প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ইবিতে আন্দোলন দমনে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ, ২২ শিক্ষার্থী গ্রেফতার

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি : ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রির দাবিতে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচ বিভাগের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন দমন করতে ক্যাম্পাসে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করেছে কর্তৃপক্ষ। আন্দোলন থেকে ২২ শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার ভোররাত ৪টার দিকে তাদেরকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নির্দেশে গ্রেফতার করে ইবি থানা ও কুষ্টিয়া পুলিশ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে ক্যাম্পাসে বুধবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য সভা সমাবেশ নিষিদ্ধ করেছে প্রশাসন।
প্রত্যদর্শীদের সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার সকাল ১১টা থেকে ক্লাস পরীক্ষা বর্জন করে ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া বিজ্ঞান ভবনের সামনে অনশনে নামে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদভুক্ত পাঁচ বিভাগের প্রায় দুই শতাধিক শিক্ষার্থী। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত তারা এ অনশন চালিয়ে যাবার ঘোষণা দেয়।
অনশনে কয়েকজন শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়লেও প্রশাসনের কেউ না আসলে দুপুর দুইটায় অনুষদের ডিন অফিসে তালা ঝুলিয়ে দেয় তারা। এসময় অফিসে অবস্থানরত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা আটকা পড়ে। রাত ৯টায় অবরুদ্ধ কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে উদ্ধার করতে আসেন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মমতাজুল ইসলাম ও ছাত্র-উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. পরেশ চন্দ্র বর্ম্মণ। তারা ভবনের ভিতরে ঢুকলে তাদেরকেও অবরুদ্ধ করে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।
পরে রাত ১২টার দিকে তাদেরবে উদ্ধার করতে আসেন সাবেক প্রক্টর অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান,  প্রক্টর (দায়িত্বপ্রাপ্ত) ড. আনিছুর রহমান ও অধ্যাপক ড. আহসান উল আম্বিয়া। এর আগে রাত ১০টা থেকেই গেটের সামনে অবস্থান নেয় পুলিশ। তারা রাত ৪টা পর্যন্ত সমঝোতার চেষ্টা চালালেও ব্যর্থ হন। এরপর রাত সাড়ে ৪টায় ভিতরে ঢুকে ডিন ও ছাত্র উপদেষ্টাকে উদ্ধার করতে চাইলে ছাত্ররা বাধা প্রদান করে ও শ্লোগান দিতে থাকে। এসময় প্রশাসন পুলিশ গেটের তালা ভেঙে ভিতরে ভিতরে ঢুকে আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয় এবং তাদের উদ্ধার করে। কয়েক দফায় অভিযান চালিয়ে আন্দোলনস্থল থেকে ২২ শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এসময় কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (জেলা বিশেষ শাখা) মোস্তাফিজুর রহমান, মিরপুর সার্কেলের এএসপি ফারজানা ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে বুধবার সকাল ৯টার দিকে মাইকিং করে ক্যাম্পাসে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করে কর্তৃপক্ষ। একইসাথে শিক্ষার্থী স্ব স্ব পরিচয়পত্র সাথে রাখতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া কোন বিভাগে ক্লাস-পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। অপরদিকে বুধবার সকাল ১০টা থেকে আটককৃত শিক্ষার্থীদের মুক্তি ও দাবি আদায়ের লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করছে আন্দোলনকারীরা।
ইবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রতন শেখ জানান, গ্রেফতারকৃত শিক্ষার্থীরা পুলিশি হেফাজতে আছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-উর-রশিদ আসকারী বলেন, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পেছনে ভিন্ন কোন কারণ রয়েছে। কুষ্টিয়া ঝিনাইদহ জেলার গোয়েন্দাদের সাথে কথা হয়েছে তারা আসল ঘটনা উদঘাটন করতে কাজ করছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত