প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ড. রুমী আহমেদ: একটি ভাইরাস বৈচিত্র্য, দুটি কথা বলে!

ড. রুমী আহমেদ : ড. ব্রিটিশ সার্স-কভ-২ মিউট্যাটেড ভ্যারিয়েন্ট বি-তে অ্যান্থনি ফাউসি। ১.১.৭ – ‘আচ্ছা, প্রথমত, এটা এমন একটা জিনিস যা আপনি নজর রাখতে চান। তুমি এটা শুধু উড়িয়ে দিতে চাও না, অবশ্যই না। বুঝতে হবে, যদিও…, এই করোনাভাইরাস একটি জঘঅ ভাইরাস। এটাই মেকআপ, জিনগত মেকআপ। এবং এই ধরনের ভাইরাস অনেক মিউটেশন করার প্রবণতা থাকে। অধিকাংশ মিউটেশনের কোনো ফাংশন বা প্রাসঙ্গিকতা নেই। এটার একটা পরামর্শ আছে যে এটা ভাইরাসকে আরো বেশি করে ছড়িয়ে দিতে পারে। আমরা এখনও প্রমাণ করতে বা তা অপসারণ করতে প্রমাণ খুঁজছি। তবে একটা অনুমান করা যাক যে এটা, আসলে ভাইরাসকে আরো স্বচ্ছল করা, যদিও এটা এখনো প্রমাণিত হয়নি। ভাইরাস বা ভাইরাসের মৃত্যুকে আমরা কি বলি তার উপর কোনো প্রভাব আছে বলে মনে হয় না।

এটা মানুষকে আরো অসুস্থ করে তোলে না। এবং আমরা বর্তমানে যে টিকা ব্যবহার করছি তার প্রতিরক্ষামূলক প্রকৃতির উপর কোন প্রভাব আছে বলে মনে হয় না। সুতরাং, এটা এমন একটা জিনিস যা আপনি গুরুত্ব সহকারে নেন, আপনি আপনার নজর রাখুন, এবং আপনি পরীক্ষা করে দেখুন যে আমরা বিশ্বাস করি যে সেখানে যে সেখানে আছে কিনা তার চেয়ে বেশি কার্যকরী প্রাসঙ্গিকতা আছে কিনা’ একই বিষয়ে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন – ‘ভাইরাসটির নতুন বৈচিত্রময় দ্বারা বিস্তারটি চালিত হচ্ছে, এটি আরও সহজে ছড়িয়ে পড়বে বলে মনে হচ্ছে এবং পূর্বের স্ট্রেনের চেয়ে ৭০ শতাংশ পর্যন্ত বেশি স্বচ্ছন্দ হতে পারে।’

– নিশ্চিতভাবে জনসন বৈচিত্র্যের একটি বিপদ সম্পর্কে আরো বেশি সহায়ক ছিলেন এবং ভয় স্টোক করার অভিপ্রায় ছিলেন। কেন সে এমন করবে? কারণ- ক্রিসমাসের ছুটির আগে তার ইউকে বন্ধ করে দেওয়া দরকার ছিল এবং এটা সহজ বিক্রি হতো না যদি না সে ইতিমধ্যেই মানুষজন জানে তুলনায় আরো ভয়ানক কিছু না বলে। বরিসও তার ব্রেক্সিট দেওয়ার শেষ ধাপে ছিল এবং তার ব্রিটিশ মানুষের মন অন্য কোথাও দখল করে রাখা দরকার ছিল। তাই তিনি এই ভ্যারিয়েন্ট বি. ১.১.৭. উপর নোঙ্গর করেছেন। ফেসবুক থেকে

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত