শিরোনাম

প্রকাশিত : ১৮ জুন, ২০২১, ০১:১৭ রাত
আপডেট : ১৮ জুন, ২০২১, ১২:৫৬ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

আবু ত্ব-হার সঙ্গে নিখোঁজ তিনজনের পরিচয় মিলেছে

নিউজ ডেস্ক: ইসলামি বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের সঙ্গে নিখোঁজ হওয়া বাকি তিনজনের নাম ও পরিচয় জানা গেছে। গত আটদিন ধরে তাদেরও সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন সংস্থা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানসহ অন্যদের সন্ধানে মাঠে কাজ করছে। ঢাকা পোস্ট

এদিকে আদনানের পরিবার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক সূত্রে জানা গেছে, তরুণ ইসলামি বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের ইসলামি আলোচনায় মুগ্ধ হয়ে আব্দুল মুকিত, মোহাম্মদ ফিরোজ ও গাড়িচালক আমির উদ্দিন ফয়েজ তার ভক্ত হয়ে ওঠেন। আদনানের বিভিন্ন ইসলামিক অনুষ্ঠান ও মাহফিলে তারা থাকতেন। এই তিনজনের সঙ্গে আদনানের সখ্যতা ছিল।

সূত্র বলছে, আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের প্রকৃত নাম আফছানুল আদনান। বয়স ৩১। তার মা আজেদা বেগম। বাবা মৃত রফিকুল ইসলাম। ছোট বোন রিতিকা রুবাইয়াত ইসলাম। আদনানের প্রথম স্ত্রী আবিদা নুর, তাদের সংসারে তিন বছরের একটি মেয়ে ও দেড় বছর বয়সী একটি ছেলে-সন্তান রয়েছে।

বাবা মারা যাওয়ার পর রংপুর নগরীর সেন্ট্রাল রোডে নানার বাড়িতে বড় হন আদনান। বিয়ের পর স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে নগরীর নিউ শালবন এলাকায় বসবাস করেন। কয়েক মাস আগে আদনান আরেকটি বিয়ে করেন। তার দ্বিতীয় স্ত্রী সাবিকুন্নাহার সারা ঢাকার মিরপুর আল ইদফান ইসলামী গার্লস মাদরাসার পরিচালক ও শিক্ষক।

আদনান প্রাতিষ্ঠানিক কোনো আরবি শিক্ষা গ্রহণ করেননি। তিনি কারমাইকেল কলেজ থেকে দর্শন বিভাগে অনার্স ও মাস্টার্স সম্পন্ন করেন। কোরআন শিক্ষার জন্য কিছুদিন স্থানীয় একটি মাদরাসায় তালিম নেন। এ সময় তিনি আহলে হাদিস নামে একটি সংগঠনের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। এছাড়াও লাইফ ফাউন্ডেশন, আলোর পথ এবং একাডেমিক কোরআন স্টাডিজ নামে সংগঠনে জড়িত রয়েছেন। ঢাকার মিরপুর আল ইদফান ইসলামী গার্লস মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতাও তিনি।

এছাড়াও আদনানের সঙ্গে নিখোঁজ হওয়া তিনজনের মধ্যে একজন বগুড়ার এবং বাকি দুইজন রংপুরের বাসিন্দা। তারা তিনজনই আদনানের ইসলামি আলোচনার ভীষণ ভক্ত ও অনুরাগী। এদের ২৮ বছর বয়সী মোহাম্মদ ফিরোজ আলম বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার সাফিয়ান পাড়ায় থাকেন। তার বাবার নাম আনিছুর রহমান। ঘটনার দিন ১০ জুন তিনি রংপুর থেকে প্রাইভেটকারে আদনানকে সঙ্গে নিয়ে বগুড়ার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। সেখানে একটি মাহফিলে আদনানের বয়ানের কথা ছিল। কিন্তু তা বন্ধ হওয়ায় পরে ঢাকার পথে যাত্রা করেন তারা।

নিখোঁজ আব্দুল মুকিতের বয়স ২৯। তিনি অবিবাহিত। গ্রামের বাড়ি রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার জায়গীরহাট এলাকায়। তার বাবা আনছারুল হক। আব্দুল মুকিত স্থানীয় শিশু নিকেতন স্কুলে শিক্ষকতা করেন। এর পাশাপাশি তিনি প্রাইভেট পড়াতেন। আদনানের মতো মুকিতও কারমাইকেল কলেজ থেকে মাস্টার্স সম্পন্ন করেছেন।

এছাড়াও নিখোঁজ গাড়িচালক আমির উদ্দিন ফয়েজ রংপুর নগরীর আশরতপুর চকবাজার এলাকার বাসিন্দা। তার স্ত্রী মোহতিন উসতেফা রাখা। তাদের সংসারে তিন বছরের একটি মেয়ে ও ২০দিন বয়সী একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। আমির উদ্দিন আগে ধান-চাল ও জ্বালানি তেলের ব্যবসা করতেন। করোনায় লোকসানের শিকার হয়ে তিনি ভাড়ায়চালিত প্রাইভেটকারের স্টিয়ারিং হাতে নেন। তিনি আদনানের অনুসারী হওয়ার পর পাঞ্জাবি-পাজামা পরিধান শুরু করেন এবং মুখে দাড়ি রাখেন।

নিখোঁজ আমির উদ্দিনকে ফিরে পেতে তার মা সুলতানা রাজিয়া রংপুরের কোতোয়ালি থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন। একই আকুতি জানিয়ে আদনানের মা আজেদা বেগমও কোতোয়ালি থানায় ডায়েরি করেছেন। এছাড়াও আদনানের দ্বিতীয় স্ত্রী সাবিকুন্নাহার সারা ঢাকার পল্লবী থানায় আদনানের সন্ধান দাবি করে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

রংপুর মহানগর পুলিশের উপ-কমিশনার (অপরাধ) আবু মারুফ হোসেন বলেন, চারজন নিখোঁজের বিষয়টিকে গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে। সব ধরনের কারণ ও সন্দেহ মাথায় রেখে তদন্ত কাজও অব্যাহত রয়েছে। তবে এখনই নির্দিষ্ট করে কিছু বলা যাচ্ছে না।

প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার (৮ জুন) রংপুর থেকে ঢাকায় ফেরার পথে তিন সঙ্গীসহ আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান নিখোঁজ হন। এখন পর্যন্ত তাদের কারোরই কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় নিখোঁজদের সন্ধান দাবি করে রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধন-সমাবেশ করা হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়