প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

হাওড়ে বোরো ধান কাটা শুরু: চাল উৎপাদনের লক্ষ্য ২ কোটি ৫ লাখ টন

নিউজ ডেস্ক: কৃষিমন্ত্রী ড. মোঃ আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, হাওড় অঞ্চলে ধান কাটা শুরু হয়েছে। এবার বোরোতে ২ কোটি ৫ লাখ টন চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। তিনি বলেন, বোরো চাল বাজারে আসলে চালের দাম স্বাভাবিক হয়ে যাবে। বৃহস্পতিবার সচিবালয় থেকে ভার্চুয়ালি বোরো ধান কাটা উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বোরোর ফলন ভাল হয়েছে। এবার বোরোতে ২ কোটি ৫ লাখ টন চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

বর্তমানে চালের উচ্চমূল্য, বোরো ধান বাজারে এলে চালের দাম কী নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে কৃষিমন্ত্রী বলেন, ধান যদি আমরা ঘরে তুলতে পারি, যদি কোন বড় প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হয়, ইনশাআল্লাহ ধান-চালের দাম ইতোমধ্যে স্থিতিশীল হয়েছে, এটা স্বাভাবিক হয়ে আসবে। মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে আসবে। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি আমরা এবার উৎপাদন বাড়ানোর যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। আমাদের যা সাধ্য ছিল করেছি। আমরা কোন ত্রুটি করিনি। আমাদের মাঠের কর্মকর্তারা কঠোর পরিশ্রম করেছে। এর চেয়ে বেশি কিছু আমাদের করার ছিল না। এটুকু আমি বলতে পারি।

হাওড় অঞ্চলে ধান কাটা শুরু, উৎপাদনের লক্ষ্য ২ কোটি ৫ লাখ টন ॥ সুনামগঞ্জের জয়কলস ইউনিয়নের আস্তমা প্রামে চলতি মৌসুমে বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে। এবার বোরোতে ২ কোটি ৫ লাখ চাল উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী মোঃ আব্দুর রাজ্জাক। তিনি বলেন, হাওড় এলাকার ধান যদি আমরা ঘরে তুলতে পারি, আমাদের আর ঝুঁকি থাকবে না। স্বস্তিতে থাকতে পারব। লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হবে।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার আস্তমা গ্রামে এই বছরের বোরো মৌসুমের ধান কাটা শুরু হয়েছে। আমি মন্ত্রী হিসেবে সুনামগঞ্জবাসীকে অভিনন্দন জানাই, ধন্যবাদ জানাই। আমি বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টিগোচর করেছি। উনিও আপনাদের অভিনন্দন জানিয়েছেন। কৃষক গত বোরো, আউশ ও আমনে ভাল দাম পেয়েছে ইনশাআল্লাহ তারা এই বোরোতেও যাতে ভাল দাম পায় সেজন্য আমরা ইতোমধ্যে প্রস্তুতি নিচ্ছি, সেভাবে আমরা ধান ক্রয়েরও ব্যবস্থা করব।

তিনি বলেন, আমরা তিনটি মৌসুমে ধান করে থাকি বোরো, আউশ ও আমন। জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারি মাসে বোরো ধান রোপণ করা হয়, এপ্রিলের শেষেরদিক থেকে ধান কাটা শুরু হয়ে মে-জুনের প্রথমভাগে এসে সারাদেশে শেষ হয়। বোরোটাই আমাদের চালের সবচেয়ে বড় মৌসুম। সাধারণত এপ্রিলের ১৫ তারিখের পর বোরো কাটা শুরু হয় কিন্তু হাইব্রিড করার কারণে আগেই কাটা হচ্ছে। আমাদের একজন চাষী ১০ একর জমিতে হাইব্রিড বোরো চাষ করেছেন, তিনি স্থানীয় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, খুবই একজন উদ্যোগী চাষী, তার সৃজনশীলতা আছে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মেসবাহুল ইসলাম বলেন, আজকে বিশেষ আনন্দের দিন আমাদের জন্য। আমরা প্রতীক্ষা করছিলাম ধান কবে উঠবে, এটার সঙ্গত কারণও ছিল। বার বার বন্যা হওয়ায় গত আমন মৌসুমে উৎপাদন কম হওয়ায় দেশে ধান ও চালের দাম উর্ধমুখী থাকার কারণে সাধারণ মানুষে সমস্যা হচ্ছিল। পাশাপাশি আমরাও উদ্বিগ্ন ছিলাম বোরোটা কী রকম হয়? বোরো কর্তনের মধ্য দিয়ে আমরা জাতির কাছে বার্তা দিতে পারছি আগামভাবে বোরোটা আসছে। – জনকণ্ঠ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত