প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সিরাজগঞ্জে মাদ্রাসা ছাত্রী ধর্ষণ থানায় মামলা

সোহাগ হাসান:[২] সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় ৮ম শ্রেণীর এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। রোববার রাতে শিক্ষার্থীর মা বাদী হয়ে উল্লাপাড়া মডেল থানায় ৫ জনকে আসামী করে এ মামলা দায়ের করেন।

[৩] অভিযুক্ত আসামীরা হলেন, উপজেলার বাঙ্গালা ইউনিয়নের গাড়াবাড়ি গ্রামের রেজাউল করিম খানের ছেলে ধর্ষক নাঈম খান (১৬), একই গ্রামের মোকবেল হোসেন খাঁনের ছেলে মো. রেজাউল করিম খান (৫০), রেজাউল করিম খার স্ত্রী মোছা. নাজমা খাতুন (৪৫), মৃত শুকুর মাহমুদ’র ছেলে মো. আলী আহম্মেদ খান ও মো. রেজাউল করিম খানের ছেলে মো. নাসির উদ্দিন (২৫)।

[৪] উল্লাপাড়া মডেল থানার উপ-পরিদর্শক ও মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা আলাল হোসেন বলেন, উল্লাপাড়া উপজেলার বাঙ্গালা ইউনিয়নের গাড়াবাড়ি গ্রামের বাসিন্দা ও মোড়দহ গাড়াবাড়ি দাখিল মাদ্রাসার ৮ম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে একই গ্রামের মো. রেজাইল করিম খানের ছেলে মোঃ নাঈম খান স্কুলে যাবার পথে উত্তাক্ত ও প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল।

[৫] গত ৯ জুন ওই কিশোরীর মা এবং বাবা তাদের আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার সুযোগে ধর্ষক নাঈম খান রাত ১১টার দিকে মেয়ের শয়ন ঘরে ঢুকে জোরপূর্বক ওই শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ করে। ধর্ষণ করে ঘর থেকে বের হয়ে যাবার সময় নাঈম খানকে ঝাপটে ধরলে ওই কিশোরী চিৎকার শুরু করে। তার চিৎকারে পাশের ঘর ও বাড়ির লোক জন এগিয়ে এসে নাঈমকে কিশোরীর ঘরের মধ্যেই আটক করে।

[৬] বিষয়টি জানাজানি হলে অন্যান্য আসামীগন ঘটনার সুষ্ঠ সমাধান দেওয়ার কথা বলে নাঈমকে রাতেই ছাড়িয়ে নিয়ে যায়। পরে সমাধান না পেয়ে ওই কিশোরীর মা উল্লাপাড়া মডেল থানায় বাদি হয়ে ৫ জনকে আসামী করে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করে। পুলিশ ওই কিশোরীকে ডাক্তারি পরিক্ষা সম্পূন্ন করে আসামি গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে।

[৭] উল্লাপাড়া সার্কেলের সহকারি পুলিশ সুপার মাহফুজ হোসেন জানান, শিক্ষার্থী ধর্ষণের মামলায় অভিযুক্ত আসামীদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে। দ্রুতই তাদের আইনের আওতায় আনা হবে বলে তিনি জানান।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত