শিরোনাম
◈ বনশ্রীতে জুতার কারখানায় আগুন, নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের ৪ ইউনিট ◈ যড়যন্ত্র না থাকলে পদ্মা সেতুতে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়ন বন্ধ হলো কেন, প্রশ্ন হাইকোর্টের ◈ শিমুলিয়া ঘটে প্রায় ২০০ বাইক নিয়ে ছাড়লো ফেরি ◈ ‘সুপ্রিম কোর্টের ১২ বিচারপতি করোনায় আক্রান্ত’ ◈ প্রথম ১৫ ঘণ্টায় পদ্মা সেতুতে আয় দেড় কোটি টাকা ◈ বিশ্ব গণমাধ্যমে পদ্মা সেতু: জাতির গর্ব ও সামর্থ্যের প্রতীক  ◈ পদ্মা সেতুর জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়েছে এশিয়ার ৫ দেশ ◈ নাশকতাই ছিলো পটুয়াখালী ছাত্রদল কর্মী বাইজীদের উদ্দেশ্য: সিআইডি ◈ জাতিসংঘে র‌্যাপোটিয়ারের দাবি অর্থহীন: তথ্যমন্ত্রী ◈ খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে বাসভবনে দুই নাতনি

প্রকাশিত : ২৮ মে, ২০২১, ০৪:৪১ দুপুর
আপডেট : ২৮ মে, ২০২১, ০৪:৪২ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

[১] চট্টগ্রামে পোশাক শ্রমিককে দলবদ্ধধর্ষণ, গ্রেপ্তার ৩

রিয়াজুর রহমান : [২] নগরীর বায়েজিদ বোস্তামী থানার শেরশাহ এলাকায় একটি পরিত্যক্ত সরকারি কোয়াটারে নিয়ে এক পোশাক শ্রমিককে গণধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে।

[৩] শুক্রবার (২৮ মে) ভোরে অভিযুক্ত তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- সাইফুর রহমান সুমন (২৮), মেহেদী হাসান জনি (৩২) ও মো.আলম (২৫)।

[৪] ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন বায়েজিদ বোস্তামী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কামরুজ্জামান বলেন, ধর্ষণের শিকার ভুক্তভোগী নারী থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় অভিযান চালিয়ে ঘটনায় জড়িত তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়। ভুক্তভোগীকে চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস (ওসিসি) সেন্টারে ভর্তি করানো হয়েছে।

[৫] পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গতকাল (২৭ মে) রাত ৯টার দিকে ভুক্তভোগী পোশাক শ্রমিক তার সহকর্মী সালাউদ্দিন আহমদের সঙ্গে দেখা করতে শেরশাহ কলোনী সরকারী বিল্ডিংয়ের সামনে যান। এ সময় সাইফুর রহমান সুমন ও মেহেদী হাসান জনি নামে দুইজন তাদের আটকে রেখে মারধর করে। একপর্যায়ে দুইজনকেই হুমকি দিয়ে তাড়িয়ে দেয়।

[৬] পরে তারা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে একটু সামনে এগুলে কিছুক্ষণ পর সুমন ও জনি ভুক্তভোগী পোশাক শ্রমিককে মুখ চেপে ধরে পরিত্যক্ত একটি সরকারি কোয়াটারের নীচ তলায় নিয়ে গিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এসময় মো. আলম নামে একজন দরজার বাহিরে দাঁড়িয়ে পাহারা দেয়।

[৭] পরে বিষয়টিকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে ভুক্তভোগী নারী ও তার সহকর্মীকে একত্রে দাঁড় করিয়ে মোবাইলে ছবি তোলে এবং আরও মারধর করে ছেড়ে দেয়। সম্পাদনা: জেরিন আহমেদ

 

  • সর্বশেষ