প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

টি-টোয়েন্টিতে সবচেয়ে বেশি ফাইনাল খেলার রেকর্ড সাকিবের!

নিজস্ব প্রতিবেদক : দুর্ভাগ্য যেন পিছু ছাড়ছে না সাকিব আল হাসানের। বিপিএলে টানা দুইবার ফাইনালে এসে শিরোপা হারিয়েছে সাকিবের দল ঢাকা ডাইনামাইটস। পঞ্চম আসরে রংপুরের কাছে আর গতকাল রাতে কুমিল্লার কাছে হেরে শিরোপা খুঁইয়েছে ঢাকা। মনটা একটু ভারই ছিল সাকিবের। তারপর ম্যাচ শেষেই শুনলেন দুঃসংবাদ! আঙুলের পুরোনো চোট নতুনভাবে লাগায় নিউজিল্যান্ড সফরে যাওয়া হচ্ছে না তার।

গতকাল বিপিএলের ফাইনাল খেলার পর সাকিবের আইপিএল দল সানরাইজার্স হায়দরাবাদ একটা পরিসংখ্যান পোস্ট করেছে নিজেদের ফেসবুক পেজে। পরিসংখ্যানে তারা দেখিয়েছে, বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব এখনো পর্যন্ত আন্তর্জাতিক-ফ্র্যাঞ্চাইজি টি-টোয়েন্টি মিলিয়ে খেলেছেন ১২টা ফাইনাল।

বাংলাদেশ দলের হয়ে ২০১৬ এশিয়া কাপ ও ২০১৮ নিদাহাস ট্রফির ফাইনাল। আইপিএলে তিনবার, বিপিএলে চারবার, সিপিএলে একবার, বাংলাদেশে ২০১৩ বিজয় দিবস টি-টোয়েন্টি ও ২০১০ সালে খুলনা বিভাগের হয়ে জাতীয় ক্রিকেট লিগের ফাইনাল খেলেছেন সাকিব।

মোট ১২বার ফাইনালে খেলে টি-টোয়েন্টিতে সবচেয়ে বেশিবার ফাইনাল খেলার কৃতিত্ব বোধহয় সাকিবেরই। ফাইনাল খেলার এই অর্জন বড় করে দেখলেও কাল চ্যাম্পিয়ন না হতে পারার আক্ষেপ কিছুতেই যাচ্ছে না সাকিবের, ‘(আজ) চ্যাম্পিয়ন হতে পারলে অর্জনটা বড় মনে হতো। হ্যাঁ, ফাইনাল খেলতে পারাটাও একটা অর্জন। এমন টুর্নামেন্ট কিংবা সিরিজ যখন হয়, শেষ পর্যন্ত যাওয়া অবশ্যই একটা বড় অর্জন। ভালো একটা অভিজ্ঞতা। আসলে এই অভিজ্ঞতাই তো সব নয়। শেষ ম্যাচ জিততে পারলেই ভালো। চেষ্টা থাকবে যে জায়গাগুলো উন্নতি দরকার সেগুলো করা। সামনে যেন ফাইনাল ম্যাচ জিততে পারি।’

গত এক বছরে সব মিলিয়ে সাকিব পাঁচটা ফাইনালে খেলে প্রতিবারই হেরেছেন। বারবার ফাইনালে হারের যন্ত্রণার চেয়ে এখন তাকে বেশি পোড়াচ্ছে নিউজিল্যান্ড সফরের আগের দিন আঙুলে পাওয়া চোট। বিসিবির চিকিৎসক জানিয়েছেন, চোট পাওয়া জায়গাটা প্রায় তিন সপ্তাহ নড়াচড়াই করানো যাবে না! তার মানে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ তো শেষই। ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু কিউইদের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজেও তাকে পাওয়া যাবে কি না সন্দেহ!

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত