প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কল্লোল মোস্তফা: সমস্যার সমাধান না করে ব্যাটারি চালিত রিকশা বন্ধের সিদ্ধান্ত ভূল

কল্লোল মোস্তফা: ব্যাটারি রিকশার বডির ভারসাম্য বা ব্রেকের ঝুঁকি নিরসনের কথা না বলে একেবার রাস্তা থেকে তুলে দেয়ার পক্ষে যারা কথা বলেন তাদের এই ধরনের চরম ও নিষ্ঠুর মনোভাবের পেছনে আসলে কি ধরনের মানসিকতা কাজ করে? তাদের ব্যাক্তিগত দুর্ঘটনার অভিজ্ঞতা? ব্যাটারি রিকশার মাধ্যমে চালকদের কি পরিমাণ পরিশ্রম লাঘব হয়েছে তা উপলব্ধি করবার ব্যর্থতা? এমপ্যাথির অভাব? নাকি শ্রেণীগত অসুয়া যে “রিকশাওয়ালার বাচ্চারা” “আমাদের মূল্যবান” বিদ্যুৎ ব্যবহার করে এরকম আরাম করে নবাবের মতো রিকশা কেন চালাবে!

কোন প্রযুক্তির যদি ইনহেরেন্ট সমস্যা না থাকে এবং প্রযুক্তিটা যদি তার জন্য প্রয়োজনীয় হয় তাহলে মানুষ সেটার কোন সমস্যা থাকলে তার সমাধানের কথা বলে, পুরোপুরি নিষিদ্ধ করার কথা প্রথমেই বলে না। পুরোপুরি নিষিদ্ধের প্রশ্ন তখনই আসে যখন এটা প্রমাণিত হয় যে সমস্যাগুলো সমাধানের অযোগ্য।

ব্যাটারির মাধ্যমে মোটর ঘোরানোর মধ্যে কোন ইনহেরেন্ট বিপদ নাই, বরং সারা দুনিয়া সেদিকেই যাচ্ছে। গ্রাম কিংবা মফস্বলে ব্যাটারি রিকশার জনপ্রিয়তা দেখে সহজেই বোঝা যায় রিকশা চালক এবং যাত্রী উভয়ের কাজে লাগছে বলেই এটা দিন দিন জনপ্রিয় হচ্ছে। হ্যা, ব্রেক কিংবা বডির ব্যালেন্স কিংবা চালকের অদক্ষতা বা অসতর্কতার কারণে দুর্ঘটনা হচ্ছে কিন্তু তা ততটা ভীতি তৈরি করছেনা যে মানুষ ব্যবহার করা বন্ধ করে দেবে। বরং অনেক নিয়মিত ব্যবহারকারীর মধ্যে আকাঙ্খা আছে যে আধুনিক যন্ত্রপ্রকৌশল বিদ্যা কাজে লাগিয়ে এটার ডিজাইনটা যেন উন্নত করা হয়, নিরাপদ করা হয়।

আসলে আজকের দিনের বাস ট্রাক রেল কিংবা মোটর সাইকেলের যতটুকু নিরাপত্তা ম্যাকানিজম আছে সেটা তো একদিনে তৈরি হয়নি, নানান গবেষণা পরীক্ষা নিরিক্ষার মধ্যে দিয়ে এ জায়গায় পৌছেছে, তারপরেও তো এগুলোর কারণে অনেক দুর্ঘটনা ঘটে এবং বহু মানুষের প্রাণহানি হয়। কিন্তু এগুলো নিষিদ্ধের দাবী তো কেউ তোলেন না, তারা বরং এগুলোকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন নিয়মকানুন/রেগুলেশান তৈরি ও সঠিক ভাবে প্রয়োগ করার কথা বলেন। তাহলে ব্যাটারি রিকশার ক্ষেত্রেও কেন একই ভাবে এগুলোকে নিরাপদ করা, লাইসেন্সের আওতায় নিয়ে আসা, চালকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা, অর্থের বিনিময়ে নির্দিষ্ট স্থানে চার্জিং এর ব্যবস্থা করা ইত্যাদি দাবী না তুলে স্রেফ নিষিদ্ধ করার প্রশ্ন আসছে!

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত