প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ডেভেলপারদের ‘বাটপারি’ থেকে সতর্ক থাকবেন মেয়র আতিকুল

সুজিৎ নন্দী: ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেছেন, দেশের কিছু ডেভেলপার বাটপারি করে। এদের থেকে সাবধান থাকবেন।যে ডেভেলপাররা সেখানে কাজ করেছে, তারা কিন্তু দেখিয়েছে সেখানে খেলার মাঠ আছে, কমিউনিটি সেন্টার আছে, বাজার আছে।পরে এসব বিক্রি করে তারা চলে গেছে।এসব বাটপারি থেকে আপনারা হুঁশিয়ার থাকবেন।যারা শুধু নিজেদের স্বার্থ দেখে, জনগণের স্বার্থ দেখে না।

বুধবার উত্তর বাড্ডার সাঁতারকুলে ডিএনসিসির নতুন সম্প্রসারিত পাঁচটি অঞ্চলের ১৮টি ওয়ার্ডে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমের উদ্বোধনের আগে মেয়র আতিকুল ইসলাম এসব কথা বলেন।মেয়র আতিকুল বলেন, এ এলাকায় যেসব খাস জমি আছে কাউন্সিলদের কাছে অনুরোধ করবো এসব আমাদের কাছে দিন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অনুযায়ী জলাশয়ের মধ্যে কোনো ধরনের স্থাপত্য নির্মাণ করা যাবে না।এটা আমাদের প্রতিহত করতে হবে।

তিনি বলেন, আমি ফুটপাতে কোনো অবৈধ দখলদার দেখতে চাই না।এর দায়িত্ব আমাদের কাউন্সিলররা নেবেন।আমার সাথে পুলিশ কমিশনারের আলাপ হয়েছে। আমার নির্বাচনী এলাকার প্রত্যেকটি থানার ওসি সাহেবের সাথে কথা হয়েছে, ডিসিদের সাথে কথা হয়েছে, জয়েন্ট কমিশনারের সাথে কথা হয়েছে। আমি চাই না কোনো জায়গায় কোনোভাবেই ফুটপাত দখল করা হোক।

সরকারি খাসজমি দখলকারীদের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে তিনি বলেন, সিটি মেয়র হিসেবে আমি বলতে চাই, সরকারি জায়গা কিংবা খাসজমি ভরাট করে যদি আপনারা কোনো কিছু নির্মাণ করেন সে মাটি ভরাট কিন্তু আপনাদের জন্য স্থায়ী হবে না। আমি বলছি, আমি থাকা অবস্থায় এক ইঞ্চি জমিও কেউ দখল করতে পারবে না। এসব জনগণের জায়গা। এসব সরকারের জায়গা।এসব কারো ব্যক্তিগত জায়গা নয়।আপনারা বালি ফেলে খাল দখল করে আপনাদের নিজেদের ভবিষ্যৎ গড়বেন আর আমাদের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করবেন না, আগামী প্রজন্মের কথা চিন্তা করবেন না, এটা হবে না।

আতিকুল ইসলাম বলেন, এ এলাকায় কোনো পরিচ্ছন্নতাকর্মী ছিল না। ছিল না কোনো মশকনিধন কর্মী। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আগে যে ইউনিয়নগুলো ছিল সেগুলো ধীরে ধীরে শহরের পর্যায়ে চলে যাচ্ছে। প্রত্যেকটি ইউনিয়নকে আমাদের সিটি করপোরেশনের ওয়ার্ডের ভেতরে আনা হয়েছে। আমরা আজকে যাকে গুলশান-বনানী বলি, সেগুলো কিন্তু আগে ইউনিয়ন ছিল। ঠিক তেমনিভাবেই আজকের এই সাঁতারকুল যেন গুলশানের থেকেও ভালো একটি শহর হয়।

এ সময় ডিএনসিসি প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল হাই, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমোডর এম মঞ্জুর হোসেন, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ৩৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শেখ সেলিম উপস্থিত ছিলেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত