প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দীপক চৌধুরী : বঙ্গবন্ধু মাথা নত করেননি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মধ্যেও চিরকাল সেই আদর্শ দেখতে চায় জনগণ

দীপক চৌধুরী : ইতিহাসের মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে বর্বরোচিত ও পৈশাচিক হত্যাকাণ্ডের শিকার হন ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্ট। জাতির ইতিহাসের এক পরম শোকাবহ দিন এটি। রাতের শেষপ্রহরে সংঘটিত হয় নিষ্ঠুর ওই মহাদুর্যোগ। এদিনই বাঙালির স্বাধীনতার স্থপতির বুকের তাজা রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল বাংলার মাটি। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা তখন বিদেশে ছিলেন বলেই প্রাণে রক্ষা পান। বঙ্গবন্ধুর কারণেই বাঙালি জাতি পেয়েছিল হাজার বছরের আকাক্সিক্ষত প্রিয় স্বাধীনতা, স্বাধীন মানচিত্র।

গণতন্ত্রের আজীবন সাধক ছিলেন বঙ্গবন্ধু। তিনি হয়ে উঠেছিলেন বিশ্বের নির্যাতিত মানুষের নেতা। শেখ মুজিব প্রকৃতপক্ষেই মানুষের বন্ধু ছিলেন। তিনি হয়ে উঠেছিলেন বঙ্গবন্ধু। কেবল দেশ স্বাধীন হয়েছে। এরমধ্যেই রাজনীতির নামে এক শ্রেণির নেতার অযৌক্তিক বক্তৃতা, মিথ্যা তথ্য ছড়াতেন। তৎকালীন সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে নানারকম গুজব সৃষ্টি করতেন তারা। একশ্রেণির লোকের একমাত্র কাজ ছিল জনগণকে ক্ষেপিয়ে তোলা। তাদের ইচ্ছা ছিল কীভাবে অবাস্তব ও মিথ্যা তথ্য ছড়িয়ে বঙ্গবন্ধু সরকারের মন্ত্রী নেতাদের বিতর্কিত করা যায়। কিন্তু বঙ্গবন্ধু মোটেই কঠোর হতেন না। তিনি তাদের সংশোধনের সুযোগ দিতেন। অন্ধভাবে মানুষকে বিশ্বাস করতেন, ভালবাসতেন। বাংলাদেশের বাঙালিরা তাঁকে হত্যা করতে পারে তা ছিল কল্পনাতীত। ১৯ আগস্ট, ১৯৭২-এ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের দ্বিতীয় জাতীয় সম্মেলন উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমান ভাষণে এক জায়গায় বলেছিলেন, ‘‘একদল লোক আছে বড় বড় বক্তৃতা করে। চুরি করে, হাইজ্যাকের গাড়িতে চড়ে। ঢাকায় বাড়ি করে থাকে। উপার্জনের কোনো হদিস নাই। কোত্থেকে পয়সা পায়, কোত্থেকে খায়, বড় গাড়িতে চড়ে, বড় বাড়িতে থাকে। আর অন্যদিকে লম্বা চওড়া বক্তৃতা করে। সেজন্য বলছি, আত্মসমালোচনা করে আত্মসংযম অভ্যাস করো। তাহলে মানুষ হতে পারবে। তোমাদের ছাত্রলীগ বড় সংগ্রামী প্রতিষ্ঠান। .. .. .. ..’’
বঙ্গবন্ধুর যেসব খুনি এখনও ধরা পড়েনি তাদের মধ্যে রয়েছে শরীফুল হক ডালিম, আব্দুর রশীদ, মোসলেম উদ্দিন, রাশেদ চৌধুরী ও এবিএমএইচ নূর চৌধুরী। শরীফুল হক ডালিম, আব্দুর রশীদ, মোসলেম উদ্দিন কোথায় আছেন তা বাংলাদেশের গোয়েন্দাদের কাছে এখনও অজানা। তবে এবিএমএইচ নূর চৌধুরী (বাঁয়ে) কানাডায় এবং রাশেদ চৌধুরী যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছে বলে তথ্য রয়েছে সরকারের কাছে। বাকী ঘাতকদের ফিরিয়ে দণ্ড কার্যকর করা হবে এমন কথা আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জানিয়েছেন।

পৃথিবীতে বাঙালি জাতি যতদিন থাকবে ততদিনই থাকবে বঙ্গবন্ধুর নাম, তার কর্ম। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের শেষ পর্যায়ে বাংলা সাহিত্যের খ্যাতিমান লেখক অন্নদাশঙ্কর রায় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে একটি কবিতা লিখেছিলেন। কবিতার চরণ চারটি নিম্নরূপ:

‘যতকাল রবে পদ্মা যমুনা গৌরী মেঘনা বহমান
ততকাল রবে কীর্তি তোমার শেখ মুজিবুর রহমান।
দিকে দিকে আজ অশ্রুমালা রক্তগঙ্গা বহমান
তবু নাই ভয় হবে হবে জয়, জয় মুজিবুর রহমান।’
শোকের মাসে বঙ্গবন্ধুর জীবনী পড়ার অঙ্গীকার হোক দলীয় নেতা-কর্মীদের। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনাচার, চিন্তা, আদর্শ ও ভালবাসা জানা দরকার। অতীতের দিকে চোখ ফেরালে বঙ্গবন্ধুর কথা আর স্বপ্ন যেন আমাদের চোখের সামনে ভেসে ওঠে। ১৯৭৫-এর ২৬ মার্চ সোহরাওয়াদী উদ্যানে জনসভায় বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘আমার কৃষক, আমার শ্রমিক দুর্নীতি করে না। সকল শিক্ষিত লোকদের বলব, কৃষক শ্রমিকদের সাথে ইজ্জত ও সম্মান রেখে কথা বলবেন। কারণ; দেশের মালিক ওরাই। ওদের দ্বারাই আপনার সংসার চলে। তোমরা আজ লেখাপড়া করেছ, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার অফিসার হয়েছে তাদের শ্রম আর ঘামের টাকায়।’ সকল শ্রেণির মানুষেরই প্রিয়- জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আজ আমাদের মধ্যে নেই। কিন্ত একটি আদর্শ, একটি প্রত্যয়, দীর্ঘ সংগ্রাম আর মানুষের ভালবাসা আছে তাঁর নিদের্শে। বজ্রকণ্ঠে তিনি ডাক দিয়েছিলেন স্বাধীনতার। রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধে রক্তনদী পেরিয়ে অর্জিত হয়েছিল মহার্ঘ স্বাধীনতা। বিশাল হৃদয়ের যে মানুষকে কারাগারে বন্দী রেখেও স্পর্শ করার সাহস দেখাতে পারেনি পাকিস্তান হানাদার বাহিনী, অথচ স্বাধীন বাংলার মাটিতেই তাকে নির্মমভাবে জীবন দিতে হয়েছে।

একবার শোক দিবস উপলক্ষে এক আলোচনায় বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা পরিষ্কার বলেছেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যা ষড়যন্ত্রে শুধু জিয়াউর রহমানই নয়, খালেদা জিয়াও জড়িত। এটা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই।’ এটা প্রমাণ করে এমন বহু আচরণ দেখা গেছে বিএনপির রাজনীতিতে। ২০১৮-তে নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ব্যবহার করে রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের অপচেষ্টার অভিযোগ করে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারীদের দেশের উন্নয়ন সহ্য হচ্ছে না। তাঁর ভাষায় , ‘যারা শিশুদের নিয়ে খেলতে চায়, তাদের ঘাড়ে বন্দুক রেখে উদ্দেশ্য হাসিল করতে চায়, তারা বাংলাদেশের জনগণের ভবিষ্যৎকেই অন্ধকারে ঠেলে দিতে চায়। আলোর পথে যাত্রায় বাধা দিতে চায়।’
বিএনপি সরকার আমলে শিশুদের মুখে ছিল ডাণ্ডি, বিড়ি, ফেন্সিডিল, ইয়াবা, কিশোরদের হাতে নাইন এমএম পিস্তল, কাটাবন্দুক, যুবকদের ধ্বংস করার জন্য এমন কিছু বাকি ছিল না যা তাদের হাতে ধরিয়ে দেওয়া হয়নি। শিক্ষাঙ্গনে আগ্নেয়াস্ত্র-বোমা ছিল নিত্যদিনের সংস্কৃতি। আমরা সেই সংস্কৃতি থেকে বের হতে পেরেছি। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার সরকার কি না করেছে দেশ অগ্রগতির জন্য। বছরের প্রথম দিনে বিনামূল্যে শিক্ষার্থীদের হাতে বই, গরিব শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি, হাজার হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ, পদ্মা সেতু নির্মাণ, বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার, একাত্তরের যুদ্ধাপরাধী-রাজাকার ও মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার (হয়েছে ও হচ্ছে), বিদ্যুৎ উৎপাদনের সফলতা, সমুদ্র সীমানা বিজয়, ফ্লাইওভার নির্মাণ, জেলেদের খাদ্যসহায়তা প্রদান, বয়স্ক ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতা, কমিউনিটি ক্লিনিকে স্বাস্থ্যসেবা প্রদান, প্রতিটি ইউনিয়নে ডিজিটাল তথ্যসেবা স্থাপন, ইকোনমিক জোন নির্মাণ, জঙ্গী ও সন্ত্রাস দমনে সফলতা, নারীর ক্ষমতায়ন, কৃষিতে সফলতা, কর্মসংস্থান বৃদ্ধি, অনলাইন- মোবাইল ও ইন্টারনেটে বিপ্লব, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বৃদ্ধি, ছিটমহল সমস্যার সমাধানসহ সহস্রাধিক ইস্যুতে সরকারের ইতিহাস সৃষ্টি মানুষকে আকৃষ্ট করে আছে। ছিটমহল নিয়ে এরশাদ-বিএনপি-জামায়াত অর্থাৎ আওয়ামী লীগ বিরোধী সকল শক্তি একজোট হয়েছিল। সেসব দল প্রচার করত-এটি নাকি গোলামি চুক্তি। যদিও তারা ক্ষমতায় থেকেও এর কিনার করতে পারেনি। কিন্তু ৬৮ বছর পর এক ঐতিহাসিক বিজয় নিয়ে এলো শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকার। ছিটমহল বিনিময় প্রকৃতপক্ষে এক ঐতিহাসিক অর্জন। ২০১১ সালের যৌথ জনগণনা অনুযায়ী, বাংলাদেশের ভেতরে থাকা ভারতের ১১১টি ছিটমহলের মানুষের সংখ্যা ৩৭ হাজার ৩৮৩ জন এবং আয়তন ১৭ হাজার ১৬০ দশমিক ৬৩ একর। ভারতে থাকা বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহলে মানুষের সংখ্যা ১৪ হাজার ৯০ জন এবং আয়তন ৭ হাজার ১১০ দশমিক শূন্য ২ একর। ২০১৬ সালের ৩১ জুলাই মধ্যরাতে তা কার্যকর হয়।

বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার বীজসূত্র বপন করার মাধ্যমে বাঙালি জাতিকে স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখিয়ে তা বাস্তবে পরিণত করেছিলেন। আর এই স্বাধীনতার স্বপ্নপুরুষ সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করার মাধ্যমে বীর-বাঙালির ইতিহাসে কলঙ্কিত এক অধ্যায় সূচিত হয়েছে এই আগস্ট মাসেই। সুস্পষ্টভাবেই শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘জিয়াউর রহমানের স্ত্রী (খালেদা জিয়া) জাতির পিতার আত্মস্বীকৃত খুনিদের ভোট চুরির মাধ্যমে জাতীয় সংসদে জায়গা করে দেন। এর অর্থ কী দাঁড়ায়? জাতির পিতা হত্যা ষড়যন্ত্রে (১৫ আগস্ট) শুধু জিয়াউর রহমানই নয়, খালেদা জিয়াও জড়িত। এটা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই।’ আমরা ইতিহাসে দেখেছি, খুনিরা সব সময় খুনিই হয়। এরাই ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা চালিয়েছে। বারবার বঙ্গবন্ধুকন্যাকে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে ঘাতকরা। এটা আজ প্রমাণিত যে, আওয়ামী বিরোধীদের হাতে দেশের ক্ষমতা গেলে দেশের কেমন উন্নতি হবে, দেশের মানুষ কি ধরনের ন্যায়বিচার পাবে-এটা অনেকটাই পরিষ্কার। বর্তমানের কঠিন সময়েও গরিব, এতিম ও অসহায়দের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছেন শেখ হাসিনা।

২ আগস্ট বাংলাদেশ কৃষক লীগের অনুষ্ঠানে এক পর্যায়ে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ঘটনার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘স্বাধীনতার পরে জাতির পিতার গতিশীল নেতৃত্বে দেশ যখন আর্থসামাজিক উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছিল ঠিক সে সময়ই তাঁকে হত্যা করা হয়।’ তিনি দলের প্রত্যেক নেতা-কর্মীকে বঙ্গবন্ধুর জীবনী পড়ার এবং তাঁর আদর্শ বাস্তবায়নে ব্রতী হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘এ জন্য জাতির পিতা সম্পর্কে সবাইকে জানতে হবে। বঙ্গবন্ধুর জীবনী পড়লে তাঁর আদর্শ বাস্তবায়নে কাজ করতে পারবেন।’
জাতির পিতার হত্যাকাণ্ডের বিচার এবং যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রসঙ্গে যদি আমরা তাকাই, তাহলে দেখি খুনিরা নানারকম চক্রান্ত করেছিল। দেশে-বিদেশে বসে তারা চক্রান্ত করেছে। বংশপরম্পরায় তারা এই চক্রান্ত করে যাচ্ছে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু হলে এবং রায় কার্যকর হতে শুরু হলে এদের রক্ষা করতে বিভিন্ন দেশের ক্ষমতাবানেরা শেখ হাসিনার সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করেছিল, বিভিন্ন দেশের নেতা মন্ত্রী বাংলাদেশে এসেছে। আমরা যখন যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করে ফাঁসি দিচ্ছিলাম, তখন পাকিস্তানের সরকার নির্লজ্জের মত এর বিরোধিতা করেছে, মাঠে, ঘাটে এমনকি সংসদে শোক প্রস্তাব এনেছে, সমালোচনা করেছে। এটা আমাদের স্বাধীনতা, বিচার ব্যবস্থা ও সার্বভৌমত্ব এর প্রতি নগ্ন হস্তক্ষেপ ছিল। সেগুলো এদেশের মানুষ ভুলে যায়নি। জিয়াউর রহমানের রাষ্ট্রক্ষমতায় আসা এবং বিএনপির প্রতিষ্ঠার একটা বিশেষ ও প্রধান উদ্দেশ্য ছিল। বাংলাদেশকে পুনরায় পাকিস্তান বানানো। বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে স্বাধীনতার ১০ বছরের মধ্যে বাঙালি জাতি ক্ষুধা, দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত জাতি হিসেবে গড়ে উঠত, উন্নত জাতি হিসেবে বিশ্বে মর্যাদা পেত। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যখন যুদ্ধবিধ¦স্ত দেশকে গঠন করতে দিনরাত নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছিলেন তখনই ঘটানো হয় এ নৃশংস ঘটনা। পরিসমাপ্তি ঘটে একটি ইতিহাসের। বঙ্গবন্ধুর নাম বাংলার আকাশ-বাতাস ও মানুষের মন থেকে মুছে ফেলতে চেয়েছে ষড়যন্ত্রকারী ঘাতকরা, যা কোনোদিন হয়নি, হবেও না।

লেখক : উপসম্পাদক, আমাদের অর্থনীতি ও কথাসাহিত্যিক

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত