প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বরগুনায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিতে বেগ পেতে হচ্ছে চিকিৎসকদের

সাগর আকন:[২] দক্ষিণ উপকূলীয় জেলা বরগুনায় মারাত্মক বিশুদ্ধ পানি সংকটে পড়েছে। লবণাক্ততা বৃদ্ধির কারণে পুকুরের মতো মিঠা পানির উৎস শুকিয়ে যাচ্ছে। সাধারণত বৃষ্টি, কালবৈশাখী ঝড় এমনকি শিলাবৃষ্টির আগমনের মধ্য দিয়ে নতুন বাংলা বর্ষ শুরু হয়। কিন্তু বাংলা নববর্ষ-১৪২৮ এর দ্বিতীয় সপ্তাহ চললেও, দেশের অধিকাংশ জায়গায় খুব কমই বৃষ্টিপাত হয়েছে। এমনকি অনেক জায়গায় এখন পর্যন্ত বৃষ্টির দেখাই মেলেনি, যা এই বছরে অস্বাভাবিক বলে মনে হচ্ছে। এর ফলে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর হ্রাস, পানির ঘাটতি ও খাবার পানির অভাব দেখা দিচ্ছে এবং বিশেষত উপকূল অঞ্চলের জেলাগুলোর পানিতে লবণাক্ততার হার বেড়ে যাচ্ছে।

[৩] দূষিত পানি ব্যবহারের ফলে বেড়েছে ডায়রিয়া, কলেরা, আমাশয়, জন্ডিস, গ্যাস্ট্রিক, ইউরিন্যাল ইনফেকশন, চর্মরোগ, কোষ্ঠকাঠিন্য, যৌনাঙ্গে চুলকানি ও ঘায়ের মতো রোগ। অন‍্যদিকে বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের করানে বিপর্যস্ত পুরো দেশ। টানা লকডাউনে ঘরবন্ধি পুরো দেশের মানুষ। প্রতিদিন করোনায় আক্রান্তের পাশাপাশি দেশজুড়ে নিত্য নতুন রেকর্ড গড়ছে মুত্যু। দেশব্যাপী করোনা ভাইরাসের এই ভয়াবহতার মধ্যে দক্ষিণের জেলা বরগুনায় করোনার থেকেও ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে ডায়রিয়া।গত এক যুগ বা তারও বেশি সময়ের মধ্যে এ বছর বরগুনায় ডায়রিয়ার প্রকোপ মারত্নক আকার ধারণ করেছে। ২০২১ সালে করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে বরগুনায় এখন পর্যন্ত কোন প্রাণহানি না ঘটলেও ডায়রিয়ায় ইতোমধ্যেই প্রাণ হারিয়েছেন দুইজন। ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিতে বেগ পেতে হচ্ছে চিকিৎসকদেরও।

[৪] জেলা সদর হাসপাতালসহ উপজেলা হাসপাতালগুলোর আনাচেকানাচে ভরে গেছে ডায়রিয়া রোগীতে। তিল পরিমান ফাঁকা নেই এসব চিকিৎসাকেন্দ্রে। বিপুল পরিমান রোগীর কারনে দেখা দিয়ে ঔষধ সংকট। পরিস্থিতি সামলাতে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন সামার্থবান মানুষ। একপ্রকার দয়াদাক্ষিণ্যে চলছে বিপুল পরিমান ডায়রিয়া রোগীর চিকিৎসা।

[৫] বরগুনার সিভিল সার্জনের কার্যালয়ের পরিসংখ্যানবিদ জেলিয়া ইয়াসমিন বলেন, ইতোমধ্যেই বরগুনায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে দুজন মৃত্যুবরণ করেছেন। এছাড়াও জেলায় ২০২১ সালে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন পাঁচ হাজার ১৭০ জন। এর মধ্যে গত এক সপ্তাহে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন এক হাজার ২৯২ জন। তার মধ্য সদর উপজেলায় আক্রান্ত হয়েছেন ৪৭৪ জন, বেতাগীতে ৩৪৮ জন, আমতলীতে ২৩১ জন, বামনায় ১০৭ জন এবং পাথরঘাটা উপজেলায় আক্রান্ত হয়েছেন ১৩২ জন। এছাড়াও গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৭৯ জন।

[৬] বরগুনা সদর হাসপাতালের পরিসংখ্যানবিদ মোঃ আল-আমিন বলেন, গত ২৪ ঘন্টায় ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে বরগুনা সদর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৮৯ জন। এছাড়াও গত সাত দিনে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা গ্রহণ করেছেন ৩২০ জন। আর গত একমাসে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে চিকিৎসা গ্রহণ করেছেন ৯২৮ জন। বরগুনা জেলা স্বাস্থ্য ত্ত্বাবধায়ক খান মুহাঃ সালামাত্ উল্লাহ্ বলেন, বৈশ্বিক মহামারি করোনা ভাইরাসের ভয়াবহতার থেকেও বরগুনায় ডায়রিয়ার প্রকোপ ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। এখন পর্যন্ত বরগুনায় করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এক হাজার ১৮১ জন। আর বরগুনায় এই পরিমান মানুষ ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে গত এক সপ্তাহে। এছাড়াও করোনার চলমান দ্বিতীয় ঢেউয়ে বরগুনা এখন পর্যন্ত কোন প্রাণহানি না হলেও ডায়রিয়ায় প্রাণ হারিয়েছেন দু’জন।

[১০] এ বিষয়ে বরগুনার সিভিল সার্জন ডাঃ মারিয়া হাসান বলেন, বরগুনায় উদ্বেগজনকহারে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। বর্তমানে করোনা ভাইরাসের ভয়াবহতার থেকেও বরগুনায় ডায়রিয়ার ভয়াবহতা বেশি। অনাবৃষ্টির ফলে পানি দূষণের কারনে জেলায় বিপুল পরিমাণ মানুষ ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছেন।তিনি আরো বলেন, ডায়রিয়ায় আক্রান্ত রোগীদের স্যালাইন সংকট থাকলেও এই মুহূর্তে তা কিছুটা সমাধান হয়েছে। গ্রাম-গঞ্জসহ সর্বত্র মানুষকে ডায়রিয়ার বিষয়ে সচেতন করতে স্বাস্থ্য বিভাগ প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে বলেও জানান তিনি।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত