প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সারাদেশে মানসিক নিরাময় কেন্দ্র ও রিহ্যাব সেন্টারের হিসেব নেই: স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল পরিচালক

লাইজুল ইসলাম: [২]লাইসেন্স না থাকলেই সিলগালা। [৩] মাদক নিরাময় কেন্দ্র বা রিহ্যাব সেন্টারে যাদের ভর্তি করা হয়, তারা বেশিরভাগই মাদক গ্রহণের কারণে মানসিক ভারসাম্যহীন। কিন্তু এসব প্রতিষ্ঠানে অমানুষিক নির্যাতনের অভিযোগ বহু পুরোনো।

[৪] স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল পরিচালক ডা. ফরিদ মিয়া বলেন, শুধু ঢাকায় কিছু সংখ্যক মাদক নিরাময় কেন্দ্র ও রিহ্যাব সেন্টারের তালিকা আছে। তবে দেশে কতগুলো প্রতিষ্ঠান আছে তা বলা যাবে না। এটা নিয়ে আমাদের আরো কাজ করতে হবে। এতোদিন আমরা এসবের প্রতি ততটা নজরদারি করতাম না। তবে এখন কঠোরভাবে এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

[৫] তিনি বলেন, সাধারণ হাসপাতাল আমাদের কাছ থেকে যেভাবে অনুমোদন নেয়, সেভাবেই এই প্রতিষ্ঠানগুলোর অনুমোদন বা লাইসেন্স নিতে হয়। যদিও হাসপাতালের মতো এত কিছু এদের থাকে না। তারপরও লাইসেন্স নিতে হয়।

[৬] তিনি বলেন, পুলিশের কর্মকর্তা যে হাসপাতালে মারা গেছেন তা ইতোমধ্যে সিলগালা করা হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কাছ থেকে নেয়া কোনো লাইসেন্সও ছিলো না তাদের। এই হাসপাতালটির বিরুদ্ধে আইনী প্রক্রিয়া চলমান। সম্পাদনা: বাশার নূরু

সর্বাধিক পঠিত