প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রবিউল আলম : জাতির জনকের ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’, ‘কারাগারের রোজনামচা’, ও ‘আমার দেখা নয়া চীন’ থেকে কী শিখলাম আমরা?

জাতির কাছে স্পষ্ট শেখ হাসিনার উন্নয়ন ও বিশ্বাসের রাজনীতি। ভালোবাসার মাধ্যমে যা অর্জন করা যায়, বাহুশক্তির মাধমে তা কোনো দিনই সম্ভব নয়, রাজনীতি শক্তি প্রদর্শনের স্থান নয়। করোনার আপদকালীন সময় বিশ্ব আজ দিকনির্দেশনাহীন, সঠিক নেতৃত্বের অভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে। সততার রাজনীতি কিছুটা হলেও আলোর পথ দেখাতে পারে। শেখ হাসিনা বারবার প্রমাণ করার চেষ্টা করেছেন, করছেন। খাদ্য সহায়তা থেকে চাল ডাল চোরদের প্রতিরোধ, চিকিৎসার প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা, নিয়ন্ত্রণ ও ব্যবস্থাপনার নির্দেশনা এখন পর্যন্ত আমার কাছে সঠিক মনে হয়েছে। এই গরিব দেশের প্রধানমন্ত্রী তার স্বাধের মধ্যে থেকে এই অজানা রোগের প্রতিরোধ ও প্রতিশোধক আবিস্কারের জন্য বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয় চলতে হচ্ছে। রাজনীতিকে পরিপূর্ণ সঠিক ব্যবহার করতে পেরেছে, আমি তা বলবো না। কারণ রাজনীতি এখন নিজস্ব প্রতিযোগীতায় চলছে। প্রশাসন ও দল সম্পূর্ণ আলাদা হয়ে পরেছে।
ঘরে ভেতরে ঘর, দলের মধ্যে দল গড়ে উঠেছে নেতা, চেয়ারম্যান, মেম্বর কাওন্সিলর, এমনকি কিছু মন্ত্রী-এমপি নিজের শক্তি দেখাতে ব্যস্ত। বিশ্ব রাজনীতির কথা জানা নেই, তবে বাংলাদেশে যে রাজনীতিই নেইÑ এ কথা আমি হলফ করে বলতে পারি। একটি স্বাধীন দেশে, রাজনীতিতে স্বাধীনতা খুঁজেন নেতারা। দলের অঙ্গীকারনামায় সাক্ষর করে রাজনৈতিক হন। অর্থ প্রাচুর্য অর্জনের মাধ্যমে নিজে মতকে দলের উপর বিস্তারের প্রতিযোগিতায় নামেন, রাজনীতিকে ব্যবসার হাতিয়ারের মাধ্যমে। জাতির জনকের আত্মজীবনী, ‘কারাগারের রোজনামচা’, ‘নয়াচিন’ থেকে আমরা কি শিখলাম? রাজনীতি এখন শেখ হাসিনার কাছে, মানব সেবার মাধ্যমে। পঁচাত্তরের পট-পরিবর্তনের রাজনীতির দেখার দুর্ভাগ্য হয়েছে। মানুষ কি এমনই হয়? এমনি কি রাজনীতি হয়? লেখক : মহাসচিব বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত