প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সাভারের বনগাঁ ইউনিয়ণের তরুণরা নিজেদের ভাগ্যের চাকা নিজেরাই ঘুরিয়ে দিয়েছেন: কৃষক রুকুনুজ্জামান খান

শাহীন খন্দকার: [২] সাভার উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ণে পুরোদমে চলছে শীতের আগাম সবজি তোলা এবং নতুন করে চাষাবাদের কার্যক্রম। তরুণ কৃষক রুকুনুজ্জামান আরও বলেন, গত বছরের তুলনায় এবছর সবজির দামও পাচ্ছে ভালো।

[৩] সরেজমিনে বনগাঁও ইউনিয়ণের বেড়াইদ গ্রামে তিন শিক্ষিত বেকার তরুণ সবজি চাষ করে ঘুরে দাঁড়াতে মাঠে ব্যস্ত সময় পার করছেন। সাভার কলেজ থেকে ইন্টারপাশ করে কোন চাকুরি না পেয়ে রুকুনুজ্জামান খান, রবিউল আলমসহ শিপন পিতার সাথে সবজি চাষ করে ভাগ্যের চাকা ঘুরিয়েছেন।

[৪] তিনি আরও বলেন, শুধু তাই নয় লেখাপড়া শিখে চাকুরীর জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরে ফিরেছি। চাকুরী না পেয়ে পৈত্রিক সম্পত্তিতে বন্ধুরা মিলে ট্রাক্টর ক্রয় করে আজ সবজি চাষ করে দেশের অর্থনৈতিক চাকাও ঘুরাচ্ছি আমরা! শুধু তাই নয় বিষমুক্ত সবজি মানুষের হাতে তুলে দিচ্ছি।

[৫] সোমবার ভোরে রুকুনুজ্জামানের সাথে পালংশাক ক্ষেতে কথা হলে তিনি আরও বলেন, বেশ ভালোই আছি। প্রতিবছর সবজি চাষাবাদের খরচ-বাদ দিয়ে বছরে আয় তার সাত লাখ টাকা! এবার তিনি আরও বেশি আশা করছেন, কারণ আবহাওয়া অনূকুলে থাকায়। চলতি বছর ৩ বিঘা জমিতে সবজি চাষ করলেও আগামীতে বেড়াইদ লেকসিটির পতিত জমিতেও কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে জমির পরিমাণ বাড়ানোর ইচ্ছে প্রকাশ করেন।

[৬] সাভার জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, শীতের সবজির বাজার ধরাই তাদের টার্গেট। ক্ষতি কাটিয়ে রক্ষা পাওয়ায় ৮০ শতাংশ আগাম সবজি বাজারে আশা শুরু করেছে। সাভার উপজেলার ৫০০ হেক্টর জমিতে এ বছর সবজি চাষ হয়েছে।

[৭] ভোরের আলো উঁকি দেওয়ার আগেই পাইকারি বাজারে ভিড় করে নানা শ্রেণীর ক্রেতারা। সকাল থেকেই এখানে চলে সবজির বেচাকেনা। বিভিন্ন উপজেলা থেকে আসা শীতকালীন সবজিতে সয়লাব আমিনবাজার ও সাভারবাজার। একাধিক ক্রেতা জানান, এই বাজার থেকে তারা ফুলকপি, পালংশাক, লালশাক ,মূলা, বেগুন, লাউস্হ লাউ শাক,ঝিংগা, পুইঁশাক, চিচিংগা, ধুমরা এবং ডাটা সবজি কিনে থাকে। কয়েক দিন আগেও সবজির দাম আকাশ ছোঁয়া হলেও এখন কমতে শুরু করেছে সবজির দাম।

[৮] সবজির দাম কমার পেছনে কারণ জানতে চাইলে বিক্রেতারা জানান, এখন মধ্যস্বত্বভোগীদের আনাগোনা কমে এসেছে। প্রান্তিক চাষিরা নিজে এসে সবজি বিক্রি করায় তারাও ভালো দাম পাচ্ছে। আর এতে করে সবজির দামও হাতের নাগালে চলে এসেছে। পাইকারি কাঁচা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাবেক সভাপতি ইয়াসিন মিঞা বলেন, আগামী ১০-১৫ দিন পরে স্থানীয় চাষিরা সবজি নিয়ে বাজারে আসবে। তখন দাম আরও কমে যাবে। বর্তমানে পাইকারি বাজারে ফুলকপি ২০-৩০ টাকা, বরবটি ৩০-৩৫ টাকা, পাতাকপি ১৫ থেকে ২৫ টাকা, মূলা ১৫-২০টাকা, কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

[৯]এ বিষয়ে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উর্ধ্বতন কর্মকর্তা রফিকুল ইসালম জানান, অক্টোবরের শেষ ভাগে অতিবর্ষণে ৫০০ হেক্টর জমির শীতের সবজির মধ্যে ৩৫০ হেক্টর ক্ষতিগ্রস্ত হলেও এঅঞ্চলের কৃষকেরা পুনরায় চাষাবাদে ঘুরে দাড়িঁয়েছে। যারা উঁচুতে পালংশাক, লালশাক, লাউ, চাষ করেছেন তাদের উৎপাদন ভালো হচ্ছে।

সর্বাধিক পঠিত