প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সিলেটে শপিংমহলের ব্যবসায়ীরা দোকান পাট খোলার সুফল পায়নি

আবুল কাশেম:[২] সিলেটে শপিংমলের ব্যবসায়ীরা দোকান পাট খোলার সুফল পায়নি। ব্যবাসয়ীরা জানান, লকডাউনের মধ্যে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার জন্য অনেক আন্দোলন ও সরকারের কাছে জোর দাবী জানালে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলে দিলেও সে পরিমান ক্রেতা নেই। ব্যবসায়ীরা মনে করেন গণপরিবহন বন্ধ থাকায় দোকনপাট খুলে তেমন ফায়দা পাচ্ছেন না।

[৩] সরেজমিন নগরীর বিভিন্ন মার্কেট ঘুরে দেখা গেছে, একদিকে বিধিনিষেধ অন্য দিকে চলছে  সামন্য মাত্রার ঈদ কেনাকাটা। দুটোর সমন্বয় করতে গিয়েই তালগোল পাকিয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন শপিংমল আর বিপণি বিতান গুলো। জিন্দাবাজার, বন্দরবাজার ও নয়ানড়কে গাদাগাদি করে লোকজন চলাচল করছেন। তবে অন্য বছরে ঈদের মতো লোক সমাগম তেমন নেই। এখন যারা শপিং মলে চলাচল করছেন তাদের অনেকের মুখে মাস্কও দেখা যায়নি।

[৪] এদিকে, আল হামরা, ওয়াটারসহ বড় মার্কেটগুলোর প্রবেশদ্বারে জীবাণুনাশক টানেল থাকলেও অধিকাংশেরই নেই টানেল। কোন কোনো দোকানে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবহার চোখেই পড়েনি। আবার স্বাস্থ্যবিধি মানতে উদাসীনতা রয়েছে ক্রেতাদের মধ্যেও। ঝুঁকি মাথায় নিয়ে শিশুদের নিয়েও আসছেন অনেকে।

[৫] আল হামরার এক ব্যবসায়ী বলেন, লকডাউনের কারণে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় কাস্টমার আসতে পারে না। আমাদের ব্যবসায় মন্দা যাচ্ছে। আমরা বছরের ১১ মাস অপেক্ষা করি শুধু রমজান মাসের জন্য। সেই মাসে গত বছরও আমরা ব্যবসা পেলাম না, এ বছরও পেলাম না। আরেক ব্যবসায়ী বলেন, টাকার অংকে কমপক্ষে দশ গুণ কম এবারের ঈদের বেচাকেনা।সম্পাদনা:অনন্যা আফরিন

সর্বাধিক পঠিত