প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কমলনগরে মেঘনার পাড়ে ২ কিলোমিটার জুড়ে মানববন্ধন

জাহাঙ্গীর লিটন : [২] মেঘনা নদীর ভয়াবহ ভাঙ্গন থেকে লক্ষ্মীপুরের কমলনগর ও রামগতি উপজেলার ৭ লাখ মানুষের ভিটে-বাড়ি বাঁচাতে সরকার কর্তৃক গৃহিত নদী বাঁধ প্রকল্প একনেক মিটিংয়ে পাসের দাবীতে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী।

[৩] সোমবার বেলা ১১ টার দিকে কমলনগরের মেঘনা নদীর পাড়ে অনুষ্ঠিত মানবন্ধনে হাজার হাজার মানুষ অংশ নেয়।

[৪] নদী ভাঙ্গা সাধারণ মানুষের অরাজনৈতিক সংগঠন “কমলনগর-রামগতি বাঁচাও মঞ্চের” আয়োজনে মানববন্ধনে সঞ্চালনা করেন সংগঠনের আহবায়ক সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী আবদুস সাত্তার পালোয়ান।

[৫] মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, রামগতি উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মেজবাহ উদ্দিন ভিপি হেলাল, ফলকন ইউপি চেয়ারম্যান হাজী হারুনুর রশিদ, কমলনগর প্রেসক্লাব সেক্রেটারী ইউছুফ আলী মিঠু, সমাজসেবক সাজ্জাদুর রহমান, হাজিরহাট বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসাইন বিপ্লব, খলিল মেম্বার, ছাত্রলীগ নেতা রাকিব হোসেন লোটাস, আবদুল্লাহ আল রায়হান, সংগঠক ইমরান হোসেন শাকিল সহ বিশিষ্ট জনেরা বক্তব্য রাখেন।

[৬] বক্তারা বলেন, বিগত বছরের মেঘনার ভাঙনে রামগতি-কমলনগর প্রায় অর্ধেক নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ৩২ কিলোমিটার জুড়ে তীব্র ভাঙ্গনে ২ লাখ মানুষ নি:স্ব হয়েছে। আরো ৫ লাখ মানুষ নদী ভাঙ্গনে তাদের ভিটে-বাড়ি হারানোর হুমকির মুখে রয়েছে। নদী বাঁধের প্রকল্পটি এবারে একনেক মিটিং-এ পাশ না হলে বাংলাদেশের মানচিত্র থকে লক্ষ্মীপুর জেলার কমলনগর-রামগতি উপজেলা হারিয়ে যাবে। এসময় দ্রুত নদী বাঁধের প্রকল্পটি আগামী কাল মঙ্গলবারের একনেক মিটিং-এ পাসের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একান্ত দয়া প্রার্থনা করেন তারা।
মানববন্ধন শেষে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল অব: জাহিদ ফারুক এমপির সুস্থতা কামনা সহ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও এমপি মেজর অব: আবদুল মান্নানের জন্য বিশেষ দোয়া করা হয়।

[৭] এদিকে পাউবোর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, রামগতি-কমলনগর উপজেলার বড়খেরী, লুধুয়া বাজার ও কাদিরপন্ডিতের হাট এলাকা রক্ষা বাঁধ প্রকল্প নামে পানি উন্নয়ন বোর্ড একটি প্রকল্প প্রস্তাব করেছে। ২০২১ থেকে ২০২৫ সালের জুন পর্যন্ত প্রকল্পটির মেয়াদ বাস্তবায়নের নিমিত্তে একনেক সভায় উপস্থাপনের জন্য (পতাকা-ক) খসড়া প্রনয়ণ করা হয়েছে। খসড়ায় পরিকল্পনামন্ত্রীর সইয়ের মাধ্যমে একনেক সভায় উপস্থাপনের জন্য চূড়ান্ত করা হয়।

[৮] পানি উন্নয়ন বোর্ড ও স্থানীয় ভাবে জানা যায়, মেঘনা নদীর ভয়াবহ ভাঙ্গনের কারণে লক্ষ্মীপুরের কমলনগর ও রামগতি উপজেলার প্রায় ৪০ ভাগের বেশি এলাকা নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। এমন পরিস্থিতে ২০১৪ সালে একটি প্রকল্পের মাধ্যমে ১৯৮ কোটি টাকা বরাদ্দে রামগতিতে চার কিলোমিটার এবং কমলনগর উপজেলায় এক কিলোমিটার বাঁধ নিমার্ণ করা হয়। ২০১৭ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লক্ষ্মীপুরে এসে অন্যান্য প্রকল্পের সাথে ওই বাঁধগুলো উদ্ধোধন করেন। কিন্ত ওই দুই উপজেলার আরো প্রায় ৪৫ কিলোমিটার এলাকা এখনো অরক্ষিত। এমন অরক্ষিত এলাকার প্রায় ৩২ কিলোমিটার যায়গায় প্রতিনিয়ত ভাঙ্গন চলছে। গত চার বছর যাবত প্রতি জোয়ারে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করে।

[৯] লক্ষ্মীপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী ফারুক আহমেদ বলেন, মেঘনার তীর রক্ষা বাঁধের একটি প্রকল্প একনেকে অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। চূড়ান্ত বাস্তবায়ন ও বরাদ্দ ছাড় পেলেই তীর রক্ষা বাঁধ নির্মাণে কাজ শুরু হবে।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত