প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কেঁচো সার বাণিজ্যিক ভাবে উৎপাদনে দুই শতাধিক কৃষক

আনোয়ার হোসেন আকাশ: [২] ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় বাণিজ্যিক ভাবে ২ শতাধিক কৃষক কেঁচো সার উৎপাদন করছেন। শাকসবজি ও ফলমূল চাষে রাসায়নিক সারের পরিবর্তে কেঁচো সার স্থানীয় বাজার ও আশপাশের জেলাগুলোতে প্রচুর চাহিদা থাকায় প্রান্তিক কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে কেঁচো সার উৎপাদনে। আর এই সার বিক্রয় করে লাভবান হচ্ছেন অনেক কৃষক তার সাথে বিষমুক্ত শাকসবজি ও ফলমূল পাচ্ছে মানুষ।

[৩] উপজেলা কৃষি বিভাগ জানায়, কেঁচোর বিষ্ঠা বা মল উৎকৃষ্ট জৈব সার। এর বৈজ্ঞানিক নাম ভার্মি কম্পোস্ট। এটি এলাকার কৃষকের কাছে কেঁচো সার হিসেবে পরিচিত।

[৪] বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় প্রথম বার ২০১৭ সালে ২০টি কংক্রিটের রিং বা চাকতির মধ্যে কেঁচো সার উৎপাদন শুরু করেন উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা তপন মাহামুদ। তার কাছ থেকে দেখে উৎসাহ পেয়ে এ পর্যন্ত উপজেলায় ২০০ জন কৃষক বাণিজ্যিক ভাবে এ সার চাষ করছেন। এছাড়াও প্রান্তিক অনেক চাষিও অল্প করে শুরু করেছেন কেঁচো সার চাষ।

[৫] ৩ বছর আগে বালিয়াডাঙ্গি দুওসুও ইউনিয়নের মহিষমারী গ্রামের হারুন উপজেলা কৃষি অফিস থেকে ১টি কংক্রিটের রিং ও ১ কেজি কেঁচো কিনে কেঁচো সার উৎপাদন শুরু করেছিলেন। বর্তমানে তিনি ৮০টি কংক্রিটের রিংয়ে কেঁচো সার উৎপাদন করছেন নিয়মিত। তিনি জানান, গত ৩ বছরে ৩০ টন কেঁচো সার বিক্রি করেছেন চার লক্ষ পঞ্চাশ হাজার টাকায়। এক কেজি কেঁচো বেড়ে এখন ২০ কেজি কেঁচোতে পরিণত হয়েছে।

[৬] জানা গেছে, শাকসবজির ফেলে দেওয়া অংশ, অর্ধপচা গোবর, কলাগাছ ও কচুরিপানা একসঙ্গে মিশিয়ে সেখানে কেঁচো ছেড়ে দেওয়া হয়। কেঁচো এসব ময়লা খেয়ে মল ত্যাগ করে পচিয়ে ফেলে ও বংশ বৃদ্ধি করে। এই ময়লা জৈব সার হিসেবে প্রতি কেজি ১৫-২০ টাকা দরে বিক্রি করা হয়। আর প্রতি কেজি কেঁচো ৩ হাজার টাকা দামে বেচাকেনা হচ্ছে।

[৭] কৃষি অফিসের প্রযুক্তিগত সহযোগিতায় নিজ উদ্যোগে স্থানীয় সাংবাদিক হারুন অর রশিদ এ বছর ১২০টি কংক্রিটের রিং স্থাপন করে কেঁচো সার উৎপাদন শুরু করেছেন। তিনি জানান, এক মাস পরেই এলাকায় শীতকালীন সবজি উৎপাদন শুরু হবে। সবজিতে কেঁচো সারের প্রচুর চাহিদা। ৩ টন সার স্টক রয়েছে। এক মাসের মধ্যে আরও ১ টন সার জমা হবে।

[৮] উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা তপন মাহামুদ জানান, কৃষকরা কেঁচো সার উৎপাদন করতে চাইলে আমাদের প্রযুক্তিগত সহায়তার পাশাপাশি প্রশিক্ষণ প্রদানের ব্যবস্থা রয়েছে। আমরা চেষ্টা করছি কৃষক নিজ উৎপাদিত সার ফসলে ব্যবহার করুক।

[৯] বালিয়াডাঙ্গি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুবোধ চন্দ্র রায় জানান, বিষমুক্ত সবজি উৎপাদনে কেঁচো সারের বিকল্প নেই। উপজেলাটিতে প্রচুর সবজি চাষ হয়। এই সার আলু, সবজি, আনারস ও মাল্টা চাষে খুবই উপকারী।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত