প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাংলাদেশের বাইরেও বিপিএল এখন বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে : নাজমুল

রাইজিং বিডি : বিপিএলের ষষ্ঠ আসর আগামী ৫ জানুয়ারি থেকে শুরু করার ইচ্ছার কথা জানালেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

সাত দলের বিপিএল হচ্ছে এবারও। রোববার অনুষ্ঠিত হল বিপিএলের খেলোয়াড় ড্রাফট। দেশি ১৮৭ ও বিদেশি ৩৬৬ খেলোয়াড় ড্রাফটে ছিলেন। ড্রাফট থেকে দল পেয়েছেন মোট ৮৭ খেলোয়াড়। এছাড়া রিটেইন এবং সরাসরি সাইনের মাধ্যমে আগে থেকেই দল নিশ্চিত করেন ৪২ খেলোয়াড়।

বিদেশি তারকা খেলোয়াড়দের অংশগ্রহণ এবং খেলোয়াড়দের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বীতা বাড়ায় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বিপিএলের বেশ সুনাম রয়েছে বলে জানালেন বোর্ড সভাপতি। ড্রাফটের পর গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে নাজমুল হাসান বলেন, ‘বিদেশি ক্রিকেটার যারা অংশগ্রহণ করছে এবং যাদের ইচ্ছে ছিল অংশগ্রহণ করার…এর মাধ্যমে পরিষ্কার বোঝা যায় যে বাংলাদেশের বাইরেও বিপিএল এখন বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। এবারের দলগুলো যদি দেখেন, তাদের মধ্যে একটিও পাবেন না যাকে আপনি দুর্বল বলতে পারেন। এটি আসলে অবিশ্বাস্য ব্যাপার। অনেক ভালো ভালো খেলোয়াড় এসেছে এবং তরুণ কিছু খেলোয়াড় সুযোগ পেয়েছে।’

শনিবার রাতে বিসিবির পাঠানো ড্রাফট তালিকায় সবার ওপরে ছিল মুশফিকুর রহিমের নাম। আজ ড্রাফটে তাকেই সবার আগে ড্রাফটে তোলা হতো। কিন্তু রাতে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের কাছে মুশফিককে পেতে আবেদন করে চিটাগং ভাইকিং। সৌম্য আইকন তালিকা থেকে বাদ পড়ায় কোনো আইকন খেলোয়াড় নেওয়ার সুযোগ পায়নি চিটাগং।

মুশফিককে নিয়ে বোর্ড সভাপতি বলেন, ‘আমাদের সাতটি ফ্র্যাঞ্চাইজি আছে এবং সাতজন আইকন আছে। সবসময় যেটি হয় যে প্রত্যেকটি ফ্র্যাঞ্চাইজি একটি করে আইকন পায়। অন্যদের সুযোগ ছিল রিটেইন করার। দুর্ভাগ্যক্রমে চিটাগাংয়ের রিটেইনের কোন সুযোগ ছিল না। ওদের ওখানে যারা ছিল যেমন সৌম্য সরকার- সে এখন আইকনই নেই। সুতরাং ওদেরকে সেই সুযোগটিই দেয়া হয়নি। যেহেতু একজন ছিল সুতরাং তাকে সেখানে থাকতে হবে। সমান বন্টনের কথা চিন্তা করে এবং নীতির কথা চিন্তা করে এটিই ছিল সেরা অপশন।’