প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মহসীন হাবিব: অসাম্প্রদায়িক তকমা লাগানো ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগও মাথানত করে ফেলেছে

মহসীন হাবিব : ব্যক্তি মানুষের মতোই একটি জাতিরও মতিভ্রম হয়। বিশেষ জ্বরে আক্রান্ত হয়। তখন সে জাতির হিতাহিত জ্ঞান থাকে না। অতি সামান্য কিছু মানুষ বুঝতে পারে যে জাতি ভুল বা অন্ধকারের দিকে পা বাড়াচ্ছে। এই বুঝতে পারা মানুষগুলো নিমিষে আক্রান্ত হয়, জাতি তাদের মুহূর্তে পৃথিবী থেকে সরিয়ে দেয়। ১৯৩৯ সালের ঠিক পূর্বে জার্মানির হিটলার জ্বর হলো। তখন গোটা জার্মান জাতি হিটলারের পেছনে নেমে গেল। আবেগে হিটলারের ছবি দেখেও কাঁদে।

হিটলারের বাহিনী দেশটির ইহুদি সম্প্রদায়কে ধ্বংস করার সিদ্ধান্ত নিলো। জাতি তাদের পেছনে। হিটলার একের পর এক দেশ দখল করে মানুষ হত্যা করতে থাকলো। গোটা জাতি সোৎসাহে সেই ধ্বংসে সায় দিলো, কেউ কেউ নিশ্চুপ থাকলো। ইরানের বিপ্লবের পূর্বে রাজনীতির হাত ধরেই জাতির অসংখ্য মানুষের মধ্যে ধর্ম বোধ জেগে উঠলো। আধুনিক ইরানীরাও পরিবর্তন চাইলো এবং বিপ্লবকে সায় দিলো। এমনকি দেশটির কমিউনিস্ট ছাত্ররাও মাঠে নামলো শাহের বিরুদ্ধে খোমেনির পক্ষে। বিপ্লব সফলের সঙ্গে সঙ্গে প্রায় সব কমিউনিস্টকে হত্যা করা হলো, শতশত সেনা কর্মকর্তাও বাদ পড়লো না। পরিণতি আজও চাক্ষুষ।

এই বাংলা পাকিস্তান রাষ্ট্র গঠনের পূর্বে সর্বাধিক ভোট দিয়েছিলো পাকিস্তান গঠনের পক্ষে। তার পরিণতিতে ২৩ টি বছর চাকর-বাকরের মতো জীবন চালাতে হয়েছে। শেখ মুজিব নামের বংশীবাদকের জন্ম না হলে কী হতো তা এখন বলা যায় না। এই জাতির গায়ে আবার এখন ভীষণ জ্বর। এই জ্বরের কাছে দেশের প্রগতিশীল, অসাম্প্রদায়িক তকমা লাগানো ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগও মাথানত করে ফেলেছে। বাণ আসলে যেমন সবকিছু ভাসিয়ে নিয়ে যায়, তেমনি ভেসে যাচ্ছে প্রশাসন, শিক্ষা, গণমাধ্যম, পরিবার, ব্যবসা-বাণিজ্য, ইন্টারনেট সবকিছু। কোনো রকম রাজনৈতিক ট্রানজিট আসলেই এর চরম মূল্য দিতে হবে।

প্রায় ৩০ বছর আগে এক ছাত্রশিবির নেতা আমাকে হাসতে হাসতে খুব সহজভাবে বলেছিলো,‘আমরা তো এখন ক্ষমতায় যেতে চাই না। আমরা বীজ বপন করেছি। ৩০ থেকে ৪০ বছর পর আমরা এর ফল ঘরে তুলবো। সেই ছাত্র শিবিরের ছেলেটির কথা এখন আমার কাছে দৈব বাণীর মতো মনে হচ্ছে।

সর্বাধিক পঠিত