প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ‘আইপিএলের জন্য প্রতিবছর ৪৪০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করতো চীনের মোবাইল প্রতিষ্ঠান ভিভো’

এল আর বাদল: [২] চীনের সঙ্গে সবরকম সম্পর্ক শেষ। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এমনই ডাক দিয়েছিলেন। তার সেই ডাকে সাড়া দিয়েছে বেশিরভাগ ভারতবাসী। তবে ভারতের বাজারে চীনের ফলাও ব্যবসা। ছোট থেকে বড়, অনেক জিনিসের ক্ষেত্রেই ভারতবাসী চীনের উপর নির্ভরশীল। কারণ সস্তায় জিনিস দিতে চীন সবার আগে। একই জিনিস দেশের বাজারে উৎপাদন করতে গেলে খরচ হতে পারে বেশি। তাই এত সহজে কি চীনের সামগ্রীর উপর নির্ভরশীলতার অভ্যাস থেকে বেরিয়ে আসা সম্ভব! সেই উত্তর সময় দেবে।

[৩] তবে লাদাখের গালোয়ান উপত্যকায় ভারতীয় সেনা জওয়ানদের শহীদ হওয়ার পর থেকে চীনের উপর ক্ষোভ উগড়ে দিচ্ছে গোটা দেশ। চীনবিদ্বেষের এই ঢেউ আছড়ে পড়েছে আইপিএলেও। চাইনিজ মোবাইল সংস্থা ভিভোর সঙ্গে সম্পর্ক শেষ করেছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড বিসিসিআই।

[৪] আইপিএলের টাইটেল স্পনসর হিসাবে ছিল চাইনিজ মোবাইল কোম্পানি ভিভো। বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি জানিয়েছেন, শেষ বেলায় এসে ভিভোর সঙ্গে সম্পর্কচ্ছেদ বড় ঝটকা বটে। তবে তাতে খুব একটা আর্থিক সঙ্কটে পড়বে না ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। এমনই দাবি করেছেন তিনি। ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে আরব আমিরাতে শুরু হবে আইপিএল। তার আগে টাইটেল স্পনসর হিসাবে বেশ কয়েকটি বড় সংস্থার নাম ভেসে আসছে। এরই মধ্যে অ্যামাজন-এর নামও শোনা যাচ্ছে। অর্থাৎ, বোর্ড ভিভোর সঙ্গে চুক্তি ভাঙায় খুব একটা চিন্তিত নয়। ভারতীয় ক্রিকেটে লগ্নি করার সুযোগ পেতে মরিয়া একাধিক বড় সংস্থা। বিসিসিআই তাই চিন্তিত নয়।

[৫] টাইটেল স্পনসর যে অর্থ দেয় তার অর্ধেক আটটি ফ্র্যাঞ্চাইজির মধ্যে ভাগ কওে দয়ে হয়। ভিভো ২০১৮ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত করা চুক্তি অনুযায়ী ২ হাজার ১৯০ কোটি টাকা দিয়েছে বিসিসিআইকে। অর্থাৎ প্রতি বছর প্রায় ৪৪০ কোটি টাকার বিনিয়োগ করেছিল এই চাইনিজ সংস্থা। সৌরভ গাঙ্গুলি এদিন বলেছেন, আমি আর্থিক সঙ্কট বলব না। তবে হ্যাঁ, এটা ধাক্কা বটে! বিসিসিআই যথেষ্ট শক্তিশালী একটি সংস্থা। ক্রিকেটার, কর্তা, দর্শকরা এই সংস্থাকে শক্তিশালী করে তুলেছে। নতুন স্পনসর পাওয়ার ব্যাপারে আমরা আশাবাদী। তাই এটাকে বড় ক্ষতি বলে আমরা ধরছি না। – জি নিউজ

 

সর্বাধিক পঠিত