প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এম এম মাহবুব হাসান : করোনা চিকিৎসা এতো সহজ!

 এম এম মাহবুব হাসান  : গত ১২ মে আমাদের একজন ক্লায়েন্ট বার বার ফোন করছেন, ইফতার শেষ করে ফোন ব্যাক করলাম। খুব উদ্বেগ ও উৎকন্ঠা নিয়ে জানালেন- তার ড্রাইভারের করোনা পজিটিভ, আজ বেশ জ্বর ও গলা ব্যথা, কোন পরিচিত ডাক্তার থাকলে যেনো দয়াকরে এখনই একটু সাহায্য করি। ড্রাইভারের করোনা পজিটিভ জেনে আমাদের ক্লায়েন্টের পুরো পরিবারই মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন। কারণ যেদিন ড্রাইভার করোনা পরীক্ষা করিয়েছে সেদিনও সে তার মালিকের বাসায় বাজার করে দিয়ে গেছে। তাই ড্রাইভারের করোনা মালিকের বড় দুশ্চিন্তার কারণ।

আমি অভয় দিলাম এবং যে কোন বিপদে পাশে থাকার অঙ্গীকার করলাম। আমার কথায় তিনি কিছুটা নির্ভার হলেন, বেশ স্বস্তিও পেলেন। ড্রাইভারও আমাকে চেনে। তাই মালিকের রেফারেন্সে একটু পরেই ফোন করলো। মনে হলো ড্রাইভারের গলা দিয়ে কথা বের হচ্ছে না। করোনা পজিটিভ জেনে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে। স্যার.. স্যার বলে নিজের পরিস্থিতি বুঝানোর চেষ্টা করে যাচ্ছে। আমার কথার টোনে করোনা পজিটিভের বিষয়টিকে আমি খুব স্বাভাবিক ঘটনা হিসেবে নিয়েছি সেটা বুঝিয়ে দিলাম, আর বললাম “ধুর বেটা এটা কোন রোগই না, টেনশনের কিছুই নাই, এখনই অষুধ দিচ্ছি, কয়েকদিনেই ভালো হয়ে যাবা!”

মনে হলো ড্রাইভার আমার কথা শুনে প্রাণ ফিরে পেলো! মোবাইলে ভেসে আসা আঠালো কন্ঠ শুনে মনে হলো তার চোখের কোনে জলও এসে থাকতে পারে। ফোন রেখে নিজের আত্মবিশ্বাসের জায়গা থেকে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়’ এর পেলিয়েটিভ মেডিসিন বিভাগের মেডিকেল অফিসার আমার অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ডাক্তার মেহেদী হাসান ভাইয়ের দেওয়া একটি প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী অষুধ সেবনের পরামর্শ দিলাম। আর ডাক্তারকে জাস্ট জানানোর জন্য বললাম  যে, মেহেদী ভাই আমার পরিচিত এক রুগীর এই এই লক্ষণ ছিলো আপনার আগের দেওয়া ঐ পরামর্শটি পাঠিয়ে দিয়েছি কিন্তু। আপনাকে আর বিরক্ত না করে শুধু অষুধের তালিকাটি আপানাকে টেক্সট করেছি। কোন কারেকশন থাকলে দয়াকরে একটু জানান প্লিজ।

আমার কথা শুনে তিনি একটু হাসলেন। বললেন, আপনিতো বেশ ভালো অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন ভাই। ঔষধ একদম সঠিক আছে। তিনি জিজ্ঞেস করলেন- আরেকটি অষুধও ছিলো ওটা দেননি কেনো? বললাম – কাশি নেই তাই ওটা কেটে দিয়েছি.. কাশি হলে Doxiva 400mg দুইবেলা খেতে বলবো। তিনি আবারো হাসলেন, বললেন- ওকে। আর কোন সমস্যা হলে আমাকে জানাইয়েন।

অষুধগুলোর পরামর্শ দিলাম, তবে কেনো যেনো মনে হলো যে প্রয়োজন ও অপ্রতুল্যতা মানুষের পছন্দকে এভাবেই হার মানায়। এতো বড় রোগ, অথচ বড় কোন ডাক্তারের নাগাল পাওয়া যায় না। কয়েকদিন আগে আমার দুধের মেয়ে শিশুর টনসিলের জন্য ভালো ডাক্তারের অভাবে এক আনাড়ি ডাক্তারকে দেখাতে বাধ্য হলাম। ড্রাইভারকে আমি নিজেই বেশ কয়েকবার ফোন করে খোঁজ খবর নিচ্ছিলাম, তার ফিডব্যাকে বুঝতেছিলাম অষুধগুলো কাজ করছে।

গত ২২ মে একটি দারুণ ঘটনা ঘটলো। তারাবির নামাজ পড়ে ঘুমঘুম ভাব। সাইলেন্ট মোডে থাকা ফোনে ভুম ভুম করে বাজে এক প্রকার আওয়াজ হচ্ছে। রোজা শেষে কাঁচা ঘুম ভাঙানো ফোনের এমন বাজে আওয়াজে বৌ বাইন মাছের মতো হঠাৎ মোচড় দিয়ে উঠলো। সারাদিন তার অনেক ধকল গেছে। চোখ মেলে দেখলাম, সে মহাঘুমের ভানের আছে। ভাবলাম বাইরে বইয়ে যাওয়া ঝড়ের রেশ মশারির ভেতরে ঢুকাবো না। বাম দিকে মোচড় দেওয়া বৌয়ের ডান হাত যেখানে শেষ হয়েছে ফোনটি তার থেকে সামান্য একটু দূরে। তাকে ঘুমন্ত ধরে নিয়েই ফোনটি কাছে আনলাম। কিন্তু ফোনে কলারের নাম দেখে খুব মেজাজ খারাপ না হলেও সামান্য বিরক্তই লাগলো। ফোন রিসিভ করলাম। কিন্তু ওপাশের আওয়াজ ছিলো অন্য রকম। যা ঘুমের সকল অলসতাকে নিমিষেই উড়িয়ে নিয়ে গেলো।

স্যার.. স্যার..। তার কন্ঠে কোন কথাই বের হচ্ছিলো না। পুরোপুরি গত ১২ মে’র বিপরীত ঘটনা। সেদিন করোনা পজিটিভের কষ্টে কথা বলতে পারছিলো না, আজ করোনা নেগেটিভের আনন্দে কথা বলতে পারছে না। সবাই জীবনভর পজিটিভ কিছুর জন্য কতো কিছু করে আর শুধু রোগবালাই ও বিপদ আপদের বেলায় নেগেটিভ রিপোর্টের জন্য কেমন পাগল হয়ে যায়! পরিস্থিতি নিজের কন্ট্রোলে নিতে একটু জোর গলায় বললাম- ‘আরে বেটা কি হয়েছে খুলে বলবেতো’। সে এবার ক্ষণিকের জন্য শান্ত হলো, কিন্তু খুশির জোয়ার আটকাতে ব্যর্থ হয়ে উচ্ছ্বোসিত কন্ঠে এক নি:শ্বাসে জানালো স্যার.. স্যার.. আপনি যা যা বলেছিলেন আমি অক্ষরে অক্ষরে পালন করেছিলাম, আজ আবার নতুন রিপোর্ট হাতে পেয়েছি, রিপোর্ট নেগেটিভ আসছে স্যার..।

এরপর ড্রাইভার সাহেব আর যা যা বললো তাতে আমি কিছুটা আবেগ আপ্লুত না হয়ে পারলাম না। মানুষ সামান্য আনন্দের জন্যও কতো কিছু শেয়ার করে, আর আমি একজন ডাক্তারের একটি পরামর্শ শেয়ার করে এতো আনন্দ কুড়ালাম। যাইহোক, আর ঘুমোতে পারলাম না, সেহরী শেষেও আর ঘুম এলোনা। ভাবলাম- করোনা ভয় ওর মনে তাহলে এমনভাবে ঢুকে গিয়েছিলো? ও কি তাহলে ধরেই নিয়েছিলো যে ওর গাড়ির গতি এখানেই শেষ হতে চলেছে? সেজন্যই কি তাহলে ও এতো দ্রুত ফিরে এলো! বাংলাদেশের সব মানুষগুলো তাহলে এই ড্রাইভারের মতো জীবনের মায়া করছে না কেন? তাহলেতো এরা সবাই দ্রুতগতিতে জীবনে ফিরে আসতো!

১১ ও ১৬ বছরের দুইটি ছেলে এবং স্ত্রীসহ ৪ সদস্যের পরিবার নিয়ে ড্রাইভার দুই রুমের একটি ভাড়া বাসায় থাকে। পরিবারের অন্য কারো এখনো কোন সমস্যা হয়নি। সে এতো ছোট একটি বাসায় থাকা সত্ত্বেও পরিবারের সাথে কঠোরভাবে দুরত্ব বজায় রেখে চলেছে। ডাক্তার মেহেদী ভাইকে তার নেগেটিভ রিপোর্টের সুসংবাদটি দিলাম, তিনি বললেন- এই সাফল্যের কারণ রোগী নিজেই, কারণ তিনি আপানার পাঠানো পরামর্শগুলো শতভাগ মেনে চলেছে তাই এতো দ্রুত রিকোভারি করা সম্ভব হয়েছে। রোগীর কো-অপারেশন ছাড়া কোন রোগই ডাক্তার ভালো করতে পারে না। পুরো ঘটনাটি আমাদের ক্লায়েন্টকে দারুণভাবে স্বস্তি দিয়েছে, একটি বড় খুশির কারণও হয়েছে বটে। আর করোনা দূর্যোগে ঐ ড্রাইভার সাহেবের করোনামুক্ত হবার উচ্ছ্বাস আমাকে কি পরিমাণ খুশির যোগান দিয়েছে তা বলে বুঝাতে পারবো না, তাই সকলের জন্য কিছুটা লিখে শেয়ার করলাম।

লেখক :  এম এম মাহবুব হাসান, ব্যাংকার

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত