প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মোদী সরকারের নীতি নয় ভারতের অর্থনীতি নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে করোনাভাইরাস, বললেন স্বামীনাথান আয়ার

রাশিদ রিয়াজ : [২] বছরের শুরুতেই ভারতের বাণিজ্য ঘাটতি ছিল ১৫.১৭ বিলিয়ন ডলার। ফেব্রুয়ারিতে রফতানি আগের মাসের চাইতে ২.৯ শতাংশ বেয়ে যাওয়ায় আয় হয়েছে ২৭.৬৫ বিলিয়ন ডলার। একই সময়ে আমদানি বেড়েছে ২.৪৮ শতাংশ বেড়েছে যাতে খরচ হয়েছে ৩৭.৫০ বিলিয়ন ডলার। ইয়ন/ ইকোনোমিক টাইমস

[৩] ভারতের প্রখ্যাত অর্থনীতিবিদ স্বামীনাথান আয়ার বলেছেন, করোনাভাইরাসের প্রভাব বছর খানেক থাকলে অর্থনীতিকে তা বিপর্যস্ত করে ছাড়বে। তিনি বলেন তিন মাসেই বিশ^ব্যাপী মন্দার পূর্বাভাস উঁকি দিচ্ছে কিন্তু তার পরবর্তী পরিস্থিতি কিভাবে সামাল দেয়া যাবে তার ওপর আদৌ কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। আরো তিন মাস করোনাভাইরাস থাকলে ভারতের অর্থনীতি গভীর সংকটে পড়বে।

[৪] প্রখ্যাত এই ভারতীয় অর্থনীতিবিদ বলেন ১৯১৮-১৯ সালে স্প্যানিশ ফ্লুতে বিশ্বে ২’শ মিলিয়ন মানুষ আক্রান্ত হওয়ার পর ৫০ মিলিয়ন মানুষ মারা যায়। বর্তমান বিশে^র জনসংখ্যার তুলনায় কয়েক বিলিয়ন মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে মৃত্যুও বিলিয়নকে ছাড়িয়ে যেতে পারে। সবচেয়ে সংকট সৃষ্টি হবে অর্থনীতিতে।

[৫] আয়ার বলেন ঋণ খেলাপির সংখ্যা অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি করতে পারে করোনাভাইরাস। কর্পোরেট খাতের বিশাল দেনা প্রকান্তরে অর্থনীতিতে বড় ধরনের পাওনা হয়ে দাঁড়াবে। সুদের হার কমাতে বাধ্য হবে সরকার। অনেক কোম্পানিরই ঋণ পরিশোধের কার্যত কোনো ক্ষমতাই থাকবে না।

[৬] আয়ার আরো বলেন অর্থনীতির পতন কখনো কোনো সরকারের নীতি নির্ধারণ করে না। এটি নির্ভর করে দুর্যোগের স্থায়ীত্বকালের ওপর। কত দ্রুত তা সংক্রমণ হয় বা আবহাওয়া কতটা তা নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। দুর্ভাগ্য যে সঠিক পরিস্থিতি জানার কোনো উপায় আমাদের হাতে নেই।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত