প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শিশুদের স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর উপায়

ডেস্ক নিউজ: স্মৃতিশক্তি শিশুর জন্য গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। স্মৃতিশক্তি ভালো হলে সে স্কুলে কিংবা যেকোন জায়গায় ভালো করতে পারবে।

অনেক শিশুই পড়াশোনা কিংবা কোনো বিষয় বুঝতে বা মনে রাখতে না পারলে অসহায় বোধ করে। শিশুদের স্মৃতিশক্তির বাড়ানোর বেশ কয়েকটি উপায় রয়েছে। এ ব্যাপারে শিশুদের বাবা-মা তাদের সাহায্য করতে পারেন।

অলস মস্তিষ্ক জীবনের অগ্রহতিকে ব্যহত করে। ছোটবেলা থেকে শিশুদের নানাভাবে মস্তিষ্কের চর্চা করানো হলে একদিকে তারা যেমন নতুন নতুন বিষয় শিখবে, জানবে পাশাপাশি সঞ্চয় হবে জীবনের নানা অভিজ্ঞতা। সমকাল অনলাইন, সময় টিভি

এমন কিছু বিষয় আছে যার অনুসরণ আপনার সন্তানের স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে। সেগুলো সময়নিউজের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

১। শিশুদের মধ্যে অজানাকে জানার আগ্রহ থাকে প্রবল। অনেকেই শিশুদের প্রশ্নে বিরক্তবোধ করে থাকে। একটা পর্যায়ে তারা প্রশ্ন করার সাহস হারিয়ে ফেলে। তাই আপনার শিশুকে যথাসম্ভব প্রশ্ন করতে দিন। এমনকি তাকে প্রশ্ন করতে উৎসাহিত করুন।

২। গল্প, কবিতা, গান শিশুরা সহজেই আয়ত্ব করতে পারে। তাই ছড়া, কবিতা, গান ও গল্প স্মৃতিশক্তিকে উর্বর করবে। পরবর্তীতে তাড়াতাড়ি মনে করতে পারবে এবং তা প্রকাশও করতে পারবে।

৩। মাঝে মধ্যে শিশুকে বাইরে নিয়ে যাবেন সেটা হতে পারে গ্রন্থাগার, জাদুঘর, কোন দর্শনীয় স্থান কিংবা প্রাকৃতিক কোন পরিবেশে। এতে করে শিশু শিল্প, সাহিত্য, ইতিহাস ও পরিবেশ সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে পারবে। বিশেষ করে গ্রন্থাগারে খেলার ছলে বই হাতে নিয়ে যা কিছুই পড়ুক বা দেখুক না কেন তা শিশুর স্মৃতিতে গেঁথে যাবে।

৪। শিশুকে একাকিত্ববোধ থেকে দুরে রাখুন। যথাসম্ভব বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে তুলুন। তাদের মনের কথাগুলো জানুন। তাদের সঙ্গে নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করুন। শিশুদের ভাবনা গুলোকে প্রাধান্য দিন। এতে করে তার চিন্তাভাবনা উন্নত হবে আবার স্মৃতিশক্তিও বৃদ্ধি পাবে।

৫। সোনামনিদের কোন কিছু শেখানেরা সময় ঐ বিষয়ের স্থিরচিত্র, ভিডিও সম্ভব হলে সেটি সরাসরি দেখানোর চেষ্টা করুন। মুখস্তের চেয়ে তা কয়েকগুন বেশি ফলদায়ক হবে।

৬। প্রতিদিন শিশুকে শরীরচর্চায় অংশগ্রহণের সুযোগ করে দিন। শরীরচর্চা একদিকে শরীর ও মন ভালো রাখবে অন্যদিকে, মস্তিষ্কের কার্যকারিতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।

৭। শিশুকে যথাসম্ভব পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ খাবার খাওয়াতে হবে। পাশাপাশি নিরাপদ পানি নিশ্চিত করা জরুরি। পানি স্বল্পতা শিশুর মস্তিষ্কের বিকাশে বাধা দেয়।

৮। আপনার সন্তান যেন ইন্টারনেটে আসক্ত হয়ে না পড়ে সেদিকে বিশেষভাবে নজর দিতে হবে। কেননা, বিভিন্ন গ্যাজেটের অত্যাধিক ব্যবহার শিশুর মস্তিষ্কের কাঠামো পরিবর্তন করে দেয় এমকি স্মৃতিশক্তিও হ্রাস পায়। তাই দিনের বেশিরভাগ সময় তাদের নানা কাজে ব্যস্ত রাখুন।

৯। শিশুর মস্তিষ্কের বিকাশে রঙের ব্যবহার গুরুত্বপূর্ণ। শিশুরা খুব সহজে রঙ মনে রাখতে পারে। তাই পড়া কিংবা অন্য কোন বিষয়ে রঙের ব্যবহার করতে পারেন।

১০। শিশুকে কোন কিছু বুঝানোর সময় তার আশেপাশের বিষয়গুলো দিয়ে উদাহরণ দিতে পারেন। ফলে যা সে দেখা বা শোনা মাত্রই মনে রাখতে পারবে। সম্পাদনা: জেরিন

 

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত