প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘হবে-তেই আটকে থাকলো বিএনপি’
১৫ ফেব্রুয়ারি দেশব্যাপি বিক্ষোভ সমাবেশের ঘোষণা দিয়েই খালেদা জিয়ার কারাবন্দির দুই বছর পার করলো দলটি

শাহানুজ্জামান টিটু: সরকার পতন আর গণ অভ্যুত্থানে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে দুই বছর ধরে প্রায় প্রতিটি সভা সমাবেশে বলে আসছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের পাতি নেতা থেকে শুরু করে শীর্ষনেতারা।

শনিবার বিএনপি প্রধান খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে রাজধানীতে সমাবেশে এই কথায় পুনঃরাবৃত্তি করলেন নেতারা। তাদের মুখে যতটা না মুক্তির কথা শোনা যায়, বাস্তবতা ছিলো একেবারেই ভিন্ন। খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্তরিকতা নিয়ে নীতিনির্ধারকদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন কেউ কেউ। দুই বছরের মধ্যে কার্যকর কোনো আন্দোলন গড়ে তোলার ব্যর্থতার অভিযোগ কর্মী সমর্থকদের।

বিগত দিনে দলের সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধির নামে দীর্ঘ সময় নিয়েছেন শীর্ষনেতারা।আন্দোলনের নামতে নেতাদের গড়িমসির কারণে প্রায় বছরখানেক আগে রাজধানীর রমনা ইঞ্জিনির্য়াস ইনস্টিউটিশনে কর্মীদের তোপের মুখে পড়েন মির্জা ফখরুল, ব্যারিস্টার মওদুদসহ সিনিয়র নেতারা।

কারাবাসের দুই বছর পুর্তিতে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সড়কে অবস্থান নেয়। দুপুর ২টায় সমাবেশ শুরু হয়। নেতাকর্মীরা আশা করেছিলো সমাবেশ থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জোরালো কোনো কর্মসূচি দেবেন।কিন্তু হতাশ হয়েছেন দলের কর্মীসমর্থকরা। খালেদা জিয়ার মুক্তির নতুন কোনো বার্তা নেই। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বরাবরের মতই বলেছেন অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে মুক্ত করতে হবে। ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, আইনজীবীর অনেক চেষ্টা করেছে পারেন নাই। বেগম খালেদা জিয়া মুক্তি আন্দোলন ছাড়া সম্ভব নয়। আমাদের দুটি আন্দোলন করতে হবে। মির্জা আব্বাস বলেন, গ্রাম প্রর্যায়ে যার যার অবস্থান থেকে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত