প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ধামরাইয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় নৌকার কর্মী নিহতের অভিযোগ

মোঃআদনান হোসেন : [২] ঢাকার ধামরাইয়ে প্রতিপক্ষের লোকজনের হামলায় সম্পর্কে ফুপাতো ভাই ও কর্মী নিহত হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ। তবে নিজেদের দ্বন্দেই ওই যুবক মারা গেছেন বলে জানান প্রতিপক্ষের স্বতন্ত্র প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান মিজু। এদিকে একজন নিহতের কথা পুলিশ স্বীকার করলেও ঘটনাটি নির্বাচনী সহিংসতা কি না তা নিশ্চিত করতে পারছে না।

[৩] রোববার রাতে শিহানকে মারধর করে মারাত্মক জখম করে। গুরুতর অবস্থায় তাকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে পাঠানো হয়। সোমবার ভোরে সেখানেই তার মৃত্যু হয়।’ নিহত শিহান ধামরাইয়ের যাদবপুর ইউনিয়নের আমছিপুর গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের ছেলে।

[৪] ঢাকার ধামরাইয়ে প্রতিপক্ষের হামলায় কর্মী নিহতের অভিযোগ করেছেন যাদবপুর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল মজিদ। তবে পরে তিনি অভিযোগ প্রত্যাহারও করেছেন।

[৫] তিনি বলেন, ঘটনা আমার বাড়ি থেকে চার কিলোমিটার দূরে। নিহত শিহান আমার সম্পর্কে ফুপাতো ভাই ও কর্মী। গতকাল রাতে শিহাবকে মারধর করে মারাত্মক জখম করে প্রতিপক্ষ মিজু চেয়ারম্যানের ভাইসহ তার লোকজন। পরে গুরুতর অবস্থায় তাকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে পাঠানো হয়। আজ ভোরে সেখানেই তার মৃত্যু হয়। এখন আমি থানায় আসছি।’

[৬] অভিযোগ ওঠা যাদবপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও সাবেক উপজেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজু বলেন, ‘কারো সাথেতো আমাদের কিছু হয় নাই। গতকাল আমাদের গ্রামের দুইটা ছেলেকে মারধর কইরা হাত-পা ভাইঙ্গা দিছে শুনলাম। পরে হাসপাতালে একটা মারা গেছে। আরেকজন আহত যে আছে, সে না কি তিনজনের নাম বলছেও শুনলাম।’

[৭] কি কারণে মারধর করা হয়েছে সে বিষয়ে বলেন, ‘এতকিছুতো জানি না। তবে ওরা চুরিটুরি করতো শুনছি। নিজেগো মইদ্দে মারামারি।’

[৮] ধামরাই থানার পরিদর্শক (অপারেশনস) নির্মল কুমার দাস বলেন, এখনও কি হইছে ঘটনা জানা যায়নি। তবে হাসপাতালে একজন মারা গেছে। আরেকজন চিকিৎসাধীন। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

[৯] যাদবপুর সহিংসতার ঘটনায় এখনও কোনো মামলা হয়নি তদন্ত করে মামলা নেয়া হবে।

 

 

সর্বাধিক পঠিত