প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে একশ্রেণির শিক্ষক গড়ে উঠেছেন, যাদের প্রধান কাজ যেন নির্বাচন আর পদ-পদবির পেছনে দৌড়ানো

কামরুল হাসান মামুন : আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে একশ্রেণির শিক্ষক গড়ে উঠেছেন যাদের প্রধানতম কাজ যেন নির্বাচন আর পদ-পদবির পেছনে দৌড়ানো। উন্নত দেশে শিক্ষকরা শিক্ষকতার শুরুর ভাগে শিক্ষা ও গবেষণায় নিজেকে নিবেদিত করে। ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক গড়ে তুলতে চেষ্টা করে। ক্যারিয়ারের এই পর্যায়ে সাধারণত কেউ কোনো প্রশাসনিক দায়িত্ব নিতে চায় না। আমরা কী দেখছি? কোনো রকমে একটি পিএইচডি করে নামের আগে একটি ডক্টরেট লাগাতে পারলেই মনে করে মঞ্জিলে মকসুদে পৌঁছে গেছি।

পিএইচডি করার মাধ্যমে কেবল গবেষণা করতে পারার প্রাথমিক ট্রেনিংপ্রাপ্ত হলো। ঠিক এই সময়টাই রিটার্ন দেয়ার সময়। এই সময়ই ছাত্রছাত্রীদের দেয়ার শ্রেষ্ঠ সময়। একজন শিক্ষককে পিএইচডির পেছনে সময় এবং অর্থসহ প্রতিষ্ঠানেরও অনেক ইনভেস্টমেন্ট আছে। এসব লগ্নি অপচয়ে পর্যবসিত হয় যদি পিএইচডি করে এসেই ফুলটাইম রাজনীতিতে নেমে পদ পদবির হর্স ট্রেডিং শুরু করে দেয়। সম্ভবত আমরা অধিকাংশই বুঝতেই পারি না এটা আমাদের কতো বড় সৌভাগ্য যে, আমরা শিক্ষক হতে পেরেছি। কেউ বিলিওনিয়ার হওয়ার জন্য শিক্ষক হয় না। শিক্ষক হওয়ার সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো আমরা জ্ঞানের প্রবাহে থাকতে পারি। একটি মানুষের জীবনে এর চেয়ে বড় প্রাপ্তি আর কী হতে পারে?

প্রশাসক হওয়ার যদি এতোই ইচ্ছে তবে বিসিএস দিয়ে ওই পথে যাওয়া উচিত ছিলো। সেই সত্যিকারের শিক্ষক যাকে প্রশাসনিক দায়িত্ব এমনকি ভিসি বানাতে চাইলে গবেষণার ক্ষতি কিংবা শিক্ষকতার আনন্দ থেকে বঞ্চিত হওয়ার কথা চিন্তা করে অপারগতা প্রকাশ করবে। আমরা কী সেই শিক্ষক দেখি? পিএইচডিটা আমাদের দেশে

এখন অর্নামেন্ট হয়ে গেছে। এখন আমলা এমনকি অবসরপ্রাপ্ত আমলারাও এই ডিগ্রির পেছনে ছুটছে। ওই বয়সে একটি পিএইচডি ডিগ্রি দিয়ে সে কী করবে? পিএইচডি ডিগ্রিটাইবা কীভাবে বাগালো? কথা নেই বার্তা নেই হঠাৎ করে এক সুন্দর সকালে নামের আগে ড. লাগিয়ে ফেললো? কী গবেষণা করলো? উদ্দেশ্য একটাই এইটা দিয়ে শেষ বয়সে কিছু ফায়দা হাসিল করা। এর পেছনে বিন্দুমাত্র সৎ উদ্দেশ্য নেই। কাউকে এটা লাগিয়ে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের সরাসরি অধ্যাপক হয়ে যেতেও দেখি। অধ্যাপক হতে হলে একটি সিঁড়ি আছে। আর সিঁড়ি না বেয়ে অধ্যাপক হতে হলে ব্যতিক্রম হতে হবে যেমন স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের মারিয়া মির্জাখানি হয়েছিলেন। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত