প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সরাইলে কোভিড-১৯ নিয়ে অফিস করলেন ইউপি সচিব

আরিফুল ইসলাম : [২] ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে শরীরে কোভিড-১৯ নিয়ে অফিস করলেন এক ইউপি সচিব। দপ্তরে কাজ করা অবস্থায় দুপুরের পর তার নমুনা রিপোর্ট পজিটিভ আসার বিষয়টি স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে জানানোর পরও ওই ইউপি সচিব তড়িঘড়ি কর্মস্থল ত্যাগ করে বাড়ি ফিরে যান।

[৩] মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) দুপুরের পর সরাইল উপজেলার পানিশ্বর ইউনিয়ন পরিষদে এ ঘটনাটি ঘটে।

[৪] মঙ্গলবার রাতে পানিশ্বর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মো. সুমন মুন্সি বলেন, আমাদের পরিষদের সচিব শেখ রাজিবুর রহমান কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়েছেন। আজ (মঙ্গলবার) দুপুরের পর তার নমুনা রিপোর্ট পজিটিভ আসার সংবাদ স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে জানানো হয়। এসময় সচিব শেখ রাজিবুর রহমান পরিষদের দপ্তরিক কাজে ব্যস্ত ছিলেন। কোভিড-১৯ পজিটিভ শুনে তিনি তাড়াতাড়ি নিজের মোটরসাইকেল নিয়ে বাড়ি চলে যান।

[৫] ইউপি সদস্য আরও বলেন, কিছুদিন আগে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হন আমাদের পরিষদের চেয়ারম্যান দ্বীন ইসলাম ও পরিষদের ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তা রফিক মিয়া। ক’দিন আগে তারা কোভিড মুক্ত হন।

[৬] এদিকে উপজেলার চুন্টা ইউপির রসুলপুর গ্রামের শেখ সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে ইউপি সচিব শেখ রাজিবুর রহমান করোনা পজিটিভ সংবাদ শুনে অফিস থেকে বাড়িতে ফিরে এলেও তিনি স্বজনদের কাছে বিষয়টি চেপে রেখে স্বাভাবিক চলাচল করছেন বলে স্থানীয় প্রতিবেশী একাধিক ব্যক্তি বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

[৭] সরাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. আনাস ইবনে মালেক বলেন, মঙ্গলবার নতুন করে তিনজনের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। এদের মধ্যে পানিশ্বর ইউপির সচিব শেখ রাজিবুর রহমানের রিপোর্ট পজিটিভ। এছাড়াও মঙ্গলবার রিপোর্টে দ্বিতীয় নমুনা পরিক্ষায় ৮জনের পজিটিভ এসেছে। এতে উপজেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১০১জন। এদের মধ্যে ইতোমধ্যে ৬০জন সুস্থ হয়েছেন।

[8] তিনি আরো বলেন, ইউপি সচিব শেখ রাজিবুর রহমান গত ১২ জুলাই নমুনা পরিক্ষার জন্য দিয়েছিলেন। নমুনা দেয়ার পর তিনি হোম কোয়ারান্টাইনে থাকার উচিত ছিল। অফিস করা তার ঠিক হয়নি। কারণ অন্তত ১০দিন যারা তার সংস্পর্শে আসবে, তাদের করোনা হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকবে। সম্পাদনা : হ্যাপি

সর্বাধিক পঠিত