প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খাজা নিজাম উদ্দিন: ‘শুয়োরের বাচ্চাদের আবার অর্থনীতি’! ‘তো বেতন কতো?’

খাজা নিজাম উদ্দিন: পরিচিত একজন একদিন বললো- জানিস, আমার ভাই রোডস অ্যান্ড হাইওয়েতে আছে। ৩ কোটি টাকা দিয়ে আমাদের গ্রামের বাড়িতে বাড়ি করছে। – আমি বললাম, আপনার ভাইয়ের বেতন কতো? গর্বে ভরা চেহারাটা মুহূর্তে ছাই হয়ে গেলো। – দোস্তো বলিস না, এই শালা ট্রাফিক পুলিশ, শালারা দুই টাকাও ঘুষ খায়। – দোস্তো, তোদের ফ্লাটে কত খরচ পড়েছে? – এই সব মিলে ৯৭ লাখ। -তোর বাবা তো ট্যাক্সে আছে, বেতন কতো? চেহারা আবারও ছাই। এক আত্মীয়ের বাসায় গেলাম। সারা জীবন সততার বুলি আউড়িয়েছেন।

মেয়ের জামাই চাকরি করেন সিটি কর্পোরেশনে। খুব গর্ব করে বলছেন, তার মেয়ে ঘরের ফার্নিচার ৪/৫ বছর পরেই পাল্টায়। মেয়ে খুব সৌখিন। ৮০ লাখ টাকায় ফ্লাট কিনে আরও ৫০ লাখ টাকা খরচ করছে ইন্টেরিয়র কাজে। – জিজ্ঞেস করলাম, ভাইজান, জামাইয়ের বেতন কতো? প্রশ্ন শুনে বেচারার মুখটা কালো হয়ে গেলো। অনেক দিন পর ছোটবেলার এক বন্ধুর সাথে দেখা। সরকারি চাকরি, কথায় কথায় অনেক কিছু বললো বাড়ি গাড়ি সবই করছে। দের/ দুই কোটি টাকা দিয়ে বাড়ি তৈরি করছে গ্রামে। ঢাকায় ফ্ল্যাট কিনছে আশি লাখ টাকা দিয়ে। – জিগ্যেস করলাম কোন পোস্ট? বেতন কতো? আর কোনো উত্তর নেই। পরে জানতে পারলাম অফিস সহকারী। কথা সত্যি এবং কী নিদারুণ সত্যি। মানুষ হয়তো আছে। কিন্তু সংখ্যাটা কম।

মেয়ের বিয়ে ঠিক হয়েছে। তা কোথায় হলো, ছেলে কী করে? যদি ঘুষের ডিপার্টমেন্টের হয়, দেখবেন মেয়ের বাবা-মা, ভাই-বোন আর মেয়ের চেহারা খুশিতে কেমন চকচক করে। অথচ এই যে অরাজকতা, এই যে ভেজাল জিনিস, এই যে উচ্চমূল্য, এই যে গলাকাটা সেবা, এই যে পেনশনের টাকা তুলতে ফাইলের পেছনে দৌঁড়াতে দৌঁড়াতে জুতার তলা ক্ষয় হয়ে যাওয়া, এই যে পরীক্ষায় ভালো করলেও চাকরি না হওয়া- এইসবের মূলে তো সেই দুর্নীতিবাজ শুয়োররা! বিখ্যাত এক অর্থনীতিবিদ বলেছিলেন, ‘শুয়োরের বাচ্চাদের অর্থনীতি’! এই শুয়োরের বাচ্চারা কারা? এই লেখা পড়ে যাদের চেহারায় চপেটাঘাত পড়বে, ছাই হয়ে যাবে, তারাই! ফেসবুক থেকে

 

সর্বাধিক পঠিত