প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] রিজেন্টের সাহেদ-মাসুদ পারভেজ ১০, তারেক শিবলীর ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

আদালত প্রতিবেদক : [২] করোনা পরীক্ষার নামে ভুয়া রিপোর্টসহ বিভিন্ন প্রতারণার অভিযোগের মামলায় রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম এবং রিজেন্ট গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মাসুদ পারভেজের ১০ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। তারেকের আরেক সহযোগি তরিকুল ইসলাম ওরফে তারেক শিবলীর ফের সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

[৩] শুনানি শেষে গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টার দিকে ঢাকা মহানগর হাকিম মোহাম্মদ জসীম এ আদেশ দেন।

[৪] এরআগে সকাল সাড়ে ১০ টার কিছু আগে ডিবি পুলিশ এই তিন আসামিকে আদালতে হাজির করে। কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে সরাসরি তাদের এজলাসে তোলা হয়। এরপর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) এস এম গাফফারুল আলম আসামি সাহেদ ও মাসুদ পারভেজের ১০ দিন করে এবং তারেক শিবলীর পুনরায় ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন।

[৫] রাষ্ট্রপক্ষে ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু, ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পিপি কে এম সাজ্জাদুল হক শিহাব, হেমায়েত উদ্দিন খান হিরন প্রমুখ আইনজীবী তিন আসামিরই ১০ দিন করেই রিমান্ড মঞ্জুরের প্রার্থণা করেন। তারা বলেন, আসামিরা জনগণের সাথে প্রতারণা, বিশ্বাস ভঙ্গ করেছে, জাল জালিয়াতি করেছে। ন্যায় বিচারের স্বার্থে রিমান্ডে নিয়ে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হোক।

[৬] আসামিদের পক্ষে অ্যাডভোকেট নাজমুল হোসেন, মনিরুজ্জামান, শাহ আলম প্রমুখ আইনজীবী রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন শুনানি করেন। তারা বলেন, আমাদের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী দক্ষ। তাই এই তদন্তকালীন সময়ে যে সময় তারা পাবেন সেই সময়ের মধ্যে এই মামলার সুষ্ঠু তদন্ত করা সম্ভব। এখানে রিমান্ডের কোনো প্রয়োজন নেই। তাছাড়া আসামিরা অসুস্থ। সাহেদের বাবা কিছুদিন আগে মারা গেছেন। সেই শোক তিনি এখনো কাটিয়ে উঠতে পারেননি। আসামিরা বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিক। মামলার বিচার বাধাগ্রস্থ করবেন না। তারা দেশ ছেড়ে কোথাও যাবেন না। মানবিক বিবেচনায় আসামিদের রিমান্ড বাতিল পূর্বক জামিনের প্রার্থণা করছি।

[৭] রিমান্ড শুনানি চলাকালে কিছু বলার জন্য আদালতের কাছে অনুমতি চান সাহেদ।বিচারক তাকে বলার অনুমতি দেন। এ সময় সাহেদ কেঁদে ফেলেন বলে জানান আইনজীবীরা। আদালতে নিজেই পক্ষেই সাফাই গাইলেন সাহেদ।

[৮] সাহেদের বরাত দিয়ে আইনজীবীরা জানান, করোনা রোগীদের পরীক্ষা যখন বাংলাদেশে শুরু হয়, সেই সময় সরকারের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে রিজেন্ট লাইসেন্স নেয়। সরকারের সাথে করোনা রোগীদের চিকিৎসার চুক্তি প্রথম রিজেন্ট হাসপাতালের সাথেই হয়। লাইসেন্সের মেয়াদ আছে। বাংলাদেশে তারাই প্রথম করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য এগিয়ে আসে। সাহেদ নিজেও করোনায় আক্রান্ত হয়ে অসুস্থ হয়ে যান। তার বাবাও করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান। তার এমডিসহ অনেক অফিসারই আক্রান্ত হয়েছেন।

[৯] আইনজীবীরা বলেন, রিজেন্ট হাসপাতাল করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য সর্বদা প্রস্তুত ছিল। তারা সেবা করেছেন। জনগণের সেবা করতে গিয়ে সাহেদ নিজেও করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। তিনি সুস্থ হতে না হতে এ রকম একটা রিপোর্ট চলে আসলো। তার বিরুদ্ধে ভুল তথ্য ছড়ানো হচ্ছে এজন্য থানায় একটি জিডি করার কথাও আদালতকে জানান তিনি। তিনি অনেক অসুস্থ, পা ফুলে গেছে বলেও জানান তিনি। এসময় তিনি আদালতের কাছে ন্যায় বিচার প্রার্থণা করেন।

[১০] সাহেদ কিভাবে গ্রেপ্তার হলেন এ বিষয়ে আদালতকে কিছু জানিয়েছেন কি না জানতে চাইলে আইনজীবীরা বলেন, গ্রেপ্তারের বিষয়ে সাহেদ আদালতকে কিছু জানাননি।

[১১] উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে সাহেদ ও মাসুদ পারভেজের ১০ দিনে ১০ দিনই এবং তারেক শিবলীর পুনরায় সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বেলা ১১ টা ১০ মিনিটের দিকে ডিবি পুলিশ আসামিদের আদালত প্রাঙ্গন থেকে নিয়ে যায়।

[১২] এদিকে সাহেদকে আদালতে আসাকে ঘিরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়। অতিরিক্ত আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী নিয়োজিত দেয়া হয়। সামাজিক নিরাপত্তার অজুহাতে সাংবাদিকদেরও প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। আদালতে আসা বিচারপ্রার্থীদের চলাচল কিছুটা সময়ের জন্য নিয়ন্ত্র করা হয়।

[১৩] সাহেদকে বুধবার ভোরে সাতক্ষীরা সীমান্ত এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। পরে হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় আনা হয়। র‌্যাবের সদর দপ্তরে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে নিয়ে রাজধানীর উত্তরায় তার কার্যালয়ে অভিযান চালানো হয়। আর গত ৯ জুলাই তারেক শিবলীকে রাজধানীর নাখালপাড়া এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরদিন আদালত তারেক শিবলীর ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। আর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গাজীপুরের কাপাসিয়া থেকে রিজেন্ট গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মাসুদ পারভেজকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

[১৪] গত ৬ জুলাই র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলমের নেতৃত্বে রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুর কার্যালয়ে অভিযান চালানো হয়। পরীক্ষা ছাড়াই করোনার সনদ দিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণা ও অর্থ হাতিয়ে নিয়ে আসছিল তারা। র‌্যাবের ভ্রাম্যমান আদালত অন্তত ছয় হাজার ভুয়া করোনা পরীক্ষার সনদ পাওয়ার প্রমাণ পায়। একদিন পর গত ৭ জুলাই স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশে র‌্যাব রিজেন্ট হাসপাতাল ও তার মূল কার্যালয় সিলগালা করে দেয়। রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে ওই দিনই উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা দায়ের করা হয়।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত