প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মির্জা ইয়াহিয়া: চাহিদা আছে বলে যা ইচ্ছা তা উৎপাদন ও বিক্রি করা ভালো কাজ হতে পারে না

মির্জা ইয়াহিয়া: একটা খবর দেখলাম। আমলকির কেজি নাকি ৫০০ টাকা। এক জুনিয়র বন্ধুকে বিষয়টি বললাম। সে জানালো, দুই দিন আগে ১০ টাকায় তাকে মাত্র পাঁচটি আমলকি দিয়েছে এক বিক্রেতা। খোঁজ নিয়ে যেটা জানতে পারলাম, তা হলো করোনাভাইরাস আসার পর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং সর্দি-কাঁশি থেকে রক্ষায় সবাই বেশি বেশি ভিটামিন-সি খাচ্ছে। সেই কারণে এবারের মৌসুমে আমলকির দাম আগের বছরের চেয়ে ডাবলেরও বেশি। করোনা মহামারি আমাদের অনেক অভ্যাস পরিবর্তন করে দিয়েছে। আবার অনেক কিছুর দামও নিয়ন্ত্রণ করছে। প্রথমদিকে দেখলাম লেবুর দাম রাতারাতি তিন-চারগুণ বেশি হয়ে গেলো। তখন বাজারে লেবু পাওয়াই ছিলো সৌভাগ্যের বিষয়। কারণ সবাই বেশি বেশি কিনে মজুদ রাখছিলো। টানা এক মাসের মতো এই পরিস্থিতি ছিলো। পরে আস্তে আস্তে স্বাভাবিক হয়ে গেছে লেবুর দাম।

আমাদের দেশে করোনার আবির্ভাবের শুরুর দিকে মাস্ক ও স্যানিটাইজার নিয়েও বাজারে একটা হুলুস্থুল কাণ্ড শুরু হয়ে গিয়েছিলো। যে মাস্ক আগে ছিলো ৫ টাকা তা কিনতে হয়েছে ৫০ টাকায়। বাধ্য হয়ে সরকার ব্যবস্থা নেয়। এতে সেই মাস্ক ৩০ টাকায় বেচতে বাধ্য হয় তারা। দাম বেশি হলেও মাস্ক পাওয়া যাচ্ছিলো। কিন্তু মার্চ মাসের মাসের শেষদিকে ঢাকা শহরের কোনো দোকানে স্যানিটাইজার পাওয়াই যাচ্ছিলো না। আগেই বেশি দামে কিনে অনেকে ঘরে মজুদ করে। পরবর্তী সময়ে অনেক কোম্পানি বিভিন্ন ধরনের স্যানিটাইজার বাজারে নিয়ে আসে। এ কারণে দোকানে পর্যাপ্ত স্যানিটাইজার পাওয়া যাচ্ছে।
তবে ফুটপাতে ও পাড়া-মহল্লার দোকানে ননব্যান্ডের স্যানিটাইজার বিক্রি হচ্ছে। এগুলো কতোটা মানসম্পন্ন এ নিয়ে আমার সন্দেহ আছে। চাহিদা আছে বলে যা ইচ্ছা তা উৎপাদন ও বিক্রি করা ভালো কাজ হতে পারে না। এ বিষয়ে ক্রেতাদের সতর্ক হতে হবে। প্রশাসনেরও নজরদারি প্রয়োজন। কিন্তু আমাদের দেশে আইন থাকলেও প্রয়োগ হয় কম। বাজারে সবসময় এটাই দেখা যায়। এই পরিস্থিতির পরিবর্তন দেখতে চাই। আশা করি, সবাই সচেতন হবে। নিজ নিজ জায়গায় দায়িত্বশীল আচরণ করবে। ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত