প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মার্কিনী গভর্নর এ্যান্ড্রু কুমোর পর এবার যৌন হয়রানির অভিযোগ অস্ট্রেলিয়ার রাজনীতিবিদের বিরুদ্ধে

আখিরুজ্জামান সোহান: [২] নিউইয়র্কের গভর্নর এ্যান্ড্রু কুমো তার সাবেক দুই সহকর্মীকে যৌন হয়রানির দ্বায়ে অভিযোগের পর এবার ঠিক যেনো একই ঘটনার পূনরাবৃত্তি ঘটলো খোদ অস্ট্রেলিয়ার মন্ত্রিপরিষদে।

[৩] অস্ট্রেলিয়ার বর্তমান মন্ত্রিপরিষদের একজন সদস্যের বিরুদ্ধে ১৯৮৮ সালের ধর্ষনের ঘটনায় অভিযুক্ত করার পর চাপের মুখে পড়েছে প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন। সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট

[৪] বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, অস্ট্রেলিয়ান ফেডারেল পুলিশ গণমাধ্যমকে বলেছে, ‘অস্ট্রেলিয়ার রাজনীতিতে এটি একটি বিরল ঘটনা যা পুরো দেশকে কলঙ্কিত করেছে। আমরা আশা করি, মামলার তদন্তে যথাযথ কর্তৃপক্ষ আমাদের সহযোগিতা করবে’ ।

[৫] নির্যাতিত ভুক্তভোগী গত বছরের জুনে আত্মহত্যা করার পর বিচারের দাবিতে তার বন্ধুরা অভিযোপত্রের দুটি কপি সিনেটর এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠায় । আর এর পরেই নড়েচড়ে বসে দেশটির সরকার।

[৬] এই ঘটনার পরপরই প্রতিরক্ষা মন্ত্রীসহ পার্লামেন্টের একজন কর্মকর্তা যৌন হয়রানির অভিযোগ আনে মন্ত্রী পরিষদের বিরুদ্ধে। অস্ট্রেলিয়ার পার্লামেন্টের সাবেক কর্মকর্তা ব্রিটানি হিগিন্স অভিযোগ আনে দেশটির পার্লামেন্ট ভবনে তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে।

[৭] এর আগেও ২০১৯ সালে মন্ত্রীর কার্যালয়ে ক্ষমতাসীন লিবারেল পার্টির একজন সহকর্মীর দ্বারা তিনি নিয়মিত যৌন হয়রানীর শিকার হতেন বলে জানিয়েছেন এই ভুক্তভোগী।

[৮] ব্রিটানি হিগিন্সের অভিযোগের পর মুখ খোলেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী লিনডা রেনোল্ডস। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ব্রিটানি হিগিন্সের মতো আমাকেও মিটিং রুমে হয়রানীর শিকার হতে হয়েছে।

[৯] এদিকে করোনাভাইরাসের সময় নিউইয়র্কে সবচেয়ে আলোচিত এবং জনপ্রিয় গভর্নর অ্যান্ড্রæ কুমোর বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ করেন তার সাবেক দুই সহকর্মী ৩৬ বছর বয়সী লিন্ডসে বায়লেন এবং শার্লোট বেনেটক। লিন্ডসে বায়লেন উপদেষ্টা গত ১৩ ডিসেম্বর টুইটে এমন অভিযোগ করেন।

[১০] তবে কুমো এসব অভিযোগকে উড়িয়ে দিয়ে বলেন, ‘কাজের সময় আমি রসিকতা বা কৌতুক করি। আমার মনে হয় এটি মজার। আমি আমার স্বভাবজাত পদ্ধতিতেই এটি করি’।

 

 

সর্বাধিক পঠিত