প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ছোট ভাইকে ফাঁসাতে গিয়ে বড় ভাই শ্রীঘরে

বিল্লাল হোসেন, কালীগঞ্জ প্রতিনিধি : [২] গাজীপুর জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের দোলান বাজার এলাকার কলাপাটুয়া গ্রামের মৃত ইব্রাহীম খলিলের ছেলে ইমরান হোসেন (৩০) গরু-মহিষের মাংসের ব্যবসা করেন। তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভালই চলছিল। পুরো উপজেলার নামকরা সব হোটেল মালিকরা তার কাছ থেকেই মাংস ক্রয় করে তাদের হোটেল চালাতেন। তার ব্যবসা দেখে তার ছোট ভাই ইকবাল হোসেন (২৭) একই ব্যবসা শুরু করে। কিন্তু বছর না ঘুরতেই ইমরানের চেয়ে বেশি ক্রেতাকে ইকবাল তার দোকানমূখী করতে সক্ষম হয়। আর এটাই ইকবালের জন্য কাল হয়। শুরু হয় ছোট ভাই ইকবালের সাথে বড় ভাই ইমরানের ব্যবসায়িক দন্ধ।

[৩] স্থানীয় ও থানা সূত্র জানায়, ২৬ জুন রাতে ওই ইউনিয়নের উত্তর জামালপুর গ্রামের মো. বাতেন মিয়ার ছেলে আসিফ মিয়া (২৪) থানা পুলিশকে জানায় কলাপাটুয়া গ্রামে ইকবাল হোসেনের বাড়িতে বিয়ার ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে থানার এসআই মো. মোয়াজ্জেম হোসেন ও এএসআই ওমর ফারুক সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ওই গ্রামে অভিযান চালায় এবং ইকবালের লাকড়ী রাখার ঘর থেকে ১০ পিস বিদেশি বিয়ার উদ্ধার করে।

[৪] ইকবাল হোসেন জানান, বড় ভাই ইমরান এর আগেও তাকে ১০ পিস ইয়াবা দিয়ে ফাঁসিয়েছে। সেই মামলায় তাকে ২২ দিন কারাবাস করতে হয়েছে বলেও জানান তিনি। ওই মামলার বাদী কালীগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. মোয়াজ্জেম হোসেন ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এর আগে ১০ পিস ইয়াবা দিয়ে ইকবালকে আদালতে চালান করা হয়েছিল।

[৫] কালীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ একেএম মিজানুল হক বলেন, প্রাথমিকভাবে ইমরানে তার ছোট ভাইয়ের সাথে ব্যবসায়িক দন্ধের বিষয়টির সত্যতা মিলেছে। এছাড়া ১০ পিস বিদেশী বিয়ার দিয়ে ইকবালকে ফাঁসানো বিষয়টিও সে স্বীকার করেছে। এ ব্যাপারে থানায় একটি নিয়মিত মামলা হয়েছে। ইমরানকে আদালতের মাধ্যমে গাজীপুর জেলে প্রেরণ করা হয়েছে। মামালার বাকী আসামীদের আটকের ব্যাপারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত