প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

তারকাদের বিচ্ছেদ : কে কত খোরপোশ পেয়েছেন !

বিনোদন ডেস্ক : সাম্প্রতিক সময়ে এই খোরপোশ বিটাউনের সবচেয়ে আলোচিত শব্দ। গত ২ অক্টোবর চার বছরের সংসার জীবনের ইতি টানেন দক্ষিণী সিনেমার জনপ্রিয় তারকা সামান্থা ও নাগা চৈতন্য। এক বিবৃতির মাধ্যমে বিচ্ছেদের কথা জানান তারা। সাত বছর প্রেমের পর ২০১৭ সালে বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিলেন সামান্থা-চৈতন্য। বিচ্ছেদের খবর প্রকাশ্যে আসার পর শুরু হয় নতুন আলোচনা। খোরপোশ হিসেবে কত টাকা পাচ্ছেন সামান্থা?

জানা যায়, এ বাবদ ২শ কোটি রূপি দিতে হবে চৈতন্যকে; কিন্তু টাকা নিতে রাজি হননি সামান্থা। তিনি বলেন, ‘কোনো প্রকার শর্ত ছাড়াই বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা। আমরা বন্ধুত্ব ও ভালোবাসার সম্পর্কে ছিলাম। সেই সম্পর্ককে টাকার বিনিময়ে বিক্রি করতে চাই না।’

যাদের বিচ্ছেদে পর খোরপোশ বাবদ দেওয়া অর্থ নিয়ে এখনো চলে আলোচনা।

হৃত্বিক রোশন-সুজান খান : ২০০০ সালের ‘কহো না পেয়ার হ্যায়’ সিনেমা দিয়ে বলিউডসহ পুরো এশিয়ায় ঝড় তোলেন হৃত্বিক রোশন। এর আগে থেকেই সুজান খানের সঙ্গে ভালো বন্ধুত্ব ছিল তার। ২০০০ সালে একে অপরকে বিয়ে করেন। দীর্ঘ ১৪ বছর সংসারের পর ২০১৪ সালে তাদের বিচ্ছেদ হয়। হৃত্বিক-সুজানের ডিভোর্স বিশ্বের সবচেয়ে দামি ডিভোর্সের তালিকায়ও স্থান পায়। সুজান খোরপোশের জন্য ৪০০ কোটি রুপি দাবি করেছিলেন। তাকে দেওয়া হয়েছিল ৩৮০ কোটি রুপি। হৃত্বিক-সুজানের আছে দুই ছেলেসন্তান।

সঞ্জয় কাপুর-কারিশমা কাপুর : ২০১৬ সালে ১১ বছরের দাম্পত্যের ইতি টানেন সঞ্জয় কাপুর ও কারিশমা কাপুর। বিচ্ছেদের সময় দুজনের মধ্যে ১৪ কোটি রুপির এক চুক্তি হয়। সে অনুযায়ী সঞ্জয় প্রতিমাসে কারিশমাকে ১০ লাখ রুপি করে দেন। এই অর্থ কারিশমা তার দুই সন্তানের জন্য খরচ করেন। এর বাইরে সঞ্জয়ের বাবার বাড়িও দেওয়া হয়েছিল কারিশমাকে।

আদিত্য চোপড়া-পায়েল খান্না : বলিউড তারকা রানি মুখার্জি নামজাদা চিত্রনির্মাতা ও প্রযোজক আদিত্য চোপড়ার দ্বিতীয় স্ত্রী। আদিত্যের প্রথম স্ত্রী ছিলেন পায়েল খান্না। ডিভোর্সের পর আদিত্য তাকে ৫০ কোটি রুপি দিয়েছিলেন। তাদের ডিভোর্স ভারতের সবচেয়ে দামি বিচ্ছেদের একটি।

আমির খান-রীনা দত্ত : পরিবারের বিরুদ্ধে গিয়ে ১৯৮৬ সালে রীনা দত্তকে বিয়ে করেছিলেন আমির খান। ২০০২ সালে তাদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়। জানা গেছে, রীনাকে খোরপোশ বাবদ এককালীন ৫০ কোটি রুপি দিয়েছিলেন আমির। ২০০৫ সালে মিস্টার পারফেকশনিস্ট বিয়ে করেছিলেন কিরন রাওকে। চলতি বছরের ৩ জুলাই দীর্ঘ ১৫ বছরের এই দাম্পত্য জীবনেরও ইতি টেনেছেন আমির। কিরন খোরপোশ বাবদ কত পেয়েছেন তা জানা যায়নি।

প্রভুদেবা: রামলতা : ২০১১ সালে প্রভুদেবা ও রামলতার বিচ্ছেদ হয়। খোরপোশ বাবদ প্রভুদেবা ২৫ কোটি রুপির সম্পত্তি দিয়েছিলেন সাবেক স্ত্রীকে।

আরবাজ খান: মালাইকা অরোরা : আরবাজ খান ও মালাইকা অরোরার বিচ্ছেদের খবর রীতিমতো ঝড় তুলেছিল বলিউডপাড়ায়। খোরপোশ বাবদ মালাইকাকে কত রুপি দিয়েছিলেন আরবাজ, তা জানা যায়নি। তবে মালাইকা সাবেক স্বামীর কাছে ১৫ কোটি রুপি দাবি করেছিলেন বলে খবর প্রকাশ হয়।

সঞ্জয় দত্ত-রিয়া পিল্লাই : রিয়া পিল্লাই সঞ্জয় দত্তের দ্বিতীয় স্ত্রী। রিয়াকে তিনি খুব ভালোবাসতেন। বিচ্ছেদের পরও অনেক দিন সাবেক স্ত্রীর সব খরচ বহন করতেন সঞ্জয়। তবে খোরপোশের জন্য রিয়াকে কত রুপি দিয়েছেন সঞ্জয়, তা নিয়ে কখনো কেউ কিছু বলেননি। তবে সংবাদমাধ্যম থেকে জানা যায়, সঞ্জয় ৫ কোটি রুপি এবং একটি দামি গাড়ি দিয়েছিলেন রিয়াকে।

সাইফ আলি খান-অমৃতা সিং : ২০০৪ সালে সাইফ আলি খান ও অমৃতা সিংয়ের বিচ্ছেদ হয়েছিল। বিয়ের মতোই সে বিচ্ছেদও ব্যাপক সাড়া ফেলে। বয়সে ১৩ বছরের বড় অমৃতার সঙ্গে সাইফ সংসার করেন ১৩ বছর। এর পর আলাদা হয়ে যান। অমৃতাকে খোরপোশ বাবদ ৫ কোটি রুপি দিয়েছিলেন সাইফ। ২০১২ সালে কারিনা কাপুরকে বিয়ে করেন তিনি।

ফারহান আখতার-অধুনা ভবানী : ফারহান আখতার ও অধুনা ভবানীর বিচ্ছেদের খবরে অনেকেই অবাক হয়েছিলেন। কারণ বিচ্ছেদের আগে দুজনের কারোরই নতুন কোনো প্রেমের খবর শোনা যায়নি। বিয়ের ১৬ বছর পর তারা আলাদা হয়ে যান। বিচ্ছেদের পর অধুনা মুম্বাইয়ের বাংলো নিজের অধীন রাখার দাবি করেছিলেন। এক হাজার বর্গফুটের এই বাংলো ছাড়াও ফারহান তার মেয়ের জন্য মাসে মাসে মোটা অঙ্কের টাকা দেন। জি নিউজ, টুডে নিউজ

সর্বাধিক পঠিত