস্তি দেয় না। যে সমাজ ও রাষ্ট্র ব্যবস্থার মধ্যে আমরা সবাই রেহানার মতো বন্দী হয়ে পড়েছি, সেখান থেকে ইমু অর্থাৎ নতুন প্রজন্মকে মুক্ত করে আনার একটি তাড়না দর্শককে অস্বস্তি দেয়, কাঁদায়। সূত্র : ফ্যামিনিস্ট ফেক্টর

 

সর্বাধিক পঠিত