প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

১৯৭১ এ ফিলিস্তিনের পত্রিকায় ‘বাংলাদেশ- এ সেকেন্ড প্যালেস্টাইন’

ডেস্ক রিপোর্ট: যুগ যুগ ধরে নির্যাতিত হয়ে আসা আজকের ফিলিস্তিনিরাই ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে অবস্থান নেয়। সে সময়কার ফিলিস্তিনি গণমাধ্যমগুলোও সরব ছিলো বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে। সম্প্রতি ১৯৭১ সালের একটি ফিলিস্তিনি সংবাদপত্রের একটি ছবির খোঁজ পাওয়া গেছে। তাতে দেখা যায়, বাংলাদেশের জন্যে ফিলিস্তিনিদের আকুতি। এমনকি বাংলাদেশকে তারা নিজেদের অবস্থার মত দেখছেন এমনটাই পাওয়া গেছে ওই সংবাদপত্রে।  অথচ দুর্ভাগ্য বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পরও স্বাধীন ভূখণ্ডের জন্য লড়তে হচ্ছে তাদের।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ইউরোপ থেকে বিতাড়িত হয়ে আরবে আশ্রয় নেওয়া ইসরায়েলই এক সময় ফিলিস্তিনের বিশাল অংশ জবরদখল করে ফিলিস্তিনিদেরই তাড়িয়ে দেয়। হত্যা, জুলুম, নির্যাতন চালায় নজিরবিহীনভাবে। হিটলারের গণহত্যার শিকার হওয়া জাতি নিজেই গণহত্যাকারীর রূপ নেয়।

তখন মজলুম ফিলিস্তিনিরা বুঝতে পেরেছিল, একটা স্বাধীন ভূখণ্ডের কী জরুরি প্রয়োজন। সেই তাড়না থেকেই বাংলাদেশের স্বাধীন অস্তিত্বের প্রতি সমর্থন জানায় তারা। পাকিস্তানি হানাদারদের চালানো গণহত্যাকে ইহুদি আগ্রাসনের সাথে তুলনা করে বলে, ‘বাংলাদেশ- এ সেকেন্ড প্যালেস্টাইন।’

পাকিস্তানিদের মুসলিম পরিচয় নয়, মজলুমের আর্তনাদই গুরুত্ব পেয়েছিল তখন। বাংলাদেশ স্বাধীন হলো, সেই স্বাধীনতাকে আরবের অনেকের আগে স্বীকৃতি দেয় ফিলিস্তিন। তখন বাংলাদেশকে স্বীকৃতি না দিতে পাকিস্তানের চাপ ছিল আরব দেশগুলোর ওপর, সেখানে তৎপর ছিল পাকিস্তানপন্থী স্বাধীনতা বিরোধীরাও।

এদিকে, সম্প্রতি পবিত্র রমজানে আল-আকসা মসজিদে নামাজ আদায়ের জন্য বেশ কয়েকদিন ধরেই আন্দোলন করে আসছিলেন সাধারণ ফিলিস্তিনিরা। গত রোববার (২৫ এপ্রিল) এ আন্দোলন আরও তীব্র হয়। বরাবরের মতো নির্বিচারে হামলা এবং গ্রেফতারের মাধ্যমে ফিলিস্তিনিদের কণ্ঠস্বর দমিয়ে রাখার চেষ্টা করে দখলদার ইসরাইলি বাহিনী।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত সোমবার থেকে শুরু হওয়া সহিসংতায় ইসরায়েলি বিমান হামলায় অন্তত ৪৩ জন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে ১৩ শিশুও রয়েছে। হামলায় আহত হন অজস্র মানুষ। গ্রেফতার করা শতাধিক জনের বেশি আন্দোলনকারীকে। অন্যদিকে হামাসের রকেট হামলায় ইসরায়েলি নিহত হয়েছেন ছয়জন। সময়টিভি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত