প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এ বি এম কামরুল হাসান : পিপিই পরে মাইক্রোবাসে !! ওহ মাই গড !!

তিনমাস আগে যেদিন শুনেছিলাম ঢাকার একটি হাসপাতালে পিপিই বিতরণ হচ্ছে ব্যক্তিগত পর্যায়ে, সেদিন আমার গা শিউরে উঠেছিল। এটা তো ব্যক্তিগত সংগ্রহের বস্তু নয়, প্রাতিষ্ঠানিক সংগ্রহের। ফোন করে পরিচিতজনকে বুঝিয়েছিলাম। কে শোনে কার কথা !! পিপিই বিষয়ে প্রশিক্ষণের গুরুত্ব সেদিন উপলব্ধি করি । আজ আবার একটি সংবাদের একটি লাইন পড়ে গায়ের লোম খাড়া হয়ে গেছে । বাংলাদেশ প্রতিদিনের শিরোনাম ‘দুই মাসে চিকিৎসক স্বাস্থ্যকর্মী থাকা খাওয়া খরচ ২০ কোটি টাকা!’ ।

শিরোনাম বিষয়টি আজকের আলোচ্য বিষয় নয় । খবরের ভেতরের একটি লাইন হচ্ছে, স্বাস্থ্যকর্মীদের হোটেল থেকে আনা-নেয়ার জন্য যে মাইক্রোবাস দেয়া হয়েছিল তার বেশিরভাগ ছিল নন-এসি। পিপিই পরে গাড়িতে বসা যেত না গরমে । সত্যি হলে অভিযোগ মারাত্মক !! পিপিই পরে মাইক্রোবাসে !! ওহ মাই গড !! ডনিং (পিপিই পরা), ডফিং (পিপিই খোলা ) এলাকা থাকবে হাসপাতালে । পিপিই পরবেন হাসপাতালে, খুলবেন হাসপাতালে । ওটা পরে মাইক্রোবাসে কেন ? অবশ্য অ্যাম্বুলেন্স এর বিষয় ভিন্ন। একবার পিপিই পরে পজিটিভ রোগী দেখার পর এটা এটম বোমা হয়ে যায় । আপনি ওটা পরে মাইক্রোবাসে উঠছেন মানে আপনি এটম বোমা সাথে নিয়ে ঘুরছেন । ভাবা যায় ?

পিপিই পরে যত্রতত্র ঘোরাকে অধিক সংখ্যক স্বাস্থ্যকর্মী আক্রান্ত হবার একটা কারণ বলে অনেকে মনে করছেন । এটার সমাধানে জরুরিভিত্তিতে প্রশিক্ষণ অত্যাবশ্যক । লেখকঃ: প্রবাসী চিকিৎসক, কলামিস্ট। ফেইসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত